ঢাকা, সোমবার 17 April 2017, ৪ বৈশাখ ১৪২৩, ১৯ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ইসলামকে জঙ্গিধর্ম বানানোর ষড়যন্ত্রে জঙ্গিবাদী কর্মকাণ্ড ঘটানো হচ্ছে

চট্টগ্রাম অফিস : ইসলামকে জঙ্গিধর্ম বানানোর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে জঙ্গিবাদী কর্মকা- ঘটানো হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। গতকাল রোববার চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির বিশেষ সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম, মানবতার ধর্ম। এখানে মানুষ হত্যার স্থান নেই। যে ইসলামকে আমরা সর্বোৎকৃষ্ট ধর্ম হিসেবে হৃদয়ে ধারণ করি, সেই ধর্মের নাম করে কেন মানুষ হত্যা করা হচ্ছে? একটা ষড়যন্ত্র প্রতিনিয়ত চলছে। এটা বুঝতে হবে। আজকে ইসলাম ধর্মকে জঙ্গির ধর্মে রূপান্তরিত করার জন্য চক্রান্ত চলছে। বিশ্বে কথা হচ্ছে, অল হিউম্যান আর নট টেররিস্ট বাট অল টেররিস্ট আর মুসলিমস (সকল মানুষ সন্ত্রাসী নয়, কিন্তু সকল সন্ত্রাসীই মুসলিম)। মুসলিমদের এই জায়গায় নেয়ার জন্য পরিকল্পিতভাবে এই ঘটনাগুলো ঘটানো হচ্ছে।
আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, টার্গেট কিলিং হয়েছে। বিভিন্ন ধর্মপ্রধানদের হত্যা করার চেষ্টা করেছে। এরপর বিভিন্ন আন্তর্জাতিক টিভি মিডিয়ার প্রচার হল যে, অমুক করেছে। আমরা খুঁজে দেখলাম, যাদের নাম প্রচার হচ্ছে তাদের সঙ্গে দেশের জঙ্গিদের কোন সংশ্লিষ্টতা আছে কি না। দেখলাম কোন সংশ্লিষ্টতা নাই, এরা সবাই আমাদের দেশিয় জঙ্গি। হিডেন জঙ্গি যেগুলো সবসময় ঘাপটি মেরে থাকে, সুযোগ পেলেই উপরে ওঠে। সবগুলোই আমাদের দেশের জঙ্গি, এগুলো বাইরে থেকে আসে নাই। এখানেই বিভিন্নভাবে তারা আত্মপ্রকাশ করেছে দেশকে অকার্যকর বানানোর জন্য। এই যে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি সেটাকে বন্ধ করার জন্য তারা কাজ করছে।
জঙ্গিদের অর্থায়ন বন্ধের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, আমাদের একটা কমিটি আছে। আমরা সব ইনফরমেশন গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি। এনজিও জঙ্গি অর্থায়ন করে বলে একটা কথা এসেছে। সব এনজিও আমাদের গোয়েন্দা নজরদারিতে আছে। তথ্য থাকলে সবাই দিন, আমাদের পুলিশ কর্মকর্তারা নজর রাখবেন এবং ব্যবস্থা নেবেন।
খুৎবার আগে বয়ানের সময় সব ইমাম যেন জঙ্গিবিরোধী বক্তব্য দেন সেটা নিশ্চিত করার জন্য প্রশাসনের কর্মকর্তাদের প্রতি অনুরোধ করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।
মন্ত্রী বলেন, আমরা ইমাম সাহেবদের বলেছি যে জঙ্গিবাদ নিয়ে কথা বলতে হবে। প্রত্যেক ইমামকে বলেছি, এই যে যুবকরা ভ্রান্ত একটা ধারণা নিয়ে জীবন দিয়ে দিচ্ছে, এসব নিয়ে কথা বলতে হবে। অনেক ইমাম সাহেবই খুৎবার আগে বয়ানের সময় এটা বলছেন। কোন কোন জায়গায় এখনও হচ্ছে না, এটা আমরা জানি। এখন আপনাদের (প্রশাসন) দায়িত্ব হবে, সব ইমাম সাহেব ইসলাম ধর্মে যে মানুষ হত্যা ও জঙ্গিবাদের কোন স্থান নেই সেটা যেন বলেন, সেই ব্যবস্থা করেন।
মন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশকে জঙ্গির দেশ বানানোর চক্রান্ত হয়েছিল। তবে এই দেশের জনগণের জন্য সেটা সম্ভব হয়নি। এই দেশের মানুষ জঙ্গিদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয় না। এই দেশের মানুষ ধর্মভীরু কিন্তু ধর্মান্ধ নয়। সেজন্যই বাংলাদেশকে সন্ত্রাসী কিংবা জঙ্গির দেশ বানানোর যে চক্রান্ত হয়েছিল, সেটা সম্ভব হয়নি। এই দেশের মানুষ নিজের দেশের জন্য মরতে জানে। এই দেশের মানুষ ভাষার জন্য মরেছে, স্বাধীনতার জন্য মরেছে। পাশের বাসার প্রতিবেশিটার জন্য জীবন দেয়। সেই মানুষ বাংলাদেশের মানুষ।
জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মো.সামসুল আরেফিনের সভাপতিত্বে এতে আরও বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম, সিএমপির উপ কমিশনার এস এম মোস্তাইন হোসেন, চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার নূরে আলম মিনা, র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের জেলা কমান্ডার মো.সাহাবউদ্দিন প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ