ঢাকা, রোববার 23 April 2017, ১০ বৈশাখ ১৪২৩, ২৫ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাজশাহীতে ব্যস্ততম রাস্তায় সরকারি জোটের শরীকের জনসভা ॥ জনদুর্ভোগ

রাজশাহী অফিস : রাজশাহী মহানগরীর ব্যস্ততম বড় রাস্তা দখল করে জনসভা করেছে সরকারি জোটের শরীক ওয়ার্কার্স পার্টি। গতকাল শনিবার বিকেল চারটা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট এলাকায় এ জনসভার আয়োজন করা হয়।
রাজশাহী সাহেববাজার জিরো পয়েন্টের গণকপাড়া সংলগ্ন সামনের জনবহুল ওই রাস্তাটি বন্ধ করে জনসভা করার কারণে স্টেশনমুখি সড়কে একেবারে বন্ধ হয়ে যায় যান চলাচল। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েন নগরবাসী। জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টি রাজশাহী জেলা ও মহানগর শাখা এ জনসভার আয়োজন করে। এ সময় বক্তারা বলেন, হেফাজতের সঙ্গে সরকারের আপোষ মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পরিপন্থী। হেফাজতের সঙ্গে কোনো আপোষ করে কোনো সমস্যার সমাধান হতে পারে না। বরং সংকট আরো গভীরে নিয়ে যাবে। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি হেফাজতের সঙ্গে আপোষ মেনে নেবে না। জনসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। এ সময় ফজলে হোসেন বলেন, ‘অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে ধূলিসাৎ করতে পাঠ্যবইয়ে সংশোধনী আনা হচ্ছে, কওমী মাদরাসাকে স্বীকৃতি দেয়া হচ্ছে। একমুখী শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তোলার পরিবর্তে এ ধরনের শিক্ষাব্যবস্থা সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি সংবিধানের বাইরে কিছুই মেনে নেবে না।’ ওয়ার্কার্স পাটি রাজশাহী মহানগর শাখার সভাপতি লিয়াকত আলীর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরো সদস্য নুর আহমেদ বকুল, সাতক্ষীরা-১ আসনের সংসদ সদস্য মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের সংসদ সদস্য ইয়াসিন আলী, রাজশাহী জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।
এদিকে নগরীর সাহেবাজার-রেলগেট রাস্তার জিরোপয়েন্ট এলাকায় অনুষ্ঠিত ওয়াকার্স পার্টির এ জনসভাকে কেন্দ্র করে নগরীজুড়ে নেমে আসে ব্যাপক যানজট। সাহেববাজার-রেলগেট রাস্তার মুখেই গোটা রাস্তা দখল করে এ জনসভার কারণে ওইদিক দিয়ে কোনো যানবাহন চলাচল করতে পারেনি। ফলে রেলগেটমুখি যানবাহনগুলো চলাচল করেছে গলি রাস্তা দিয়ে অথবা মালোপাড়ার চিকন রাস্তা দিয়ে।
সাহেববাজারের এক ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে অভিযোগ করে বলেন, রাস্তা দখল করে জনসভা করার জন্য ওই এলাকার ফুটপাতের ব্যবসায়ীদেরও সেখানে শনিবার সকাল থেকেই বসতে দেয়া হয়নি। এতে করে তারা শনিবার দিনভর ব্যবসা করতে পারেননি। সালাম নামের এক ব্যক্তি জানান, ‘এভাবে ব্যস্ততম রাস্তা দখল করে জনসভা করার কোনো মানে হয় না। নগরীর অনেক মাঠ আছে, সেখানে জনসভা করলেই তো হয়। তাহলে জনদুর্ভোগ হয় না।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ