ঢাকা, মঙ্গলবার 25 April 2017, ১২ বৈশাখ ১৪২৩, ২৭ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাজশাহীতে রাউধার লাশ কবর থেকে উত্তোলন

রাজশাহী অফিস : পুনঃ ময়না তদন্ত করতে রাজশাহী ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজের ছাত্রী মালদ্বীপের মডেল রাউধা আথিফের লাশ কবর থেকে তোলা হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাজশাহী মহানগরীর হাতেমখাঁ কবরস্থান থেকে রাউধার লাশ তোলা হয়।

এর আগে সকাল ৯টার দিকে পুলিশ ও পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডির) কর্মকর্তারা কবরস্থানে যান। সিআইডি কর্মকর্তাদের মধ্যে অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার কাজী মোহাম্মদ শফি ইকবাল ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক আসমাউল হক উপস্থিত ছিলেন। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ডা. রক্তিম চৌধুরীর উপস্থিতিতে লাশ কবর থেকে তোলা হয়। পরে লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করার পর বেলা ১১টার দিকে লাশ রাজশাহী মেডিকেল কলেজের (রামেক) মর্গে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে লাশের দ্বিতীয় ময়না তদন্ত শেষে তা পুনরায় দাফন করা হয়। লাশ তোলার সময় কবরস্থানে রাউধার বাবা ডা. মোহাম্মদ আথিফও উপস্থিত ছিলেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, প্রথম ময়না তদন্তে প্রকৃত ঘটনা ধামাচাপা দেয়া হয়েছে। তিনি বিশ্বাস করেন তার মেয়ে হত্যাকাণ্ডের শিকার। দ্বিতীয় ময়না তদন্তে প্রকৃত ঘটনা বেরিয়ে আসবে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রক্তিম চৌধুরী বলেন, দাফনের ২৩ দিন পর রাওধার অর্ধগলিত লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। লাশের চোখ ও নাক নষ্ট হয়ে গেছে। তবে চামড়া পুরোটাই নষ্ট হয়ে যায়নি। গলায় কিছু চিহ্ন লক্ষ্য করা গেছে। উল্লেখ্য, গত ২৯ মার্চ রাজশাহীর নওদা পাড়ায় ইসলামি ব্যাংক মেডিকেল কলেজের ছাত্রী হোস্টেল থেকে রাউধার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। রাউধা এ কলেজের এমবিবিএস দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। নীল নয়না রাউধা ছিলেন মালদ্বীপের একজন উঠতি মডেল। মাত্র একুশ বছরের রাউধার ছিল আন্তর্জাতিক খ্যাতি। লাশের পুনঃ ময়না তদন্ত করতে সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. আমিরুল চৌধুরী, সিরাজগঞ্জের নর্থ বেঙ্গল মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মাহবুব হাফিজ এবং রাজশাহী মেডিকেল কলেজের (রামেক) রেডিওলজি অ্যান্ড ইমেজিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক হাফিজুর রহমানকে নিয়ে মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ