ঢাকা, সোমবার 17 April 2017, ৪ বৈশাখ ১৪২৩, ১৯ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চলতি মওসুমে ১৫ লাখ মেট্রিক টন ধান ও চাল কিনবে সরকার

স্টাফ রিপোর্টার : চলতি বোরো মওসুমে অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে ১৫ লাখ মেট্রিক টন ধান ও চাল কিনবে সরকার। সংগ্রহ মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি কেজি চালের ৩৪ টাকা ও ধানের ২৪ টাকা। এবার মোট সংগ্রহের মধ্যে ৭ লাখ টন থাকছে ধান, যা কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি কেনা হবে।

সচিবালয়ে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে গতকাল রোববার খাদ্য পরিকল্পনা ও পরিধারণ কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভা শেষে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম সাংবাদিকের এ তথ্য জানিয়েছেন। মন্ত্রী জানিয়েছেন, আগামী ২মে থেকে শুরু হয়ে এ ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান চলবে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত।

এবার ৮ লাখ টন বোরো চাল কেনা হবে জানিয়ে খাদ্যমন্ত্রী বলেছেন, এরমধ্যে এক লাখ টন হবে আতপ চাল। প্রতি কেজি আতপ চালের ক্রয় মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৩ টাকা।

গত বছর বোরোতে ১৩ লাখ টন ধান-চাল সংগ্রহ করে সরকার। এরমধ্যে ৭ লাখ টন ধান ও ৬ লাখ টন চাল সংগ্রহ করা হয়। সংগ্রহ মূল্য ছিল প্রতি কেজি চালের ৩২ টাকা ও ধানের ২৩ টাকা।

কৃষকদের ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে ৭ লাখ টন ধানের মূল্য পরিশোধ করা হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেছেন, যাতে টাকা সরাসরি কৃষকদের হিসাবে জমা হয়। কোনো রকম মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্য না থাকে। বোরো ধান ও চালের উৎপাদন খরচের বিষয়ে জানতে চাইলে কামরুল ইসলাম বলেছেন, ধানের উৎপাদন খরচ ২২ টাকা ও চালের উৎপাদন খরচ পড়েছে ৩১ টাকা।

সারাদেশে এবার বোরো চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা এক কোটি ৯১ লাখ ৫৩ হাজার টন নির্ধারণ করা হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেছেন, ‘আমরা টার্গেট পূরণ করতে পারব। হাওড় অঞ্চলের বোরো ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার পরও লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হবে, ইনশাআল্লাহ ।

তিনি আরো বলেছেন, ‘হাওড় এলাকায় প্রতি বছরই একটু ক্ষতি হয়, এবার ক্ষতিটা একটু বেশি হয়েছে, প্রায় সাড়ে চার লাখ টন চালের আকারে ক্ষতি হবে হওড় এলাকায়। ভাল জায়গায় যেভাবে বাম্পার ফলন হয়েছে, তাতে এ সাড়ে ৪ লাখ টন ক্ষতি আমাদের পুষে যাবে। কোনো রকম অসুবিধা হবে না।’

বৃষ্টিতে সুনামগঞ্জের ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের সহায়তার বিষয়ে সভায় কোনো আলোচনা হয়েছে কিনা- জানতে চাইলে খাদ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোণার হাওড়ের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় আমরা ওএমএসের চাল ও আটা দিচ্ছি, যেটা বন্ধ ছিল; আমরা চালু করে দিয়েছি ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার পরই। এ ছাড়া খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি তো চলমান আছে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ