ঢাকা, সোমবার 24 April 2017, ১১ বৈশাখ ১৪২৩, ২৬ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সুযোগ পেলে চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত আছি -সানজামুল

স্পোর্টস রিপোর্টার : শ্রীলংকা সফরে প্রথমবারের মতো জাতীয় স্কোয়াডে ডাক পাওয়া সানজামুল ইসলাম চ্যাম্পিয়নস ট্রফি ও আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের স্কোয়াডেও সুযোগ  পেয়েছেন। একমাত্র স্পেশালিস্ট স্পিনার হিসেবে দলে আছেন তিনি।  শ্রীলংকা সিরিজে ম্যাচ খেলার সুযোগ হয়নি টিম কম্বিনেশনের কারণে। তবে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে পেতে পারেন সুযোগ। এমনটাই মনে করেন তিনি। ত্রিদেশীয় সিরিজ কিংবা চ্যাম্পিয়নস ট্রফি, যেখানেই সুযোগ পান উজার করে খেলতে চান সানজামুল। তবে ভিন্ন কন্ডিশনে চ্যালেঞ্জ দেখছেন বাঁহাতি এই স্পিনার। গতকাল মিরপুর স্টেডিয়ামে সানজামুল বলেন, ‘ওখানকার কন্ডিশন ভিন্ন। বোলিংয়ে সাফল্য পাওয়া কঠিন। তবে আমরা ইংল্যান্ডে দশ দিনের ক্যাম্প করব। মানিয়ে নেয়ার সুযোগ পাব।’ পেসারদের জন্য সহায়ক কন্ডিশনে সাফল্য পেলে আত্মবিশ্বাস বাড়বে বলে বিশ্বাস করেন সানজামুল। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘ওসব কন্ডিশনে সুবিধা হচ্ছে স্পিনারদের মনোযোগ বেশি থাকে। সিমিং কন্ডিশনে যদি স্পিনাররা ভালো করে তাহলে আত্মবিশ্বাস অনেক বেড়ে যায়। ভালো করলে অনেক আত্মবিশ্বাস বাড়ে, যেগুলো পরবর্তীতে যেকোনো কন্ডিশনে ভালো করতে উদ্বুদ্ধ করে।’ বর্তমানে আবাহানীর হয়ে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে খেলছেন সানজামুল। তিন ম্যাচ খেলে আহামরি তেমন পারফরম্যান্স করেননি, পেয়েছেন মাত্র ২টি উইকেট। তারপরও নিজের ফর্ম নিয়ে হতাশ নয় এ বাঁহাতি স্পিনার। দুটি টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ মাঠে নামার আগে ১০ দিনের ক্যাম্প করবে সাসেক্সে, যেটাকে খুব গুরুত্ব দিচ্ছেন সানজামুল। তিনি বলেন, ‘এখানে তো ঘরোয়া ক্রিকেট খেলছি। ওখানে গিয়ে তো আমাদের ১০ দিনের একটা ক্যাম্প হবে। সময়ও আছে নিজেদের মানিয়ে  নেয়ার।’ ইংল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডে কন্ডিশন সম্পূর্ণ ভিন্ন। তবে প্রস্ততিতে সন্তুষ্ট সানজামুল। ঘরোয়া ক্রিকেট খেলে নিজেদের ঝালিয়ে নিতে পারাকে বিশেষ সুযোগ মনে করছেন করেও তিনি বলেন, ‘দল ঘোষণা হয়েছে কয়েকদিন হলো। তবে পরিকল্পনা নিয়ে আমরা ২৬ তারিখ ইংল্যান্ডে যাওয়ার পর সব কিছু নিয়ে আলোচনা হবে।’  শ্রীলংকা সফরে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শুরু করতে না পারার কোনও আক্ষেপ নেই সানজামুলের । তিনি বলেন, ‘আসলে শ্রীলংকায় টিম কম্বিনেশনের কারণে সুযোগ আসেনি। ওখানে ডাগ আউটে বসে ও দলের সঙ্গে অনুশীলন করে অনেক অভিজ্ঞতা অর্জনের চেষ্টা করেছি। আর পরিবেশও কমন থাকে জাতীয় দলে, এতদিন সেটা শুনেছি কিংবা টিভিতে দেখেছি। ওই সফরে সেটা অনুভব করতে পেরেছি। এটা আমাকে আগামীতে সাহায্য করবে।’ ইংল্যান্ডের সিমিং কন্ডিশনে স্পিন দিয়ে ভূমিকা রাখতে চান সানজামুল। শ্রীলংকা সফরে কোচের সান্নিধ্য পেয়ে সেই আত্মবিশ্বাস পেয়েছেন তিনি, ‘কোচ আমাকে নেটে বোলিং করাতেন, ব্যাটিংও। টুকটাক ভুলগুলো নিয়ে কথা বলতেন। এর বেশি কিছু না। কারণ প্রথম তিনি আমাকে দেখেছেন। আসলে এসব কন্ডিশনে সুবিধা হচ্ছে মনোযোগ বেশি থাকে। সিমিং কন্ডিশনে যদি স্পিনাররা ভালো করে তাহলে আত্মবিশ্বাস অনেক বেড়ে যায়, যদিও এটা চ্যালেঞ্জিং। দুটি বড় বড় সিরিজের জন্য সুযোগ পেয়েছি। আশা করি সুযোগ পেলে ভালো কিছু উপহার দিতে পারব।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ