ঢাকা, রোববার 23 April 2017, ১০ বৈশাখ ১৪২৩, ২৫ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান

স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশ ক্রিকেটে শুরু হলো তিন ফরমেটে তিন অধিনায়কের তত্ত্ব। আগে টাইগারদের টেস্ট অধিনায়ক এবং ওয়ানডে-টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক থাকলেও এবার টেস্ট, ওয়ানডে আর টি- টোয়েন্টি তিনটি ক্ষেত্রেই ভিন্ন ভিন্ন অধিনায়ক পেল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। টেস্টে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, ওয়ানডে ক্রিকেটে মাশরাফি বিন মতুর্জা আগেই ছিলেন। এবার টি টোয়েন্টি ক্রিকেটে সাকিব আল হাসানকে অধিনায়কের দ্বায়িত্ব দেয়া হয়েছে। শ্রীলংকা সফরের শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ দিয়েই আন্তর্জাতিক টি- টোয়েন্টি ক্রিকেট থেকে মাশরাফি বিন মর্তুজার অবসরের  ঘোষণা দিয়েছিলেন। সে সময় বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছিলেন মাশরাফির পর সাকিব আল হাসানই হচ্ছেন টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক। গতকাল তারই বাস্তবায়ন হলো । গতকাল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)’র  বৈঠক শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে সাকিবকে অধিনায়ক ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে টি-টোয়েন্টিতে মাশরাফি মর্তুজার উত্তরসূরি হলেন সাকিব আল হাসান। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরুর আগে হঠাৎ মাশরাফি অবসরের ঘোষণা দেন। তখন  থেকেই খোঁজা হচ্ছিল নতুন অধিনায়কের নাম। তার উত্তরসূরি হওয়ার দৌড়ে শুরু  থেকেই সাকিবের নাম শোনা যাচ্ছিল। বোর্ড সভাপতি শ্রীলংকায় থাকার সময়েই আভাস দিয়েছিলেন সাকিবের অধিনায়কত্বের ব্যাপারে। শেষ পর্যন্ত গতকালের বোর্ড সভা শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে সেই ঘোষণা দিয়েছেন বিসিবি প্রধান। সাকিব বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার হলেও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হিসেবে তিনি ততটা সফল নয়। এর আগে ২০০৯ থেকে ১০ সাল পর্যন্ত চারটি টি-টোয়েন্টিতে অধিনায়কত্ব করেছিলেন তিনি। চারটি ম্যাচেই হার  মেনেছিল টাইগাররা। ২০১১ সালে জিম্বাবুয়ে সফর থেকে বাংলাদেশ দল ব্যর্থ হয়ে  ফেরার পর সাকিবকে সরিয়ে মুশফিককে সব ফরম্যাটের অধিনায়কের দায়িত্ব দেয় বিসিবি। অবশ্য ২০১৪ সালে মাশরাফির হাতে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়কের দায়িত্ব তুলে দেয়া হয়, আর মুশফিক শুধু থাকেন টেস্ট অধিনায়ক। শ্রীলংকা সফরে মাশরাফি টি-টোয়েন্টি থেকে অবসরের ঘোষণার দিলে তখনই টি-টোয়েন্টির পরবর্তী অধিনায়ক হিসেবে সাকিবের নাম উঠে আসে আলোচনায়। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান জানিয়েছিলেন, সাকিবের পরবর্তী টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হওয়ার উজ্জ্বল সম্ভাবনা।
গতকাল সভা শেষে বিসিবি সভাপতি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আপনারা জানেন মাশরাফি আর টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক নেই। আগামী জুলাইয়ে পাকিস্তানের আসার সম্ভাবনা আছে। এই সময়ের মধ্যে আমাদের কোনও টি-টোয়েন্টি নেই। বোর্ডে নতুন টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক কে হবে, তা নিয়ে আলোচনা হয়েছিল। আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এখন থেকে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দেবে সাকিব আল হাসান। সহ-অধিনায়ক হিসেবে সে এমনিতেই এগিয়ে ছিল। তাছাড়া অন্য নামও ছিল। কিন্তু সব কিছু মিলিয়ে সবার চেয়ে এগিয়ে ছিল সাকিব। তার পারফরম্যান্সও ভালো।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ