ঢাকা, শনিবার 22 April 2017, ৯ বৈশাখ ১৪২৩, ২৪ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সোনালী ব্যাংক কর্মচারী ৩৭ বছরেও চাকুরী নিয়মিত হয়নি

ঝালকাঠি সংবাদদাতা: ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলা সোনালী ব্যাংকে কর্মচারী পদে খন্ডকালীন হিসেবে চাকুরী করছেন মোঃ আনসার আলী। ১৯৮০ সালের ১ জুন মাসিক ২৫ টাকা বেতনে তিনি চাকুরীতে অন্তর্ভূক্ত হন। যোগদানের পর থেকে ৩০ টি বছর অতিবাহিত হয়ে গেলেও তার চাকুরী এখনও নিয়মিত হয়নি। বর্তমানে বেতন রয়েছে ৯ হাজার টাকা। বয়সও প্রায় শেষ। বর্তমান দুর্মূল্যের বাজারে সামান্য ৯ হাজার টাকা দিয়ে সংসার খরচ, সন্তানদের পড়াশুনাসহ সার্বিক ভরণ-পোষণ দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাকে। কোনরকম পর্যায়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন আনসার আলী। শুধু আনসার আলীই নয়, এধরণের বৈষম্যের স্বীকার রয়েছেন সোনালী ব্যাংকের ঝালকাঠি জেলার বিভিন্ন শাখায় কর্মরত খন্ডকালীন কর্মচারীরা। ১৯৮৬ সালের ১ ডিসেম্বর চাকুরীতে যোগদান করেন মোঃ মিরাজ হোসাইন। বর্তমানে সোনালী ব্যাংক রাজাপুর শাখায় কর্মরত আছেন। ১৯৯০ সালের ১১ নভেম্বর চাকুরীতে যোগদান করেন মোঃ আঃ রহমান। বর্তমানে তিনি সোনালী ব্যাংক মোল্লারহাট শাখায় কর্মরত আছেন। ১৯৯৮ সালের ৬ আগস্ট চাকুরীতে যোগদান করেন মধু মালী। বর্তমানে তিনি  সোনালী ব্যাংক ঝালকাঠি কোর্ট বিল্ডিং শাখায় কর্মরত আছেন। ২০১০ সালের ১ জানুয়ারী চাকুরীতে যোগদান করেন তপন। বর্তমানে তিনি সোনালী ব্যাংক কাঠালিয়া শাখায় কর্মরত আছেন। ২০১১ সালের ৩ মে চাকুরীতে যোগদান করেন মোঃ রুবেল। বর্তমানে তিনি সোনালী ব্যাংক ঝালকাঠি কোর্ট বিল্ডিং শাখায় কর্মরত আছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ