ঢাকা, বুধবার 19 April 2017, ৬ বৈশাখ ১৪২৩, ২১ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

‘যে কোনও মুহূর্তে শুরু হতে পারে পারমাণবিক যুদ্ধ’

এপ্রিল ১৮, দ্য গার্ডিয়ান/ বিবিসি/এপি : জাতিসংঘে উত্তর কোরিয়ার উপ-রাষ্ট্রদূত কিম ইন-রিয়ং বলেছেন, ‘বিশ্বের সবচেয়ে মারাত্মক’ যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত হতে যাচ্ছে কোরিয়া উপদ্বীপ। ‘যে কোনও সময় পারমাণবিক যুদ্ধ শুরু হতে পারে’ বলেও তিনি সতর্ক করেছেন।
কিম ইন-রিয়ং জানান, মার্কিন বাহিনীর সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক অনুশীলনকে ‘আগ্রাসী যুদ্ধ প্রস্তুতি’ বলে মনে করে পিয়ংইয়ং। তিনি আরও বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র যে মাত্রায় হামলা চালাবে উত্তর কোরিয়াও সে মাত্রায় জবাব দিতে প্রস্তুত রয়েছে।’ এর আগে উত্তর কোরিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী হান সং-রিয়ল বলেন, ‘আমরা সাপ্তাহিক, মাসিক ও বার্ষিকভিত্তিতে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালাবো।’
মার্কিন হামলা প্রতিরোধে ‘উত্তর কোরিয়া প্রস্তুত রয়েছে’ উল্লেখ করে হান আরও বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র যদি সামরিক শক্তি ব্যবহার করে তাহলে উত্তর কোরিয়া সর্বাত্মক যুদ্ধ করবে।’
কয়েকদিন আগে মার্কিন বার্তা সংস্থাকে দেয়া অপর এক সাক্ষাৎকারে হান অভিযোগ করেন, ‘মার্কিন প্রেসিডেন্ট আগ্রাসী টুইটবার্তার মাধ্যমে সমস্যা তৈরি করছেন। মার্কিন প্রশাসন অসৎ উদ্দেশ্যে উপদ্বীপের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করছে।’
উত্তর কোরিয়ার সামরিক নীতি সম্পর্কে তিনি জানান, দু’বছর আগে দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের যৌথ সামরিক মহড়ার সময় উত্তর কোরিয়া তার সামরিক নীতিতে পরিবর্তন এনেছে। এখন যে কোনও ধরনের পদক্ষেপ উত্তর কোরিয়া একাই নেবে।
হান তখন আরও বলেছিলেন, ‘আমাদের শক্তিশালী পারমাণবিক বোমা রয়েছে। আর মার্কিন হামলার মুখেও আমরা নিশ্চিতভাবেই সে অস্ত্র হাতে নিয়ে বসে থাকবো না। মার্কিন বাহিনী যেভাবে আক্রমণ করবে, আমরা তার সমুচিত জবাব দেয়ার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত।’ তখন তিনি জানান, ‘উত্তর কোরিয়া মানসম্পন্ন পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি থেকে সরে আসবে না।’ এদিকে, গত সোমবার দক্ষিণ কোরিয়া সফরে থাকা মার্কিন ভাইস-প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বলেছিলেন, ‘কৌশলগত ধৈর্যধারণের দিন শেষ। উত্তর কোরিয়াকে আর সহ্য করা হবে না।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ