ঢাকা, মঙ্গলবার 25 April 2017, ১২ বৈশাখ ১৪২৩, ২৭ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আদমদীঘির রক্তদহ বিলে বরেন্দ্র প্রকল্পের বাঁধে পানিবদ্ধতা ॥ বোরো আবাদ নিয়ে শংকিত কৃষকরা 

আদমদীঘির ইরামতি পারইল ব্রিজ সংলগ্ন বরেন্দ্র প্রকল্পের বাঁধে পানিবদ্ধতা। পার্শ্বে তলিয়ে যাওয়া আধাপাকা বোরো আবাদ

আদমদীঘি (বগুড়া) সংবাদদাতা : বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা ও নওগাঁ জেলার পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ইরামতি খাল ও রক্তদহ বিলে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন প্রকল্প বৃষ্টির পানি আটকে রাখার জন্য ৭ ফুট উঁচু করে ২টি বাঁধ নির্মাণ করে এ অঞ্চলের কৃষকদের সর্বনাশ করেছে। এক পশলা বৃষ্টি হলেই পানি নিষ্কাশনের এই খালে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে হাজার হাজার বিঘা জমির ফসল নষ্ট হয়েছে যায়। গত প্রায় তিন বছর যাবৎ এই বাঁধের সচিত্র রিপোর্ট বিভিন্ন স্থানীয় ও জাতীয় দৈনিকে প্রকাশ হলেও আজ পর্যন্ত প্রশাসন বা কর্তৃপক্ষের কোন টনক নড়েনি। তাই স্থানীয় কৃষকরা বাধ্য হয়ে ইরামতি খালের এই বাঁধে কিছু অংশ ভেঙ্গে ফেলেছে। কিন্তু তাতেও কোন লাভ হচ্ছে না। 

গত ১৯ এপ্রিল থেকে কয়েক দিনের টানা বৃষ্টির পানি ও উজান থেকে নেমে আসা পানি এ খাল দিয়ে গড়িয়ে ভাটার দিকে সঠিকভাবে যেতে পারছে না এই বাঁধের কারণে। তাই এই খালের দুই পাশের হাজার হাজার বিঘা আধা পাকা বোরো ধান পানির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে। এতে এ অঞ্চলের কৃষকরা লাখ লাখ টাকা ক্ষতির সম্মুখীন হবেন বলে স্থানীয় কৃষকরা জানান। কৃষক ও এলাকাবাসী ইরামতি খাল ও রক্তদহ বিলের এ দু’টি বাঁধ ভেঙ্গে দিয়ে সহজে পানি নিষ্কাশনের জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানিয়েছেন।  ইরামতি খালের দৈর্ঘ্য প্রায় ১৪ কিলোমিটার। দুপচাঁচিয়া উপজেলার ভাতহান্ডা এই খালের উৎপত্তি নিচু জমিতে। দুপচাঁচিয়া, আদমদীঘি, রাণীনগর, আক্কেলপুর ও ক্ষেতলাল উপজেলার মাঠের পানি গড়িয়ে বর্ষাকালে এই খাল দিয়ে রক্তদহ বিলে পড়ে। রক্তদহ খাল থেকে এই পানি বিভিন্ন খাল পথে প্রবাহিত হয়ে আত্রাই নদীতে যায়। এটা হলো এই ইরামতি খালের স্বাভাবিক গতি ধারা। বিভিন্ন সময় এই অগভীর খাল ভরাট হয়ে গেলে খনন করা হয়।  ২০১৩ সাল থেকে এই খাল খনন শুরু হলেও আজ পর্যন্ত খনন কাজ শেষ হয়নি। সবে মাত্র কোঁচকুড়ি রেলওয়ে ব্রীজ থেকে পারইল রক্তদহের বিল পর্যন্ত না পৌঁছতেই খনন কাজ শেষ হয়ে যায়। এর মধ্যে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান খাল খননে যথেষ্ট ফাঁকি দিয়েছে। যেখানে যতটুকু চওড়া ও গভীর করে খনন করার কথা তা করা হয়নি। ফলে খালে যে পরিমাণ পানি আটকে থাকার কথা ছিল তার অর্ধেক পানিও থাকে না। খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে ইরামতি খাল রক্তদহ বিলে যেতে চকপারইল গ্রামের পার্শ্ব দিয়ে জনসাধারণের চলাচলের জন্য একটি ব্রীজ নির্মাণ করা হয়। ব্রীজের পশ্চিম পার্শ্বে খালের কোন অস্তিতই নেই। এলাকার এক শ্রেণীর প্রভাবশালী ব্যক্তি শত শত বিঘা সরকারি খাস জমি দখল করে তৈরি করেছে মাছের খামার।   

উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল মহিত তালুকদার জানান, রক্তদহ বিল এলাকাসহ আদমদীঘি উপজেলার ২টি ইউনিয়নের নি¤œাঞ্চলে প্রায় ৬০ হেক্টর জমির ফসল অতি বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে এ আকস্মিক বন্যার সৃষ্টি হয়ে বোরো আবাদ হুমকির মধ্যে পড়েছে। এতে করে কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হবে বলে তিনি জানান। 

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ কামরুজ্জামান জানান, রক্তদহ বিলে এ দু’টি বরেন্দ্র প্রকল্পের বাঁধের কারণে ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে উপজেলার আদমদীঘি সদর ইউনিয়ন ও সান্তাহার ইউনিয়নের নিুাঞ্চলের প্রায় ৬০ হেক্টর জমির বোরো আবাদ হুমকির মধ্যে পড়েছে। 

বীর মুক্তিযোদ্ধা জহির উদ্দিন আর নেই

বগুড়ার সান্তাহার পৌরসভার মালশন গ্রামের বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা জহির উদ্দিন ওরফে জছির (৯০) বার্ধক্যজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার বিকাল তিনটায় বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল¬াহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, পাঁচ ছেলে, নাতি-নাতনি, আত্মীয় স্বজন ও বহুগ্রাহী রেখে গেছেন। রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় মালশন ঈদগাহ মাঠে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা প্রদান ও নামাযে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার : রোববার সকালে বগুড়ার সান্তাহার টাউন ফাঁড়ির পুলিশ অভিযান চালিয়ে হেরোইন ও ইয়াবাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে সান্তাহার কলসা কোঁচকুড়ি গ্রামের জাকির আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন (৩৫), সান্তাহার নিউ কলোনীর রুস্তম আলীর ছেলে শরিফুল ইসলাম (৪৮), ও পার-নওগাঁর নওশের আলীর ছেলে সালেক হোসেন (২৮)। তাদের কাছ থেকে ৩ গ্রাম হেরোইন ও ২০পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা  হয়েছে। সান্তাহার টাউন ফাঁড়ির টি এস আই জালাল উদ্দিন জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তিন মাদক ব্যবসায়ীরা হেরোইন ও ইয়াবা বিক্রি করার সময় অভিযান চালিয়ে ৩ গ্রাম হেরোইন ও ২০ পিস ইয়াবাসহ তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ ব্যাপারে আদমদীঘি থানায় মাদকদ্রব্য আইনে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ