ঢাকা, শুক্রবার 24 March 2017, ১০ চৈত্র ১৪২৩, ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

স্বাধীনতার ৪৬ বছর পরও  জনগণের স্বপ্ন পূরণ হয়নি - মকবুল আহমাদ

 

আগামী ২৬ মার্চ যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালনের আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর মকবুল আহমাদ। 

গতকাল বৃহস্পতিবার দেয়া বিবৃতিতে তিনি বলেন, আগামী ২৬ মার্চ আমাদের মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। আমাদের জাতীয় জীবনে এ দিনের তাৎপর্য ও গুরুত্ব অপরিসীম। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জনগণের সীমাহীন ত্যাগ এবং কুরবানির বিনিময়ে আমরা মহান স্বাধীনতা অর্জন করেছি। ক্ষুধা, দারিদ্র ও বেকারত্ব মুক্ত ইনসাফ ভিত্তিক একটি দেশ প্রতিষ্ঠার জন্য এ দেশের সাহসী সন্তানেরা যে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল, তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের জন্ম  হয়। এ দেশের মানুষের স্বপ্ন ছিল স্বাধীনতার মাধ্যমে গণতান্ত্রিক অধিকার, ভাতের অধিকার, ভোটের অধিকার ও বেঁচে থাকার অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে। জনগণের জানমাল, ইজ্জত-আব্রুর নিরাপত্তার গ্যারান্টি নিশ্চিত হবে। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় স্বাধীনতার ৪৬ বছর অতিবাহিত হওয়ার পরও জনগণের সে স্বপ্ন পূরণ হয়নি। সরকার জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে। দেশে চলছে সীমাহীন দুর্নীতি, সন্ত্রাস, লুটপাট, নৈরাজ্য। 

তিনি বলেন, জাতির উন্নতি ও কল্যাণের জন্য সর্বাগ্রে প্রয়োজন জাতীয় ঐক্য ও গণতন্ত্র এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা। কিন্তু সরকার জাতীয় ঐক্য ধ্বংস করে জাতিকে বিভক্তির দিকেই ঠেলে দিচ্ছে এবং গণতন্ত্রকে নির্বাসনে পাঠিয়েছে। এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে হলে দল-মত-নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

তিনি আরো বলেন, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস, হত্যা, খুন, গুম, অপহরণ ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা বাংলাদেশকে এক রক্তাক্ত জনপদে পরিণত করেছে। গণগ্রেফতারের কারণে মানুষের মধ্যে বিরাজ করছে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা ও আতংক। 

মকবুল আহমাদ বলেন, দুর্নীতি, দুঃশাসন, দলীয়করণ, বাক-স্বাধীনতা ও  বিচার বিভাগের স্বাধীনতা হরণ করে সরকার দেশকে এক অনিশ্চয়তার গহ্বরে নিপতিত করেছে। ইসলাম ও ঈমান-আক্বিদার ওপর চলছে সর্বগ্রাসী হামলা। দেশের আলেম-ওলামা, পীর-মাশায়েখগণও সরকারের জুলুম-নিপীড়ন থেকে রেহাই পাচ্ছেন না। এ অবস্থা থেকে মুক্তির জন্য জাতি আজ সংগ্রাম করে যাচ্ছে। জনতার এ আন্দোলনের মাধ্যমেই মহান স্বাধীনতার স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে ইনশাআল্লাহ। 

জাতীয় ঐক্য, গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার দৃঢ় সংকল্পের মাধ্যমে আগামী ২৬ মার্চ যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালনের জন্য তিনি বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সকল শাখা এবং দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।  

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ