ঢাকা, সোমবার 17 April 2017, ৪ বৈশাখ ১৪২৩, ১৯ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চেলসির ঘারে নিঃশ্বাস ছাড়ছে হটস্পার জয় নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে সিটি

বার্নমাউথকে ৪-০ গোলে হারিয়ে তালিকার শীর্ষে থাকা চেলসির সঙ্গে ব্যবধান কমিয়ে ৪ পয়েন্টে চলে এসেছে শিরোপা প্রত্যাশী টোটেনহ্যাম হটস্পার। শনিবার অনুষ্ঠিত প্রিমিয়ার লীগ ফুটবলের আরেক ম্যাচে সাউদাম্পটনকে ৩-০ গোলে হারিয়ে পয়েন্ট টেবিলের তৃতীয় স্থানে ওঠে এসেছে পেপ গার্দিওলার ম্যানচেস্টার সিটি। হোয়াইট হার্ট লেনে মরিসিও পোচেত্তিনোর দল যেভাবে নিজেদের ক্রীড়া শৈলি প্রদর্শন করেছে তাতে লীগের শেষ পর্যায়ে এসে শিরোপা জয়ের আশা আরো বেড়ে গেছে। সফলতা পেলে ১৯৬১ সালে পর প্রথমবারের মত লীগ শিরোপা ঘরে তুলতে সক্ষম হবে স্পাররা। ম্যাচের ১৬তম মিনিটে মুসা ডেমবেলের গোলে এগিয়ে যায় টোটেনহ্যাম। তিন মিনিট পর গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সং হিউং মিন । পায়ের গোঁড়ালির ইনজুরি থেকে ফিরে এদিন প্রথম গোলের দেখা পান বিজয়ী দলের আরেক তারকা হ্যারি কেন । ৫ সপ্তাহ আগে ইনজুরিতে পড়া এই ফুটবলার ৪৮তম মিনিটে নতুন করে নিজের গোলের খাতাটি খুলে বসেন। এটি ছিল চলতি ওসুমে তার ২০তম গোল। ম্যাচের শেষ মুহূর্তে এসে বিরল একটি গোলের মালিক হন ভিনসেন্ট জানসেন।
ফলে ১৯৬৭ সালের পর প্রথমবারের মত টানা সাত ম্যাচে জয়ের নজীর সৃষ্টি করে স্পাররা। আর ক্যান হচ্ছেন টোটেনহ্যামের প্রথম কোন ফুটবলার যিনি ক্লাবের হয়ে কমপক্ষে ২০ গোলের রেকর্ড গড়লেন। এর আগে ১৯৬০ সালে লীগে ২০ গোল করেছিলেন জিমি গ্রেভেস। খেলা শেষে স্পার্স কোচ পোচেত্তিনো বলেন, ‘এমন পারফর্মেন্সের কারণে আমি আমার খেলোয়াড়দের নিয়ে গর্ববোধ করছি। এখন কি ঘটে তা দেখার জন্য আমাদের অপেক্ষা করতে হবে। ওসুমের শেষভাগে এসে যখন সবাই ক্লান্ত হয়ে যায় তখন আমাদের প্রয়োজন হবে মানসিক দৃঢ়তা ঠিক রেখে খুশির উপলক্ষ বইয়ে আনা। আমাদের এই স্বপ্ন ধরে রাখার জন্য এই তিনটি মূল্যবান পয়েন্ট খুবই প্রয়োজন ছিল।’ এদিকে সেন্ট মেরিসে অনুষ্ঠিত স্বাগতিক সাউদাম্পটনের বিপক্ষে ম্যাচে ম্যানচেস্টার সিটি অধিনায়ক ভিনসেন্ট কোম্পানির গোলে লীড পায় পেপ গার্দিওলার দল। বার বার ইনজুরিতে কোম্পানির এটি ছিল চতুর্থ লীগ ম্যাচ। বেলজিয়ামের এই ডিফেন্ডার সর্বশেষ গোল করেছিলেন ২০১৫ সালের আগস্টে। ম্যাচের ৭৭তম মিনিটে গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন লেরয় সেন । তিন মিনিট পর দর্শনীয় হেডের সাহায্যে গোল করে সিটিকে ৩-০ ব্যবধানে পৌছে দেন সার্জিও এগুইরো। ফলে পূর্ণ তিন পয়েন্ট নিয়েই ঘরে ফিরে সিটি। এ জয়ের ফলে লিভারপুলের চেয়ে এক পয়েন্ট বেশি নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের তৃতীয় স্থানে ওঠে যায় তারা। খেলা শেষে সিটি কোচ পেপ গার্দিওলা বলেন, ‘চ্যাম্পিয়ন্স লীগে অংশগ্রহণের যোগ্যতা অর্জনের জন্য এই ফলাফলটি ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অগ্রভাগে আমরা আগের চেয়ে আরো ভাল করেছি। আমাদের মেধা দিয়ে পুরো ম্যাচটিই নিয়ন্ত্রণে রেখেছি।’ বার্নলির বিপক্ষে দিনের আরেক ম্যাচে ৩-১ গোলের জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের পঞ্চম স্থান দখলের মাধ্যমে ইউরোপের শীর্ষ ক্লাব টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণের সম্ভাবনা জিইয়ে রেখেছে এভারটন। বিজয়ী দলের হয়ে ৪৯তম মিনিটে গোল করে দরকে এগিয়ে দেন ফিল জাগিয়েরেকা (চযরষ ঔধমরবষশধ)। তবে তিন মিনিটের মধ্যেই পেনাল্টির সহায়তায় গোলটি পরিশোধ করে দেন বার্নলির ফুটবলার স্যাম ভোকস। ম্যাচের ৭১তম মিনিটে বেন মি’র আত্মঘাতি গোলে ফের ২-১ গোলের লীড পায় এভারটন। তিন মিনিট পর রোমেলু লুকাকু গোল করলে ৩-১ ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে এভারটন। এটি ছিল চলতি ওসুমে লুকাকুর ২৪তম গোল। এ জয়ের ফলে আর্সেনাল ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মত ডাকসাইটে ক্লাবগুলোকে পেছনে ফেলে দেয় এভারটন। ইন্টারনেট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ