ঢাকা, শনিবার 08 March 2017, ২৫ চৈত্র ১৪২৩, ১০ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ‘বিমান নিরাপত্তা চুক্তি’ বাতিল রাশিয়ার

৭ এপ্রিল,স্পুটনিক : সিরিয়ার বিমানঘাঁটিতে মার্কিন বিমান হামলার পর দেশটির আকাশসীমায় যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে করা ‘বিমান নিরাপত্তা চুক্তি’ বাতিল করেছে রাশিয়া। গতকাল শুক্রবার রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে দেশটির বার্তা সংস্থা স্পুটনিক।
উল্লেখ্য, গত বছর মার্কিন ও রুশ যুদ্ধবিমান পরস্পরের ওপর একাধিক হামলা চালানোর পর উভয় পক্ষ হামলার বিষয়ে অপর পক্ষকে আগে থেকে অবগত করার বিষয়ে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করে।
এক বিবৃতিতে রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ‘সিরিয়ার আকাশে মার্কিন ও রুশ যুদ্ধবিমানের অনাহুত সংঘর্ষ এড়িয়ে চলার জন্য করা সমঝোতা স্মারক বাতিল করেছে মস্কো।’
এবারের মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র হামলাকে ২০০৩ সালে ইরাকে চালানো বুশ প্রশাসনের হামলার স্মারক বলে উল্লেখ করেছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ।
লাভরভ আশা করছেন, সিরিয়ায় মার্কিন হামলা অপরিবর্তনীয় পরিবর্তনের দিকে নিয়ে যাবে না। তবে এই জ্যেষ্ঠ রুশ কূটনীতিক আরও বলেছেন, সিরিয়ার হোমসে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার কারণে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কের সমাপ্তি টানতে পারে রাশিয়া।
মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগনের এক বিবৃতিতে বলা হয়, গত বৃহস্পতিবার রাতে (সিরিয়ার স্থানীয় সময় শুক্রবার ভোরে) ভূমধ্যসাগরে অবস্থান করা যুক্তরাষ্ট্রের দু’টি যুদ্ধজাহাজ ইউএসএস পোর্টার এবং ইউএসএস রস থেকে আসাদ সরকার নিয়ন্ত্রিত আল-শায়রাত বিমানঘাঁটিতে ৫৯টি টমাহক ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে। হামলায় ঘাঁটিতে রাখা যুদ্ধবিমান ও হেলিকপ্টারসহ অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলেও দাবি করা হয়।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবি, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় অঞ্চল ইদলিবে বিমান থেকে চালানো রাসায়নিক গ্যাস হামলার জবাবেই মার্কিন বাহিনী ওই হামলা চালিয়েছে।
ট্রাম্প বলেন, ‘সিরিয়ার চালানো রাসায়নিক হামলার জবাবে আমি সামরিক স্থাপনায় ওই হামলা চালানোর নির্দেশ দিয়েছি। এই মারাত্মক রাসায়নিক অস্ত্র যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ