ঢাকা, শনিবার 01 March 2017, ১৮ চৈত্র ১৪২৩, ০৩ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

শাহরিয়ার কবির-মুনতাসীর মামুনকে গ্রেফতারের দাবি

সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে গ্রিক মূর্তি অপসারণের দাবিতে ইসলামী ঐতিহ্য সংরক্ষণ কমিটি গতকাল শুক্রবার বাদ জুমা বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেটে সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল করে -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : শাহরিয়ার কবির ও অধ্যাপক মুনতাসীর মামুনকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে ইসলামী ঐতিহ্য সংরক্ষণ কমিটি। গতকাল শুক্রবার এক বিক্ষোভ সমাবেশে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব ও ঐতিহ্য সংরক্ষণ কমিটির সমন্বয়ক মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী এ দাবি জানিয়ে বলেন, হাফেজ্জী হুজুর মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কাজ করলেও এ দু’জনের ষড়যন্ত্রে তাকে স্বাধীনতা বিরোধী বানানো হচ্ছে। মূলত: ইসলামের পক্ষে কাজ করায় নাস্তিক্যবাদীরা পরিকল্পিতভাবে তার নামে অপবাদ দিচ্ছে। এজন্য শাহরিয়ার কবির ও মুনতাসীর মামুনকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

বাদজুমা বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ শেষে একটি মিছিল বের হয়ে পুরানা পল্টন ঘুরে হাউজ বিল্ডিংয়ের সামনে এসে মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয়। মিছিলে শাহরিয়ার কবির ও মুনতাসীর মামুনকে গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবি জানিয়ে ফেস্টুন প্রদর্শন করা হয়। 

সমাবেশে ইসলামী ঐতিহ্য সংরক্ষণ কমিটির আহবায়ক ও খেলাফত আন্দোলনের আমীর মাওলানা শাহ আতাউল্লাহ ইবনে হাফেজ্জী হুজুরের সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নির্বাহী সভাপতি মুফতি মুহাম্মাদ ওয়াক্কাস, হেফাজতে ইসলামের ঢাকা মহানগর সভাপতি মাওলানা নূর হুসাইন কাসেমী, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের আমীর ড. মাওলানা মুহাম্মাদ ঈশা শাহেদী, ঐতিহ্য সংরক্ষণ কমিটির সদস্য সচিব মুফতি মাহফুজুল হক, জামিয়া মুহাম্মাদিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা আবুল কালাম, ইসলামী ঐক্যজোটের ভাইস চেয়ারম্যান ও খেলাফতে ইসলামীর আমীর মাওলানা আবুল হাসনাত আমিনী, খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব শেখ গোলাম আসগর, মুফতি মাওলানা মামুনুল হক, মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা জালালউদ্দিন আহমাদ, মাওলানা ফজলুুল করিম কাসেমী, মুফতি সাখাওয়াত হুসাইন, মাওলানা সানাউল্লাহ, মুফতি ফখরুল ইসলাম, মাওলানা সুলতান মুহিউদ্দিন প্রমুখ।

শাহ আতাউল্লাহ বলেন, হাফেজ্জী হুজুর ও মুফতি আমীমুল ইহসান দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয়। হাফেজ্জী হুজুর এদেশে ইসলাম প্রসারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। এজন্যই নাস্তিকরা চক্রান্তে নেমেছে। তিনি বলেন, দুই বুজুর্গের নামে সড়কের পুনঃনামকরণ না করলে সারাদেশে দাবানল জ্বলে উঠবে। 

মুফতি ওয়াক্কাস বলেন, মূর্তি স্থাপন ও বুজুর্গের নাম সরিয়ে দেয়ার চক্রান্ত একই সূত্রে গাঁথা। এ চক্রান্ত সফল হতে দেয়া হবে না। নূর হোসাইন কাসেমী বলেন, দুই বুজুর্গকে অসম্মানিত করে এবং মূর্তি স্থাপন করায় আল্লাহর বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিটি মুসলমানকে আন্দোলনে নামতে হবে। 

মাওলানা মাহফুজুল হক বলেন, আল্লাহর গজব থেকে দেশ ও জাতিকে রক্ষা করতে হলে হাফেজ্জী হুজুরের মর্যাদাকে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে হবে। মাওলানা ঈসা শাহেদী বলেন, দুই বুজুর্গের বিরুদ্ধাচরণকারীরা ও মূর্তি স্থাপনকারীরা জাতিসত্তা ও স্বাধীনতার শত্রু। গ্রীক দেবী মূর্তি গজবের প্রতীক। একে সরাতেই হবে।

মাওলানা আবুল কালাম বলেন, হাফেজ্জী হুজুরের বিরুদ্ধে চক্রান্তকারী মুনতাসীর মামুন ও শাহরিয়ার কবীর স্বাধীনতার শত্রু।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ