ঢাকা, মঙ্গলবার 11 March 2017, ২৮ চৈত্র ১৪২৩, ১৩ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

গরু জবাই বন্ধেই সহিংসতা দমন সম্ভব -আরএসএস প্রধান

১০ এপ্রিল, টাইমস অব ইন্ডিয়া : গো-হত্যা বন্ধের মাধ্যমেই সকল সহিংসতা প্রতিরোধ সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের আরএসএস প্রধান মোহন ভাগওয়াত। রোববার প্রভু মহাবীরের স্মরণানুষ্ঠানে বক্তব্য দেয়ার সময় তিনি এই মন্তব্য করেন।
তার মতে, গো-হত্যা বন্ধ করলেই ভারতে এবং প্রত্যেক রাজ্যে সব ধরনের সহিংসতা ও দ্বন্দ্ব প্রতিরোধ করা যাবে। এই গো-হত্যা রোধে প্রত্যেক দেশকেই নির্দিষ্ট আইন জারির আহ্বান জানান তিনি।
মোহন বলেন, ‘আমরা ভারতবাসীরা গরু হত্যার বিরুদ্ধে কঠোর আইন তৈরি করার জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানাচ্ছি। ভারতে গো-হত্যা প্রায় কমে এসছে। তাই সরকারের এই বিষয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ কামনা করছি আমরা।’
সাম্প্রতি ভারতের গুজরাটসহ বেশ কয়েকটি রাজ্যেই গো-হত্যার বিরুদ্ধে কঠোর আইন জারি হয়েছে। আর এই আইন প্রণয়ন করতে আরএসএস গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রেখেছে।
এদিকে ভারতে গোহত্যার ঘোলা পানিতে এবার অবতীর্ণ হলেন সমাজবাদী পার্টির নেতা আজম খান। মথুরার শঙ্করাচার্য তাকে উপহার হিসেবে যে গরু দিয়েছিলেন তা ফেরত দিলেন তিনি। আজমের বক্তব্য, এই পরিবেশে গোরক্ষকরা কোনো মুসলমানের কাছে গরু দেখলেই ক্ষেপে উঠছেন। তাই প্রাণভয়ে নিজের গরু ফেরত দিচ্ছেন তিনি।
২ বছর আগে মথুরার শঙ্করাচার্য আজম খানকে একটি কালো গরু উপহার দেন। সেই গরুটিই ফেরত পাঠিয়েছেন তিনি। তার বক্তব্য, রাজস্থানের আলোয়ারে পেহলু খানকে যেভাবে মারা হয়েছে, তা তার সঙ্গেও ঘটতে পারে।
এমনকী ওই গরুও কোনো মুসলমানের হাত দিয়ে তিনি শঙ্করাচার্যের কাছে ফেরত পাঠাননি বলে আজম মন্তব্য করেছেন।
আরএসএস সরসঙ্ঘচালক মোহন ভাগবত বলেছেন, গোটা দেশে গোহত্যা বিরোধী আইন কার্যকর হোক। এ নিয়ে আজমের মন্তব্য, সম্ভাব্য রাষ্ট্রপতি তালিকায় মোহন ভাগবতের নাম রয়েছে। একদিকে গরু নিয়ে অশান্তির জেরে লোকের প্রাণ যাচ্ছে আবার কিছু রাজ্যে গোহত্যার পক্ষে আইন রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ