ঢাকা, শুক্রবার 24 March 2017, ১০ চৈত্র ১৪২৩, ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

খালেদা জিয়ার নাইকো  মামলা চলবে 

 

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা নাইকো মামলার কার্যক্রম নিয়ে হাইকোর্টের জারি করা রুল খারিজ করে দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ফলে বিচারিক আদালতে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাইকো মামলার কার্যক্রম আবার সচল হতে যাচ্ছে।  

দুদকের করা আবেদন নিষ্পত্তি করে গতকাল বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতির সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার নেতৃত্বে তিন বিচারপতির বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী। আর দুদকের পক্ষে ছিলেন খুরশীদ আলম খান।

গত ১৬ মার্চ হাইকোর্টের দেয়া আদেশ স্থগিত চেয়ে দুদকের করা আবেদন এক সপ্তাহের জন্য স্ট্যান্ডওভার (মুলতবি) করেছিলেন আপিল বিভাগ। এর আগে খালেদা জিয়ার আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ৭ মার্চ বিচারপতি শেখ আবদুল আউয়াল ও বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে রুল জারি করেন। 

এরপর হাইকোর্টের ওই আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল আবেদন করে দুদক। দুদকের করা আবেদন শুনানি নিয়ে গত ১২ মার্চ আপিল বিভাগের চেম্বার জজ বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বিষয়টি ১৬ মার্চ শুনানির জন্য আপিল বিভাগের নিয়মিত ও পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে আদেশ দেন।

খালেদা জিয়াসহ ১১ আসামীর বিরুদ্ধে নাইকো মামলার বিচারিক কার্যক্রম চলছে ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে। এ মামলার অভিযোগ (চার্জ) গঠনের শুনানির পর্যায়ে রয়েছে।

ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন সাংবাদিকদের জানান, একই যুক্তিতে বিচারিক আদালতে করা খালেদা জিয়ার আবেদনও গত ১৫ ডিসেম্বর খারিজ করে দেন আদালত। পরে এর বিরুদ্ধে ২৭ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টে আবেদন করেন বিএনপি চেয়ারপার্সন। 

গত ১ ডিসেম্বর একই মামলায় মওদুদ আহমেদের আবেদনে হাইকোর্ট নাইকো মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে রুল জারি করেছিলেন। ওই স্থগিতাদেশ স্থগিত চেয়ে দুদক আবেদন করলে আপিল বিভাগেও তা বহাল থাকে। তবে রুল শুনানিতে একটি বেঞ্চ বিব্রতবোধ করলে পরে অন্য একটি বেঞ্চে তা পাঠানো হয়। ওই বেঞ্চে রুলটি বিচারাধীন।

এর আগে সকালে মামলার কার্যক্রম বাতিল ও স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন খালেদা জিয়া। 

কানাডার কোম্পানি নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতিসাধন ও দুর্নীতির অভিযোগে খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুদকের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাঁও থানায় নাইকো দুর্নীতি মামলাটি করেন। ২০০৮ সালের ৫ মে এ মামলায় খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন দুদকের সহকারী পরিচালক এস এম সাহেদুর রহমান।

অভিযোগপত্রে প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার রাষ্ট্র্রীয় ক্ষতির অভিযোগ আনা হয়। এ মামলার অন্য আসামীরা হলেন-সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন, সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সি এম ইউছুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, সাবেক সচিব মো. শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, ঢাকা ক্লাবের সাবেক সভাপতি সেলিম ভূঁইয়া ও নাইকোর দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ