ঢাকা, সোমবার 17 April 2017, ৪ বৈশাখ ১৪২৩, ১৯ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কাল বৈশাখী ঝড়ে লণ্ডভণ্ড সুন্দরগঞ্জ

সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় কাল বৈশাখী ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত বসতবাড়ি। ছবিটি দহবন্দ ইউনিয়ন হতে তোলা

খিজির উদ্দিন, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) সংবাদদাতা : সুন্দরগঞ্জ উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড়ে লণ্ডভণ্ড হয়ে পড়েছে গোটা উপজেলার দৃশ্যপট। ক্ষতি হয়েছে ঘর-বাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, গাছপালা, বৈদ্যুতিক ব্যবস্থা ও উঠতি ইরি বোরো ধানসহ নানাবিধ ফসলের ক্ষেত। এখন পর্যন্ত ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করা সম্ভব হয়নি। 

শনিবার বিকালে হঠাৎ উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড়ো হাওয়ায় আঘাৎ হানে। উত্তর পশ্চিম দিক থেকে ধেয়ে আসা প্রচন্ড বেগে শিলাবৃষ্টিসহ ঝড়ও হাওয়া নিমিষের মধ্যেই লন্ড-ভন্ড করে দেয়  গোটা উপজেলা দৃশ্যপট। বৈশাখের প্রথম দিনে কাল বৈশাখী ঝড়ও হাওয়ায় উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও একটি পৌর সভার কমপক্ষে ৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ৩০০ ঘর-বাড়ি, অসংখ্য গাছপালা, ২০টি মসজিদ-মন্দির, অসংখ্য বৈদ্যুতিক তার, কিছু সংখ্যক খুঁটি, আংশিক ও সম্পূর্ণ রূপে ক্ষতিগ্রস্থ হয়। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, আধা পাকা ফলনসহ ৫০৬ হেক্টর জমির ইরি বোরো ধান, ২২ হেক্টর জমির ভুট্টা, উঠতি ফলনসহ কলার গাছ, পানের বরজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। ঝড়ো হাওয়ায় রাস্তার দু’ধারের গাছপালা ভেঙ্গে পড়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিছিন্ন হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে উপজেলার বামনডাঙ্গা, সর্বানন্দ, রামজীবন, দহবন্দ, শান্তিরাম, ধোপাডাঙ্গা, শ্রীপুর, কাপাসিয়া ইউনিয়নের ব্যাপক ক্ষতি সাধন হয়েছে। চরাঞ্চলের ভুট্টা চাষিরা মাথায় হাত দিয়ে বসেছেন। হরিপুর চরাঞ্চলের কৃষক-লাল মিয়া জানান- আমি ৩ বিঘা জমিতে ভুট্টা চাষ করেছিলাম। ইতোমধ্যে ভ্্ুট্টা ঘরে তুলতে শুরু করেছি। হঠাৎ কাল বৈশাখী ঝড়ে আমার সব ভুট্টা ক্ষেত লন্ড-ভন্ড করে দিয়েছে। আমি স্ত্রী-পুত্র পরিজন নিয়ে কিভাবে সংসার পরিচালনা করব তার পথ খুঁজে পাচ্ছি না। দহবন্দ ইউনিয়নের দক্ষিণ ধুমাইটারী গ্রামের কৃষক বাবু  ব্যাপারী জানান- আমার ৫ বিঘা জমির আধা পাকা ব্রি-২৮ ধানের ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়েছে। এ ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার মত নয়। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে-ফিরে দেখা  গেছে গ্রামগঞ্জের প্রতিটি বাড়িতে ১ হতে ২টি করে ঘর পড়ে গেছে। ডোমেরহাট বাজারের জুয়েল মিয়ার বিল্ডিং কোর্ড না মেনে নির্মাণ করা দু’তলা বিশিষ্ট দালানের ওয়াল ধ্বসে পড়ে পশ্চিম পরাণ গ্রামের নাজমুল হুদার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ একটি মোটরসাইকেল ও একটি জেনারেটর সম্পূর্ণ রূপে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এদিকে শনিবার বিকাল হতে গোটা উপজেলা শহরের বিদ্যুৎ সংযোগ বিছিন্ন হয়ে পড়েছে। সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ডিজিএম-প্রকৌশলী সোলায়মান হোসেন জানান- ঝড়ো হাওয়ায় অসংখ্য তার ছিড়ে গেছে। পাশাপাশি খুঁটি ভেঙ্গে এবং হেলে গেছে তাছাড়া গাছপালার ডাল তারের উপর হেলে পড়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। কিছু-কিছু এলাকায়  রোববার সন্ধ্যার মধ্যেই বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হবে। অপরদিকে ঝড়ো হাওয়ায় ঘরের টিন পড়ে বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের পাইটকা পাড়া গ্রামের লাল মিয়ার পুত্র বাদশা মিয়া (৫০) গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম গোলাম কিবরিয়া জানান- প্রতিটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানদেরকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপনের জন্য তাগিদ দেয়া হয়েছে। 

দায়িত্ব পালনে বাধা নেই : সুন্দরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবু সোলায়মান সরকার সাজার দায়িত্ব পালনে বাধা নেই মর্মে হাইকোর্ট আদেশ দিয়েছেন। বুধবার রিটপিটিশন নং-৫২৪৮-এর আলোকে মহামান্য হাইকোর্টের দ্বৈত  বেঞ্চের বিচারপতি সৈয়দ মুহাম্মদ দস্তগীর হোসাইন এবং বিচারপতি মোঃ আতাউর রহমান খান। উপজেলা পরিষদ আইন ১৯৯৮ এর ধারা ১৩ এর খ (১) মোতাবেক এই আদেশ দেন।

২০১৪ সালের ১২ এপ্রিল মামলা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে জামাত সমর্থিত ভাইস চেয়ারম্যান আবু সোলায়মান সরকার সাজাকে তার দায়িত্ব থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়। এনিয়ে ভাইস চেয়ারম্যান আবু সোলায়মান সাজা হাইকোর্টে রিটপিটিশন দায়ের করেন। দীর্ঘদিন শুনানী শেষে বুধবার দ্বৈত বেঞ্চের বিচারপতিগণ ভাইস চেয়ারম্যান আবু সোলায়মান সরকার সাজার দায়িত্ব পালনে আর কোন বাধা নেই মর্মে আদেশ প্রদান করেন। আগামী ৩ সপ্তাহের মধ্যে দায়িত্বভার গ্রহণের কথা বলা হয়েছে। ভাইস চেয়ারম্যান আবু সোলায়মান সরকার সাজা বলেন-হাইাকোর্টের আদেশ মোতাবেক দায়িত্বভার গ্রহণের ব্যাপারে জেলা প্রশাসকের নিকট আবেদন করা হয়েছে। অনুমতি পেলেই দায়িত্বভার গ্রহণ করব। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম গোলাম কিবরিয়া জানান-এ সংক্রান্ত হাইকোর্টের কোন আদেশ এখন পর্যন্ত আমার অফিসে আসেনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ