ঢাকা, বৃহস্পতিবার 13 April 2017, ৩০ চৈত্র ১৪২৩, ১৫ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সাভারে যাওয়ার আগে সরকারের কাছে ট্যানারি মালিক শ্রমিকদের ৯ দফা

গতকাল বুধবার হাজারীবাগ এলাকায় চামড়া শিল্প রক্ষা ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে কালো পতাকা মিছিল বের করা হয় -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : নতুন কর্মস্থল সাভারে যাওয়ার আগে সরকারের কাছে ব্যবসার নিরাপদ পরিবেশসহ নয় দফা দাবি জানিয়েছেন হাজারীবাগের ট্যানারি মালিক ও শ্রমিকরা। সেইসঙ্গে দাবি আদায়ে কালো পতাকা মিছিল করেন মালিক শ্রমিকরা।
গতকাল সোমবার দুপুরে রাজধানীর হাজারীবাগে আয়োজিত ট্যানারি শ্রমিক-মালিকদের সমাবেশ থেকে সাভারের নতুন চামড়া শিল্পনগরীতে আগামী ১৫ দিনের মধ্যে গ্যাস-বিদ্যুতের সংযোগসহ ৯ দফা দাবি জানানো হয়। বাংলাদেশ ফিনিশ লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়।
সমাবেশে সংগঠনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ নয় দফা দাবি তুলে ধরেন। ট্যানারি শ্রমিকদের সমাবেশে একাত্মতা প্রকাশ করেন সংসদ সদস্য হাজী সেলিম।
দাবিগুলো হচ্ছে- ২০০৩ সালের সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী শিল্প নগরীর প্লটের মালিকানা দ্রুত রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে, শিল্প নগরীতে আন্তর্জাতিক মানের সিইটিপি, ক্রোম রিকভারি ইউনিট ও ডাম্পিং ইয়ার্ড নির্মাণ নিশ্চিত করতে হবে।
প্রসঙ্গত, আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী ১৫ দিনের মধ্যে সাভার চামড়া শিল্পনগরীতে গ্যাস, বিদ্যুৎ সংযোগ নিশ্চিত করতে হবে, সেইসঙ্গে শ্রমিকদের আবাসন, সেক্টর সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলোর পুনর্বাসনের লক্ষ্যে বরাদ্দসহ প্লট না পাওয়া উদ্যোক্তাদের প্লট দিতে হবে, কারখানা বন্ধের সময় শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা পরিশোধের জন্য মালিকদের সরকারের পক্ষ থেকে এককালীন অর্থ বরাদ্দ দিতে হবে, কারখানার উৎপাদন বন্ধ হওয়ার যেসব রপ্তানি আদেশ বাতিল হবে এবং ক্রেতাদের দাবি করা ক্ষতিপূরণের অর্থ সরকারকে পরিশোধ করতে হবে, বিসিক-এর অব্যবস্থাপনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করতে হবে। এছাড়া শিল্পদ্যোক্তাদের বিদ্যমান ঋণ ব্লক ও সুদ মওকুফ করতে হবে। এছাড়া হাজারীবাগের জমিতে ডিজাইন প্ল্যান পাসের ওপর রাজউকের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার দাবি জানানো হয় সমাবেশ থেকে।
এদিকে চামড়া শিল্প রক্ষা ঐক্য পরিষদ ঘোষিত নয় দফা দাবি বাস্তবায়নে কালো পতাকা মিছিল করে ট্যানারিগুলোর মালিক-শ্রমিক ও এই খাত-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। বেলা ১১টার দিকে হাজারীবাগের ঢাকা ট্যানারির মোড় থেকে এই মিছিল শুরু হয়। পরে মিছিলটি ইনস্টিটিউট অব লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজির সামনে থেকে জিগাতলা, পুরান কাঁচাবাজার ও শেরেবাংলা রোড ঘুরে আবার আগের জায়গায় ফিরে আসে।
মিছিল উপলক্ষে শ্রমিকেরা প্রথমে নিজ নিজ কারখানার সামনে হাজির হন। পরে সেখান থেকে জোটবদ্ধ হয়ে ঢাকা ট্যানারির মোড়ে আসেন। মিছিলে শত শত পুুরুষ শ্রমকের সঙ্গে নারীরাও উপস্থিত হন।
মিছিল শেষে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী চামড়াকে এ বছরের “বর্ষপণ্য” ঘোষণা করেছেন। এ খাতে ৬০০ কোটি ডলার রপ্তানি আয়ের লক্ষ্য নিয়ে কাজ চলছিল। কিন্তু সবকিছু ধ্বংস হয়ে গেল। কারখানাগুলোতে দেড় হাজার কোটি টাকার চামড়া মজুত রয়েছে। এই খাতে মোট বিনিয়োগ আড়াই হাজার কোটি টাকার বেশি। রপ্তানিও বন্ধ। এখন আমরা বুঝতে পারছি না আগামী দিনগুলো কীভাবে চলবে।
মহিউদ্দিন আহমেদ আরও বলেন, আজ হাজারীবাগে পরিবেশদূষণের কথা বলে আমাদের সাভারে চলে যেতে বলা হচ্ছে। সাভারে যে পরিবেশদূষণ হবে না, সেই নিশ্চয়তা কে দেবে? আমরা সরকারের কাছে নিরাপদ বিনিয়োগের নিশ্চয়তা চাই। এ পর্যায়ে সাভারের হেমায়েতপুরে পরিবেশবান্ধব উৎপাদনের জন্য যত দ্রুত সম্ভব আন্তর্জাতিক মানের কেন্দ্রীয় বর্জ্য পরিশোধনাগার (সিইটিপি) চালুর দাবি জানান তিনি।
সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. শাখাওয়াত উল্লাহ, ট্যানারি ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।
এর আগে ৮ এপ্রিল পরিবেশ অধিদপ্তর হাজারীবাগের ট্যানারিগুলোর সেবা সংযোগ বন্ধ করে দেওয়ার পর দেশের চামড়া খাতের ১৩টি সংগঠনের সমন্বয়ে চামড়া শিল্প রক্ষা ঐক্য পরিষদ গঠিত হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ