ঢাকা, রোববার 16 April 2017, ৩ বৈশাখ ১৪২৩, ১৮ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

খুলনায় নানা আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপন

খুলনা অফিস : বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে খুলনায় বাংলা নববর্ষ-১৪২৪ উদযাপন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানের মধ্যে ছিল মঙ্গল শোভাযাত্রা, বৈশাখী গান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পান্তা উৎসব।

এ উপলক্ষে খুলনা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শুক্রবার সকালে খুলনা বিভাগীয় জাদুঘর চত্বরে বকুলতলায় বৈশাখী গানের মধ্যদিয়ে দিবসের সূচনা করা হয়। পরে নগরীর শিববাড়ি মোড়ে বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন তালুকদার আব্দুল খালেক এমপি ও খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুস সামাদ। শোভাযাত্রাটি শিববাড়ি মোড় থেকে শুরু করে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে খুলনা অফিসার্স ক্লাবে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) মোহাম্মদ ফারুক হোসেন, এডিশনাল ডিআইজি মো. হাবিবুর রহমান, খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান, পুলিশ সুপার মোল্ল্যা নিজামুল হক, সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সাইফুল ইসলাম সহ সরকারি-বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা, শিক্ষক, শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।

সকাল আট টায় জেলা প্রশাসকের বাংলোর বকুলতলায় অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পান্তা উৎসব। এছাড়া সন্ধ্যায় নগরীর শান্তিধাম মোড়স্থ জাতিসংঘ শিশু পার্কে ‘বাংলা নববর্ষের ঐতিহ্য ও ইতিহাস’ নিয়ে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। নববর্ষ উপলক্ষে জাতিসংঘ পার্কে তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

খুলনা শিশু একাডেমি শিশুদের নিয়ে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে। খুলনা জেলা কারাগার ও শিশু পরিবার-৩ ঐতিহ্যবাহী বাঙালী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন এবং জেলা কয়েদিদের তৈরি বিভিন্ন দ্রব্যাদির প্রদর্শনী হয়। এছাড়া আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্ব-স্ব ব্যবস্থাপনায় জাঁকজমকপূর্ণভাবে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করা হয়। বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগার কর্তৃপক্ষ শিশুদের রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা নববর্ষ ১৪২৪ উদযাপনে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সবচেয়ে বড় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। অপরদিকে বৈশাখী মেলায় মানুষের আগমনী ঢল শুরু হয়েছে। পহেলা বৈশাখ সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান নগরীর শিববাড়ী মোড়ে প্রধান অতিথি হিসেবে বেলুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করেন। পরে ভিসির নেতৃত্বে নগরীর শিববাড়ি মোড় থেকে ময়লাপোতা মোড় হয়ে রয়্যাল চত্বরে গিয়ে বাংলা নববর্ষের বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শেষ হয়। শোভাযাত্রায় ট্রেজারার খান আতিয়ার রহমান, ডিনবৃন্দ, পরিচালক, রেজিস্ট্রার, ডিসিপ্লিন প্রধান, ছাত্র বিষয়ক পরিচালক, প্রভোস্টবৃন্দ, মেলা আয়োজক কমিটির সভাপতি এবং কমিটির সদস্য-সচিব, বিভাগীয় প্রধানগণ, শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা অংশ নেন। নানা রংয়ের ফেস্টুন, হাতি, ঘোড়া, কাকাতুয়াসহ বর্ণিল সাজের সাথে বাংলার ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলাসহ শোভাযাত্রাটি যখন এভিনিউ পথে এগোছিলো আশপাশের মানুষ হাত নেড়ে অভিনন্দন জানায়। রয়েল মোড়ে এসে পৌঁছিলে উপাচার্য সংক্ষিপ্ত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শোভাযাত্রাটির সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালযে (কুয়েট) পহেলা বৈশাখ ১৪২৪ ‘শুভ নববর্ষ’ উৎসবমুখর পরিবেশে দিনব্যাপী জাঁকজমকপূর্ণ নানাবিধ কর্মসূচি পালনের মাধ্যমে উদ্যাপন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে আয়োজিত কর্মসূচির মধ্যে সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে রকমারি আয়োজনে সাজানো বৈশাখী মেলা। বৈশাখী মেলায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল হলের অংশগ্রহণে খাঁটি দেশীয় খড়মাটির কুঠি বানিয়ে দেশীয় ঐতিহ্যের পান্তা-মরিচ ভাজা, গ্রাম বাংলার ষড়ঋতুর আকর্ষণীয় বিভিন্ন আয়োজন, দেশীয় পিঠা তৈরী ও প্রদর্শনী ইত্যাদি নানাবিধ বর্ণিল আয়োজন করা হয়। ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর স্টলগুলো ঘুরে দেখেন এবং দেশীয় বিভিন্ন খাবারের স্বাদ গ্রহণ করেন। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

খেলার মাঠে সকাল ৯টায় বর্ষবরণ সংগীতানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ