ঢাকা, বুধবার 19 April 2017, ৬ বৈশাখ ১৪২৩, ২১ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

তিন তালাক ইস্যুতে যোগীর বিতর্কিত মন্তব্যের তীব্র সমালোচনায় সর্বভারতীয় মুসলিম পার্সোনাল ল’বোর্ড

এপ্রিল ১৮, পিটিআই : মুসলিমদের বিবাহ বিচ্ছেদের প্রক্রিয়া তিন তালাক ইস্যুতে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন ভারতের উত্তর প্রদেশের হিন্দুত্ববাদী মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। তিনি তিন তালাকের সঙ্গে পৌরাণিক কাহিনী মহাভারতে দ্রৌপদীর বস্ত্রহরণের তুলনা করে বলেছেন, ‘এ ইস্যুতে যারা নীরব রয়েছেন, তারাও সমান অপরাধী।’ ভারতীয় বার্তা সংস্থা পিটিআই এ খবর জানিয়েছে।
গত সোমবার সাবেক প্রধানমন্ত্রী চন্দ্রশেখরের ৯১তম জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যোগী আদিত্যনাথ বলেন, ‘যারা এই অপরাধ করছে, তাদের সঙ্গে একই সারিতে ফেলা উচিত রাজনৈতিক স্তরে যারা এই ইস্যুতে নীরব রয়েছেন তাদেরও। সম্প্রতি এই জ্বলন্ত ইস্যুতে দেশে নতুন বিতর্ক তৈরি হয়েছে। এই ইস্যুতে কিছু লোক নীরব। সেটা আমাকে মহাভারতে দ্রৌপদীর বস্ত্রহরণের দৃশ্য মনে করিয়ে দিচ্ছে। দ্রৌপদী প্রশ্ন করেছিলেন, এই ঘটনার জন্য, এই পাপের জন্য দায়ী কে? কেউ কোনও কথা বলেননি। একমাত্র বিদুর বলেছিলেন, যারা এই অপরাধ করেছে এবং যারা নীরব থেকেছে, তারা সমান অপরাধী।’
আদিত্যনাথের মন্তব্যকে ‘বোকামি’ বলে উল্লেখ করে তীব্র সমালোচনা করেছে সর্বভারতীয় মুসলিম পার্সোনাল ল’ বোর্ড।
এর একদিন আগেই তিন তালাক ইস্যুতে সরব হয়েছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিন তালাকের এই প্রথা বন্ধের দাবি করে দেশে অভিন্ন দেয়ানি বিধির পক্ষে মত জানান তিনি।
নরেন্দ্র মোদি বলেন, আমাদের মুসলিম বোনদের ন্যায়বিচার পাওয়া উচিত। তাদের প্রতি অবিচার করা ঠিক না। কাউকেই নিপীড়িত হওয়া উচিত না। তখন অল ইন্ডিয়া মুসলিম পারসোনাল ল বোর্ড শরিয়াহ মোতাবেক তিন তালাক দেয়ার ক্ষেত্রে সতর্কতা জারি করেছে। সংস্থাটির মাওলানা খালিদ আর ফিরাঙ্গি বলেন, যারা তিন তালাকের অপব্যবহার করবে তাদের সামাজিকভাবে বয়কটের মুখে পড়তে হবে। এই ইস্যুতে অনেক ভুল বুঝাবুঝি হচ্ছে। আমরা তিন তালাক ব্যবহারের একটি বিধি প্রণয়ন করব।
উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরে এলাহাবাদ হাইকোর্ট এক রুলে বলেছিল, তিন তালাক ভারতের সংবিধান প্রদত্ত নারীদের সমতার অধিকারকে লঙ্ঘন করে। আগামী ১১-১৯ মে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট তিন তালাক ইস্যুতে শুনানি গ্রহণ করবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ