ঢাকা, বুধবার 19 April 2017, ৬ বৈশাখ ১৪২৩, ২১ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সাপাহারে মৃত্যুর ১৮ মাস পর কবর থেকে এক মহিলার হাড়গোড় উত্তোলন

সাপাহার (নওগাঁ) সংবাদদাতা : নওগাঁর সাপাহারে মৃত্যের দেড় বছর পর কবর থেকে বিলকিস বেগম (২৮) নামের এক মহিলার লাশের হাড় গোড় তুলে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে  পুলিশ। গত সোমবার দুপুর ২টার দিকে উপজেলার অনাথ পুর গ্রামের একটি কবর স্থান থেকে ওই মহিলার লাশের হাড় গোড়গুলী তোলা হয়। জানা গেছে, ১৯৯৮ সালে উপজেলার ওই গ্রামের মোঃ আব্দুল কাদের এর কন্যা বিলকিস এর সাথে একই গ্রামের মৃত আবুল কাশেম এর পুত্র হাফেজ মোঃ তোফাজ্জ্বল হোসেন এর  বিয়ে হয়। সংসার জীবনে তাদের ঘরে ১টি ছেলে ও ১টি কন্যা সন্তানের জম্ম হয়। বেশ কিছু দিন পূর্ব হতে হাফেজ তোফাজ্জ্বল দেশের সিলেট সদরের একটি মাদরাসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করার সুবাদে তার স্ত্রী ওখানে গিয়ে কিছু দিন থাকার পর হঠাৎ অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ২০১৫ সালের ৩০ জুলাই তার স্বামী তাকে সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার প্রাক্তন স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ সিরাজুল ইসলামের নিকট চিকিৎসা করায়। এরপর তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় ৩ আগষ্ট তাকে জালালাবাদ রাজিব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেও তার অবস্থা অপরিবর্তিত থাকলে ওই দিনই তাকে নর্থ ইস্ট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়া হয়। সেখানে ১ দিন চিকিৎসা করার পর ৪ আগষ্ট চিকিৎসাধীনাবস্থায় ভোর ৩টা ১৯ মিনিটে  তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পরে  সেখান থেকে তার লাশ সাপাহারে এনে গ্রামের বাড়ীর কবর স্থানে সমাহিত করা হয়। পরবর্তীতে মৃত্যুর প্রায় দেড় বছর পরে মৃত বিলকিস বেগমের রেখে যাওয়া সন্তান নিয়ে জামাই তোফাজ্জ্বল ও শশুর আব্দুল কাদেরের সাথে ঝগড়া বিবাদ হয়ে উভয়ের মধ্যে সর্ম্পকের অবনতি হলে জামাইকে শিক্ষা দেয়ার উদ্দেশ্যে শশুর তার মেয়ের মৃত্যুর ১ বছর ৩ মাস পরে ২০১৫ সালের নভেম্বর মাসে নওগাঁ কোর্টে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এর পর মৃত্যুর  প্রায় দেড় বছর পরে মামলার স্বার্থে ও কোর্টের নির্দেশে সোমবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ ফাহাদ পারভেজ বসুনীয়ার ম্যাজিস্ট্রেসীতে কবর থেকে লাশের হাড় গোড় উত্তোলন করা হয়। এসময়  সহকারী ভূমি কমিশনার এম এম সামিরুল আলম, অফিসার ইনচার্জ ওসি রেজাউল ইসলাম, মামলার তদন্তকারী অফিসার এস আই আব্দুল হান্নান, তিলনা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মোসলেম উদ্দীন এক দল পুলিশ, সাংবাদিক সহ এলাকার অসংখ্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সেখানে উপস্থিত ছিলেন। কবর থেকে মাথার খুলি, মুখের দুই পাটির ২১টি দাঁতসহ প্রায় অর্ধশত হাড় গোড় উদ্ধার করে কবর স্থানেই সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে হাড় গোড় গুলী পুলিশ ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ মর্গে পাঠায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ