ঢাকা, শনিবার 29 April 2017, ১৬ বৈশাখ ১৪২৩, ০২ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

পিসিবির কাছে আনুষ্ঠানিক ব্যাখ্যা চাইবে বিসিবি

স্পোর্টস রিপোর্টার : আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিল পরে বাংলাদেশ সফরে আসার কথা ছিল পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ডের। এই দুটি দলের সফর নিয়েই ঝামেলায় পড়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। ইতিমধ্যে পরিষ্কার হয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল বাংলাদেশ সফরে আসছে না আর অস্ট্রেলিয়া দল চাইছে ওয়ানডে সিরিজ খেলতে। তবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতির দাবি পাকিস্তান এখনও আনুষ্ঠানিক ভাবে কিছু জানায়নি। আর অস্ট্রেলিয়া দল ওয়ানডে নয় খেলবে দুটি টেস্ট। গতকাল এমনটাই জানান বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। বিসিবি সভাপতি জানান, বাংলাদেশ সফর স্থগিত করার কথা পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) গণমাধ্যমকে জানালেও আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে (বিসিবি) জানায়নি। এজন্য পাকিস্তানের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে সফর স্থগিত করার কারণ জানতে চাইবে বাংলাদেশ ত্রিকেট বোর্ড বিসিবি। পাপন বলেন, ‘পাকিস্তানের সাথে আমাদের আনুষ্ঠানিক কোনো কথা হয়নি। আমরা নিশ্চিত ছিলাম পাকিস্তান আসছে।  এর আগেও আমাদের মধ্যে কথা হয়েছে। ২০১৫ সালে যখন এফটিপি চূড়ান্ত হল তখন চূড়ান্ত হয়েছিল যে ২০১৭ সালেও ওরা আমাদের এখানে আসবে। আমরা ওদের ওখানে যাব কিনা সেটা পরিবর্তীতে সিদ্ধান্ত হবে। বোর্ড মিটিং যেদিন শেষ হল সেদিন (বুধবার) পিসিবির চেয়ারম্যান শাহরিয়ার খান আমাকে বলেছিলেন, ‘এই সিরিজ খেলতে আসতে তাদের মধ্যে ঝামেলা হচ্ছে। তারা আমার সাথে বসতে চায়।’ এর বাইরে আমার সাথে কোনো কথা হয়নি। পিসিবি গণমাধ্যমে বলেছে পাকিস্তান আসতে চায় না কিংবা আসতে পারছে না। সিরিজ নিয়ে আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে ওদের কাছে জানতে চাইব।’ ২০১২ ও ২০১৫ সালে দুই দফা বাংলাদেশ সফর করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল।  ২০১২ সফরের ফিরতি সফর হওয়ার কথা ছিল ২০১৫ সালে। কিন্তু বাংলাদেশ যেতে না চাওয়ায় ‘টেকনিক্যালি’ ২০১৫ সালের সিরিজকে হোম সিরিজ দাবি করে বিসিবির  থেকে  মোটা অঙ্কের অর্থ গ্রহণ করে। এর পরিমাণ ৩ লাখ ২৫ হাজার ডলার। সেটি পাকিস্তানের হোম সিরিজ হলে এবার সিরিজ বাংলাদেশেরই হওয়ার কথা। পাশাপাশি আর্থিক ইস্যু ২০১৫ সালেই শেষ। নতুন করে অর্থ দাবি করার কোনো সুযোগ নেই জানিয়েছেন বিসিবির এই পরিচালক। কোনো টালবাহানা করলেও বিসিবি মন গলবে না বলে সাফ জানিয়েছেন বোর্ড সভাপতি। আর আগস্টে বাংলাদেশ সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। ওয়ানডে নয় অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশে দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলবে। নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। দুবাইয়ে আইসিসি সভার বাইরে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে বৈঠকে বসেন পাপন। সেখানেই সফর নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান ডেভিড পিভার  বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। ২০১৫ সালে দ্বিপাক্ষিক সফরে অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশে আসার কথা ছিল। কিন্তু নিরাপত্তা অজুহাতে বাংলাদেশে দল পাঠাতে অপারগতা প্রকাশ করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।
সফর স্থগিত করে তারা জানিয়েছিল, বাংলাদেশে নিরাপত্তা পরিস্থিতি ভালো হলে ভবিষ্যতে নিশ্চিত সফর করবে অস্ট্রেলিয়া। ২০১৬ সালে ইংল্যান্ড সিরিজ সফলভাবে আয়োজন করায় বাংলাদেশের নিরাপত্তা নিয়ে নিজেদের সন্তুষ্টির কথা জানায় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। পাশাপাশি সে সময়ে বাংলাদেশে এসে নিরাপত্তা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা প্রতিনিধি দল। এরপর থেকেই বাংলাদেশ সফর নিয়ে আলোচনা শুরু হয় দুই  বোর্ডের। সবশেষ আলোচনায় জানা গিয়েছিল, দুই টেস্টের পরিবর্তে ওয়ানডে সিরিজ  খেলতে আগ্রহী অস্ট্রেলিয়া। সেপ্টেম্বরে ভারতের বিপক্ষে পাঁচ ওয়ানডে খেলবে অস্ট্রেলিয়া। তারা পরিকল্পনা করেছিল ভারত সফরের আগে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে  নেওয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলে নিজেদের ঝালিয়ে নিবে। কিন্তু বিসিবি  টেস্ট সিরিজ খেলবে সাফ জানিয়ে দেয়। দুবাইয়ে দুই দেশের বোর্ড প্রধানদের উপস্থিতিতে অবশেষে সফর চূড়ান্ত হয়। প্রস্তাবিত সূচি অনুযায়ী ঢাকা ও ফতুল্লায় টেস্ট দুটি হওয়ার কথা ঈদুল আজহার আগে ও পরে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ