ঢাকা, মঙ্গলবার 18 April 2017, ৫ বৈশাখ ১৪২৩, ২০ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

দাকোপের ৩২ নং পোল্ডার আবারো প্লাবিত হওয়ার আশংকা

খুলনা অফিস : খুলনার দাকোপে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে চলমান বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভ, ঝুকিপূর্ণ জায়গায় কাজ না করে অপেক্ষাকৃত ভাল জায়গায় চলছে নির্মাণ কাজ। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের উদাসীনতায় যে কোন সময় উপজেলার ৩২ নং পোল্ডার আইলার মত প্লাবিত হওয়ার আশংকা এলাকাবাসীর।
দূর্যোগ প্রবন নদীবেষ্টিত দাকোপে ভাঙনরোধে সরকার বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে উপজেলার ৩২ ও ৩৩ নং পোল্ডারে মেঘা প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। চায়নার দি ফাষ্ট ইঞ্জিনিয়ারিং ব্যুরো নামক একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তিন বছরের সময়সীমা নির্ধারনে ৩৫০ কোটি ব্যয়ের কাজ গত বছর থেকে শুরু করেছে যুগোপযোগী টেকসই মজবুত বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ।
সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, নির্মাণ কাজ চলছে অত্যন্ত ধীর গতিতে এবং ঝুঁকিপূর্ণ রাস্তা বাদ রেখে অপেক্ষাকৃত ভাল জায়গায় আগে কাজ করা হচ্ছে। যে কারণে ৩২ নং পোল্ডারের কালাবগী এম এ মালেকের হ্যাচারী সংলগ্ন এলাকা, বৃহস্পতি বাজার, নলিয়ান ফরেষ্ট অফিস হতে কোষ্টগার্ড অফিস, কালীবাড়ী ঘাট, সুতারখালী, জালিয়াখালী এলাকা বর্তমানে চরম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে।
সুতারখালী ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম আলী ফকির অভিযোগ করে বলেন, কালাবগী এম এ মালেকের হ্যাচারীর দক্ষিণ পার্শ্বের বাঁধ চরম ঝুঁকিপূর্ণ, গত তিন দিন এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিভিন্নস্তরে অসংখ্যবার যোগাযোগ করেও তাদের সাড়া পায়নি। তিনি বলেন, যে কোন সময় ওই স্থান ভেঙে দু’টি ইউনিয়ন প্লাবিত হলে সকল দায়ভার তাঁদের নিতে হবে।
দাকোপ উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ আবুল হোসেন অনুরূপ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, চায়নার ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কোন কথা আমলে নিচ্ছে না। তারা ইচ্ছেমত কাজ করতে যেয়ে দু’টি ইউনিয়ন শতভাগ ঝুঁকির মুখে রেখেছে। বিষয়টি আমি সরকারের উপর মহলকে অবহিত করেছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ