ঢাকা, মঙ্গলবার 18 April 2017, ৫ বৈশাখ ১৪২৩, ২০ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

গোবিন্দগঞ্জে প্রচন্ড লোড শেডিং জনজীবন বিপর্যস্ত

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) সংবাদদাতা : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে প্রচন্ড লোডশেডিং এর দরুন জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।  ঘন্টায় ঘন্টায় লোডশেডিং হওয়ায় সব কাজে স্থবিরতা নেমে এসেছে। প্রায় ১ মাস হলো বিদ্যুতের এ অবস্থায় ব্যবসা-বাণিজ্য মন্দাভাব দেখা দিয়েছে। অনেকেই দোকান বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছে। সেই সাথে চলতি এইচএসসি পরিক্ষায় অংশগ্রহণকারীরা  সবচেয়ে বেশি বিপদে পড়েছে। প্রচন্ড ভ্যাপসা গরমে দিন ও রাতের বেশির ভাগ সময়ই বিদ্যুৎ না থাকায় তাদের পড়াশুনার মারাত্মক বিঘ্ন ঘটছে। এদিকে বিদ্যুৎ অভাবে সেচ সংকট দেখা দিয়েছে মারাত্মক আকারে। চলতি ইরি-বোরো মওসুমের এসময় বিদ্যুৎ অভাবে সেচ সংকটের কারণে ইরি-বোরো ধান হুমকীর মুখে পড়েছে। সেচ  দিতে না পারলে ক্ষেতেই ধান নষ্ট হয়ে যাবে। উপজেলার বালুয়া কোমরপুর এলাকার কৃষকরা গত বৃহস্পতিবার লোডশেডিংএর প্রতিবাদে ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবীতে ঢাকা- রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। কৃষকরা জানান, তাদের জমি ফেটে চৌচির হয়ে গেছে। তালুককানুপুর ইউনিয়নের সমসপাড়া গ্রামের আবু তাহের জানালেন তার প্রায় ৬২ বিঘা জমির ইরি ধান তাপদাহে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। বিদ্যুত অভাবে তিনি সেচ দিতে পারছেন না। একই অভিযোগ আব্দুল ওয়াহেদ,রফিকুল ইসলাম বাদশা আকন্দ ও আখতারুজ্জামানের । তারা সবাই জানালেন বিদ্যুতের লোডশেডিংএর কারণে সেচ দিতে পারছে না ফলে জমিতেই তাদের ধানগাছ পুড়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে গোবিন্দগঞ্জ আবাসিক প্রকৌশলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, চাহিদার চেয়ে বিদ্যুতের সরবরাহ কম থাকায় লোডশেডিং করতে বাধ্য হতে হচ্ছে।
তিনি আরো জানান গোবিন্দগঞ্জে দিনের বেলায় বিদ্যুতের চাহিদা সাড়ে ৮ মেগাওয়াট সেখানে সরবরাহ মাত্র ৪ থেকে সাড়ে ৪ মেগাওয়াট আবার রাতের বেলায় চাহিদা সাড়ে ৯ থেকে ১০ মেগা ওয়াট সেখানে দেয়া হচ্ছে সাড়ে ৪ থেকে ৫ মেগাওয়াট । ফলে ১ ঘন্টা পর পর লোড শেডিং দিতে হচ্ছে। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করার পরও  বিদ্যুতের সরবরাহ বাড়ানো হচ্ছে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ