ঢাকা, শনিবার 08 March 2017, ২৫ চৈত্র ১৪২৩, ১০ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

লালমনিরহাটে বর্ষণে ফসল তলিয়ে গেছে

লালমনিরহাট সংবাদদাতা : পাহাড়ী ঢল আর প্রচুর বৃষ্টিপাতের কারণে উজান থেকে তিস্তায় হু-হু করে আসছে পানি। মাত্র ৪দিনের ব্যবধানে শুরু হয়েছে অসময়ের বন্যা। শুকিয়ে যাওয়া তিস্তা ফিরে পেয়েছে নব যৌবন। পানিতে ডুবে গেছে শাক সবজী আর ফসলে ভরা তিস্তার বালুচরের জমি।  খুলে দেয়া হয়েছে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজের ৪৪টি জলকপাট। গত রোববার থেকে তিস্তার পানি হঠাৎ বাড়তে শুরু করে। ওইদিন রাতে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় অবস্থিত দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজে পানির পরিমান রেকর্ড করা হয় ১হাজার ৪শত কিউসেক। পরদিন সোমবার দুপুরে ব্যারেজ পয়েন্টে পানি বেড়ে দাঁড়ায় ২হাজার ৭শত কিউসেক। ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা ও পুর্বাভাস সর্তকীকরণ কেন্দ্র সুত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সকাল থেকে বুধবার দুপুর পর্যন্ত পানি এক লাফে বৃদ্ধি প্রায় দশমিক ৮৫ মিটার। যা বাংলাদেশ অংশে তিস্তার পানি প্রবাহ স্তর প্রায় ১৩ হাজার কিউসেক। ফলে তিস্তার ধুধু বালু চরের ফসলি জমিতে উঠেছে পানি। দেখা দিয়েছে অকাল বন্যা। ক্ষতি হচ্ছে মৌসুমী সব্জিসহ অন্যান্য ফসলের। বুধবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তিস্তা চরে রোপন করা ভুট্টা ক্ষেত পানিতে ভরে উঠায় কৃষকের মুখে হাসি ফুটলেও হঠাৎ পানি বৃদ্ধিতে মিষ্টি কুমড়া, পিয়াজ ও রসুনের ক্ষেত ডুবে যাওয়ায় অনেক কৃষকের চোখে মুখে হতাশাও লক্ষ্য করা যায়। তিস্তা পাড়ের মহিষখোচা এলাকার ভুট্টা চাষি আলাল উদ্দিন ও জসিম উদ্দিন জানান, ভুট্টা গাছ ও বোরো ধানের গাছ পানি পেয়ে সতেজ হয়ে উঠছে। তবে পিঁয়াজ চাষি শাহজাহান মিয়া জানান, তার পিঁয়াজ ক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। উঠতি এ ফসল হঠাৎ পানিতে ডুবে যাওয়ায় চিন্তায় রয়েছেন তিনি। এ ছাড়া তিস্তা চরের নৌকার মাঝি মেহের আলী (৫৬) বললেন, বালুচরে পড়ে থাকা তাদের নৌকাগুলো পানি পেয়ে চলতে শুরু করেছে। মাছ শিকারে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে তিস্তাপাড়ের জেলেরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ