ঢাকা, রোববার 16 April 2017, ৩ বৈশাখ ১৪২৩, ১৮ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নেত্রকোনায় নানা আয়োজনে পালিত হলো বর্ষবরণ

নেত্রকোনা সংবাদদাতা : বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা আর সকল প্রকার কুসংস্কার, ধর্মান্ধতা, নিরক্ষরতা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদমুক্ত মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক সুখী ও সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়ার দীপ্ত অঙ্গীকারের মধ্য দিয়ে নানা আয়োজনে নেত্রকোনায় পালিত হয়েছে বাঙালির প্রাণের উৎসব বর্ষবরণ ও বৈশাখী মেলা। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পুরাতন কালেক্টরেট ভবনের মুক্তমনা মঞ্চে ‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো’ এই গানের আহ্বানের মধ্য দিয়ে পহেলা বৈশাখের কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল ৯টায় দিকে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়। এছাড়াও মিতালী সংঘ, নেত্রকোনা সরকারি মহিলা কলেজ, হলি চাইল্ড একাডেমি পৃথক পৃথক মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করে। বর্ষবরণ উপলক্ষ্যে মধুমাছি কঁচি-কাচা বিদ্যানিকেতন প্রাঙ্গণ, চন্দ্রনাথ স্কুল মাঠে ও সাতপাই কলেজ মাঠে মেলা বসে। সেখানে স্থানীয় শিল্পীরা মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। সন্ধ্যার পূর্বেই স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন নাশকতার আশঙ্কায় মেলা বন্ধ করে দেন। পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে কিছুটা আনন্দ বিনোদনের জন্য বিকালে যারা পরিবার পরিজন নিয়ে বের হয়েছিলেন, তারা পুলিশের এই ধরনের ভূমিকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান :  লোক সাহিত্য ও সংস্কৃতি সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও বিকাশের লক্ষ্যে গঠিত সাংস্কৃতিক সংগঠন শিকড় উন্নয়ন কর্মসূচি কর্তৃক লোক গবেষণা পত্র ‘শিকড় সঞ্জীবন’ তৃতীয় সংখ্যা’র পাঠ উন্মোচন উপলক্ষ্যে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নেত্রকোনা শিল্পকলা একাডেমির হলরুমে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা অনুষ্ঠানে শিকড় সঞ্জীবন সম্পর্কে মূল্যবান মতামত তুলে ধরেন বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক অধ্যাপক যতীন সরকার, জেলা প্রশাসক ড. মোঃ মোশফিকুর রহমান, গবেষক আলী আহম্মদ খান আইয়ুব, শিকড়ের সভাপতি আ ফ ম রফিকুল ইসলাম খান আপেল, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান খোকন, কবি সরোজ মোস্তফা, উন্নয়ন কর্মী স্বপন পাল, নেত্রকোনা সাহিত্য সমাজের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল্লাহ ইমরান, সাংবাদিক সঞ্জয় সরকার, সাহিত্য সাময়িকি জলসিড়ি’র সম্পাদক দীপক সরকার ও শিকড় সঞ্জীবন-এর সম্পাদক শিমুল মিল্কী প্রমূখ।   

অনুষ্ঠানে আলোচকবৃন্দ সবাইকে শিকড়ের সন্ধানে কাজ করার আহ্বান জানান। যারা এই অঞ্চলের লোক সাহিত্য ও সংস্কৃতিকে সৃজনশীলতার মাধ্যমে দেশবাসীর সামনে তুলে ধরে নেত্রকোনাকে সমৃদ্ধ করেছেন, তাদের অবদানের কথা এই গবেষণা পত্রের মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের সামনে তুলে ধরার আহ্বান জানান। পরে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ