ঢাকা, শনিবার 25 March 2017, ১১ চৈত্র ১৪২৩, ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বিমানবন্দর পুলিশ চেকপোস্টে আত্মঘাতী জঙ্গি হামলায় নিহত ১

সংগ্রাম ডেস্ক : হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর এলাকার গোলচত্বরে পুলিশের চেকপোস্টে ‘জঙ্গিদের’ আত্মঘাতী হামলায় একজন নিহত হয়েছে। 

গতকাল শুক্রবার রাত পৌনে আটটার দিকে বিমানবন্দরের পূর্বদিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের সাথে বিমানবন্দর পুলিশ বক্সের সামনে এ ঘটনা ঘটে। 

এ সময় পুরো বিমানবন্দর আতঙ্কিত হয়ে পড়ে।   পথচারিরা ভয়ে দিকবিদিক ছুটাছুটি করতে থাকে।  ঘটনার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছেন।  র‌্যাব ও পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তরা ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন।  সিআইডি পুলিশ ঘটনাস্থল কর্ডন করে রেখেছে।  আমাদের সময় ডটকম। 

বিমানবন্দর থানার ওসি নূরে আজম মিঞা হামলার বিষয়টি নিশ্চত করেছেন।  ডিএমপির উত্তরা জোনের এসি রুহুল আমিন জানান, এটি আত্মঘাতী হামলা।  নিহত ব্যাক্তিই হামলাকারী ছিল। বিমানবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূরে আজম মিয়া বলেন, পুলিশ বক্সের বাইের একটি বোমা বিস্ফোরণ ঘটে।  এতে বোমা বহনকারী ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।  আর কারও হতাহতের খবর পাইনি।  বিমানবন্দর থানার ওসির বরাত দিয়ে বাসস জানায়, অজ্ঞাত এক যুবক পুলিশের ওই তল্লাশিচৌকির সামনে দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন।  সেখানে কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যরা তাঁকে তল্লাশির জন্য থামতে বলেন।  এ সময় ওই যুবক সামনে এগিয়ে গিয়ে নিজের শরীরে বেঁধে রাখা বোমার বিস্ফোরণ ঘটান।  বিস্ফোরণে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।  বোমার স্প্রি¬ন্টারে তার শরীরের বিভিন্ন অংশ ক্ষতবিক্ষত হয়েছে।  নিহত যুবকের বয়স আনুমানিক ২৮ থেকে ৩০ বছর।  তার পরণে ছিল জিনসের প্যান্ট ও টি-শার্ট। 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই ঘটনার পর পর আশপাশের দোকানপাট বন্ধ করে দেয়া হয়।  পুলিশ-র‍্যাবসহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য সেখানে মোতায়েন করা হয়।  রাত ৮ টা ৫০ মিনিটের দিকে ঘটনাস্থলে যান র‍্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। 

আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) সহকারী পুলিশ সুপার তানজিনা আকতার বলেন, ওই ঘটনার পর পর বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।  বিমানবন্দর এলাকায় এপিবিএনের অতিরিক্ত সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। 

শাহজালাল বিমানবন্দরের পরিচালক ইকবাল করিম প্রথম আলোকে বলেন, গত সপ্তাহে র‍্যাব সদর দফতরে হামলার পর বিমানবন্দরের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়।  সেটা আরও বাড়ানো হয়েছে।  বিমানবন্দরের প্রবেশমুখে আর্চওয়ে বসানো হচ্ছে। 

একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, পর পর ৫/৬টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।  এতে পুরো বিমানবন্দর  প্রকম্পিত হয়ে ওঠে, এলাকার পথচারি ও বিদেশগামী ও বিদেশ ফেরত যাত্রীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে, মানুষ অজানা আতংকে দিকবিদিক ছুটাছুটি করতে থাকে।  এ রিপোট লেখা পর্যন্ত আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে অবস্থান করছেন। 

উল্লেখ্য, গত এক সপ্তাহ আগে বিমানবন্দর সংলগ্ন র‌্যাবের নির্মাণাধীন সদর দফতরে আত্মঘাতী বোমা হামলার ঘটনায় একজন নিহত হয়।  আজ একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলো। 

ঘটনা আত্মঘাতী নয় : ডিএমপি কমিশনার

এদিকে ডিএমপি কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে ঘটে যাওয়া ঘটনা আত্মঘাতী নয়।  শুক্রবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে ঘটনা স্থল পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের সাথে একথা বলেন। 

আসাদুজ্জামান মিয়া বলেন, বিমানবন্দরের চেকপোস্টে প্রত্যেক জনকে চেক করে ঢোকানো হচ্ছে।  তাই হয়তো হামলাকারী এই পথ দিয়ে যাওয়ার সময় অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করতে গিয়ে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। 

তিনি আরো বলেন, হামলাকারীর আনুমানিক বয়স ৩০ থেকে ৩৫ বছর।  তার গায়ে একটি ফুল হাতা শার্ট এবং জিন্স প্যান্ট পরনে ছিল।  তবে তার পরিচয় সনাক্ত করা যায়নি।  আমরা ইতোমধ্যে হামরাকারীর ছবি বিভিন্ন মিডিয়ার প্রচার করার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছি তার পরিচয় সনাক্ত করার জন্য। 

ডিএমপি কমিশনার বলেন, হামলাকারীর হাতে একটি ট্রলি ব্যাগ ছিল।  আমরা ব্যাগটি উদ্ধার করেছি।  ব্যাগটির ভেতরে কোনো বিস্ফোরক দ্রব্য আছে কিনা সেটি পরীক্ষা করার জন্য স্ক্যানিং করা হবে। 

তিনি আরো বলেন, এ ঘটনা বিমানবন্দরের বিষয় না।  যদি ঘটনা বিমানবন্দর সংশ্লিষ্ট হতো তাহলে সে রাস্তার পশ্চিম পাশে যেতো।  সে রাস্তার পূর্ব পাশ দিয়ে দক্ষিণ দিকে হেঁটে যাচ্ছিল।  সুতরাং এটি কোনোভাবেই বিমানবন্দর সংশ্লিষ্ট নয়। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ