ঢাকা, বুধবার 29 March 2017, ১৫ চৈত্র ১৪২৩, ২৯ জমাদিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

শ্রমিক সংগঠন নিয়ে শর্ত শিথিলের আভাস দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন

 

স্টাফ রিপোর্টার : দীর্ঘ দিন পর রফতানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকায় শ্রমিকদের সংগঠন শর্ত সাপেক্ষে অনুমোদন দেয়ার আভাস দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। সংস্থাটি জানিয়েছে বর্তমানে ইপিজেড এলাকায় ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন নামে যে সংগঠন আছে আইএলও কনভেনশন অনুযায়ী এটি পুনর্গঠন করা হলে সেটিকেই অনুমোদন দেবে তারা। আর এর মাধ্যমে দেশের ইপিজেড এলাকায় কর্মরত ৪৫ লাখ পোশাক শ্রমিকের ভাগ্য বদলের অপার এক সম্ভাবনা তৈরির পথও সুগম হবে। 

গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর সাথে ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন পার্লামেন্টের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে মন্ত্রী এসব কথা জানান। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলে (ইপিজেড) ট্রেড ইউনিয়ন চেয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। তবে সেখানে ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন নামে যে সংগঠন রয়েছে সেটিকে আইএলওর কনভেনশন অনুযায়ী গঠন করা হলে, ইইউর কোনো আপত্তি থাকবে না বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ইইউ ইপিজেড এ ট্রেড ইইউনিয়ন চেয়েছে। তাদের জানানো হয়েছে বর্তমানে সেখানে ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন নামে শ্রম সংগঠন আছে। তারা ট্রেড ইউনিয়নের মতোই কাজ করে। আইএলও এর নিয়মানুযায়ী আলোচনা সাপেক্ষে করা যাবে। সেভাবে হলে ইইউর কোনো আপত্তি থাকবে না।

তিনি জানান, ‘ইপিজেড এ শ্রমিকদের পরিবেশ খুবই ভালো। তারা সেখানে ভালো বেতন পায়। কেউ ৮ হাজার টাকার নিচে পায় না। শ্রমিক, মালিক ও বিদেশী স্টেকহোল্ডার- এই তিনপক্ষ বসে সব সমস্যা সমাধান করা যাবে।

সূত্র জানায়, ইউরোপীয় ইউনিয়ন বাংলাদেশের ভালো বন্ধু। বাংলাদেশ গত বছর ৩৪ দশমিক ২৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য রপ্তানি করেছে। এর ৫৪ ভাগ অর্থাৎ ১৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য ইউরোপিয়ন ইউনিয়নে রপ্তানি করেছে। ইউরোর অবমূল্যায়ন না হলে এ রপ্তারি পরিমাণ দাড়াঁতো ২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। বাংলাদেশে দারিদ্র্য বিমোচন ও উন্নয়নে ইউরোপীয় ইউনিয়ন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে যাচ্ছে। তাদের সহায়তায় গার্মেন্টস সেক্টরে ৪৫ লাখ শ্রমিক কাজ করছে। রানা প্লাজায় দুর্ঘটনার পর সরকারের নেয়া পদক্ষেপে তারা খুশি।

সূত্র আরো জানায়, ইইউয়ের পরামর্শ এবং আইএলও-এর বিধান মোতাবেক দেশে শ্রমিকদের অধিকার রক্ষায় সরকার সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। শ্রমিকদের বার্গেনিং অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে। একটি কারখানার ৩০ শতাংশ শ্রমিক চাইলে একটি ইউনিয়ন গঠনের সুযোগ পাচ্ছেন। ইপিজেড-এ শ্রমিকরা ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন গঠনের মাধ্যমে তাদের অধিকার ভোগ করছেন। এ খাতের শ্রমিকদের ৩৩৬ ভাগ বেতন বৃদ্ধি করেছে, বর্তমানে সরকারি কর্মচারীদের মতো তারা ৫ শতাংশ হারে ইনক্রিমেন্ট পাচ্ছেন, ৫ বছর পর নিয়ম মোতাবেক নতুন পে-কমিশন গঠিত হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ