ঢাকা, মঙ্গলবার 25 April 2017, ১২ বৈশাখ ১৪২৩, ২৭ রজব ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

পৌরসভার ময়লার ভাগাড় নির্মাণ হলে আমতলীতে পরিবেশ বিপর্যয় ঘটবে

আমতলী (বরগুনা) সংবাদদাতা : আমতলী পৌরসভার ময়লার ভাগাড় উপজেলার চাওড়া  ইউনিয়নের ঘটখালী গ্রামে নির্মাণ করা হলে এলাকার জলাশয়, পরিবেশ, প্রতিবেশ ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের  বিপর্যয় ঘটবে বলে আশঙ্কা করছেন গ্রামবাসী। চাওড়া ইউনিয়নের  চেয়ারম্যান মো. আখতারুজ্জামান খান বাদল বরগুনা জেলা প্রশাসকের কাছে  এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। জানাগেছে , আমতলী পৌরসভার ময়লা আবর্জনার ভাগাড় তৈরি (পরবর্তীতে  রিফাইন প্রক্রিয়া) করার জন্য আমতলী পৌরসভার দাবীর পরিপ্রেক্ষিতে  বরগুনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে চাওড়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের আমতলী পটুয়াখালী সড়কের  পূর্বপাশে  ঘটখালী গ্রামের ৫ একর জমি অধিগ্রহণের  প্রস্তাব করা হয় । গত বুধবার বরগুনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. নুরুজ্জামান প্রস্তাবিত অধিগ্রহণকৃত জমি সরেজমিনে তদন্তে গেলে  জমির মালিকরা  অধিগ্রহণের কথা জানতে পারে। তারা এ বিষয়টি জেনে  ক্ষোভে ফেটে পড়েন। জমির মালিকরা বলেন এতে ফসলি জমির ব্যাপক  ক্ষতি হবে। তাই ভাগাড়টি অন্য জায়গায় সরিয়ে নেয়ার দাবি জানান তারা। চাওড়া ইউপি চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান বাদল বলেন  আমতলী পৌরসভা অসৎ উদ্দেশ্যে নিজের আওতাধীন জমি থাকা সত্ত্বেও আমাদের চাওড়া ইউনিয়নের তিন ফসলী কৃষি জমি অধিগ্রহণ করার জন্য অপচেষ্টায় লিপ্ত আছেন । তিনি আরো বলেন, জায়গাটির সন্নিকটে  মসজিদ, বাড়ি, কবরস্থানসহ  প্রায় শতাধিক বাড়িঘর বিদ্যমান। এমতাবস্থায় খামখেয়ালি ভাবে জনবসতি পূর্ণ এলাকায় ভাগাড় নির্মাণের উদ্যোগ নিলে   চতুর্দিকের কয়েকশত  লোকের জীবনমান ক্ষতির মুখে পতিত হবে। লিখিত অভিযোগে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান  আখতারুজ্জামান বাদল খানসহ সকল ইউপি সদস্য স্বাক্ষর করেন। এ প্রসঙ্গে বরগুনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. নুরুজ্জামান বলেন পৌরসভার ময়লা আবর্জনার (ভাগাড়)পরবর্তীতে  রিফাইন করার জন্য পৌরসভার মধ্যে প্রকল্প নেয়া যাবেনা। বিধায় পৌরশহরের বাহিরে যে কোন জায়গায় প্রকল্প নিতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ