ঢাকা, বুধবার 12 April 2017, ২৯ চৈত্র ১৪২৩, ১৪ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ব্যারিস্টার ফখরুলের জামিন আপিলে বহাল

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সাবেক সদস্য মরহুম সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার রায় ফাঁসের ঘটনায় আইনজীবী ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। হাইকোর্টের দেয়া জামিন বহাল থাকায় ফখরুল ইসলামের মুক্তিতে আর কোনো বাধা নেই।
জামিন স্থগিত চেয়ে সরকারের করা আবেদন খারিজ করে গতকাল মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ এ আদেশ দেন।
আদালতে ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জয়নুল আবেদিন ও ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। সরকার পক্ষে ছিলেন এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।
আদেশের পর মাহবুব উদ্দিন খোকন জানান, এ আদেশের ফলে ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামের মুক্তিতে আর কোনো বাধা নেই।
গত ৬ এপ্রিল ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামকে হাইকোর্টের দেয়া এক বছরের জামিন ১০ এপ্রিল পর্যন্ত স্থগিত করেন আপিল বিভাগ। এরআগে গত ৪ এপ্রিল বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিম সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলামের এক বছরের জামিন মঞ্জুর করেন। এটা স্থগিত চেয়ে আবেদন করে সরকার।
গত বছরের ৬ ডিসেম্বর রায় ফাঁসের মামলায় ১০ বছরের কারাদ-প্রাপ্ত আইনজীবী ফখরুল ইসলামের আপিল গ্রহণ করেন হাইকোর্ট। আপিল গ্রহণের পর জামিন চেয়ে আবেদন করেন আইনজীবী ফখরুল ইসলাম। সেই আবেদনের শুনানি নিয়ে মঙ্গলবার আদালত তার এক বছরের জামিন মঞ্জুর করেন।
জানা গেছে, মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর বিএনপির স্থায়ী কমিটির সাবেক সদস্য সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে মৃত্যুদণ্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। তবে রায়ের আগেই সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর স্ত্রী ফারহাত কাদের চৌধুরী ও তার পরিবারের সদস্য এবং আইনজীবী রায় ফাঁসের অভিযোগ করেন। তারা ‘রায়ের খসড়া অনুলিপি’ সাংবাদিকদের দেখান এবং স্পাইরাল বাইন্ডিং করা কপি নিয়ে ট্রাইব্যুনালের এজলাস কক্ষে নিয়ে যান। রায় ঘোষণার পরদিন ২ অক্টোবর ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার এ কে এম নাসির উদ্দিন মাহমুদ বাদী হয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।
গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর রায়ের খসড়া ফাঁসের মামলার রায় দেন সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালের বিচারক কে এম শামসুল আলম। রায়ে সাকার আইনজীবীসহ পাঁচজনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেন ট্রাইব্যুনাল। তবে রায়ে সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর স্ত্রী ফারহাত কাদের চৌধুরী ও তার ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরী খালাস পান। আর আইনজীবী ফখরুল ইসলামকে ১০ বছর ও ১০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদ- দেয়া হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ