ঢাকা, শনিবার 29 April 2017, ১৬ বৈশাখ ১৪২৩, ০২ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নিশ্চিন্তে নেই ক্ষমতাসীনরাও

আশিকুল হামিদ : সভা-সমাবেশের মতো রাজনৈতিক কার্যক্রমের সুযোগ না থাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে রসিকতা, এমনকি ব্যঙ্গ-তামাশাও উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়ে চলেছে। তাই বলে রাজপথে দাঁড়িয়ে কারো পক্ষে কিছু বলা সম্ভব হচ্ছে না। আর হচ্ছে না বলেই মানুষ এখানে-সেখানে, অফিসে, ক্লাবে এবং চায়ের দোকানে নিজেদের বক্তব্য ও মন্তব্য ঝেড়ে বেড়াচ্ছে। যেমন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক ভারত সফর প্রসঙ্গে তার নিজের বক্তব্যের সূত্র ধরে বলা হচ্ছে, তিনি ‘কিছু’ অর্জন করতে পারেননি। কারণ প্রধানমন্ত্রী তো ‘কিছু’ চাইতে যাননি! তা সত্ত্বেও তিনি নাকি ‘কিছু একটা’ পেয়েছেন! সেই ‘কিছু একটা’ যে ঠিক কি এবং কোন ধরনের ‘কিছু’ তা নিয়েও জনগণের মধ্যে জল্পনা-কল্পনার অন্ত নেই।
ওদিকে মন্তব্য ও আলোচনার নতুন নতুন খোরাক যুগিয়ে চলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক যোগাযোগ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। নিজের দলকে প্রথমে ‘কাউয়া লীগ’ বলার পরপর ক’দিনের মধ্যেই ওবায়দুল কাদেরের মুখ দিয়ে অতি কঠিন এক সত্য কথা বেরিয়ে এসেছে। গত ২২ এপ্রিল চট্টগ্রামে দলের প্রতিনিধি সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘আমরা যেভাবে এগিয়ে চলছি এ ধারা অব্যাহত থাকলে বিএনপি আমাদের প্রতিপক্ষ হবে না। আমাদের প্রধান প্রতিপক্ষ হবে আওয়ামী লীগ। আর আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ হলে আওয়ামী লীগকে কেউ রক্ষা করতে পারবে না।’ একই বক্তৃতায় ‘বেপরোয়া’ ছাত্রলীগকে নিজেদের স্বার্থরক্ষার ‘পাহারাদার’ না বানানোর জন্যও আওয়ামী লীগ নেতাদের উদ্দেশে পরামর্শ দিয়েছেন ওবায়দুল কাদের। ওবায়দুল কাদেরের কথা শুনলে মনে হতে পারে অসীম ক্ষমতা রয়েছে তার। অন্যদিকে রাজধানীতে গেটলক ও সিটিং সার্ভিস নামের বাসের চলাচল নিষিদ্ধ করতে গিয়ে তাকে কিন্তু যারপর নাই নাকানি-চুবানি খেতে হয়েছে। সড়ক যোগাযোগ ও সেতুমন্ত্রী বলেই মানুষের দুর্ভোগ কমানোর জন্য তার কাছে বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছিল। নিজে যথেষ্ট দাপটের মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হলেও সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ১৮ এপ্রিল ওবায়দুল কাদের কিছুটা ঘুরিয়ে বলেছিলেন, বাসের ব্যবসার সঙ্গে জড়িতরা এবং পরিবহন নেতারা এতটাই প্রভাবশালী ও ক্ষমতাধর যে, সরকারও তাদের সঙ্গে পেরে উঠতে পারছে না! সরকার ‘বাঁধন-কষণ’ শুরু করলেই নাকি ‘ফসকা গেরো’ লেগে যায়! কারা এই ‘গেরো’ লাগায় ওবায়দুল কাদের তাদের নাম-পরিচয় না জানালেও জনগণ যা বোঝার তা ঠিকই বুঝে নিয়েছে।
অনুসন্ধানেও জানা গেছে, রাজধানীতে বাসের সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে জনভোগান্তির পেছনে প্রধান ভূমিকা ছিল ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের। এসব নেতা একদিকে নিজেরাই অসংখ্য বাসের মালিক, অন্যদিকে তাদের কেউ কেউ আবার পরিবহন শ্রমিকদের ডাকসাঁইটে নেতাও। ঘটনাপ্রবাহে অন্য কিছু তথ্যও বেরিয়ে এসেছে। যেমন বলা হয়েছে, ক্ষমতাসীন দলের এই নেতাদের উদ্যোগে এরই মধ্যে কয়েকশ’ এসিযুক্ত বিলাসবহুল বাস আমদানি করা হয়েছে। নানা নামে তারা কয়েকটি কোম্পানিও খুলে বসেছেন। এখন চলছে এসব কোম্পানির বাসগুলোকে রাজধানীতে নামানোর পাঁয়তারা। টাউন সার্ভিস হিসেবে চলাচল করলেও প্রতিটি বাসই যেহেতু এসিযুক্ত এবং বিলাসবহুল সে কারণে ভাড়া আদায় করা হবে বর্তমানের তুলনায় অনেক বেশি হারে। অমন খবরে সংশয়ের সৃষ্টি হয়েছে সরকার এবং ক্ষমতাসীন দলের আলোচ্য নেতাদের নেয়া কৌশলের পরিপ্রেক্ষিতে। কারণ, প্রচলিত আইন অনুসরণ করে লাইসেন্স-পারমিটসহ বাস নামানোর সুযোগ থাকা সত্ত্বেও হঠাৎ করে গেটলক ও সিটিং সার্ভিস নামে চলাচলকারী বাসগুলোকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল, জিম্মি হয়ে পড়া মানুষ যাতে বেশি ভাড়ার বাসের ব্যাপারেও আপত্তি না জানায়। তারা যাতে সংকট কেটে গেলেই খুশি হয়।। মূলত সে কারণেই বলা হয়েছে, সব কিছুর পেছনে ছিল ক্ষমতাসীন দলের একই গোষ্ঠীর সুচিন্তিত পরিকল্পনা। মন্ত্রী এবং দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সেই দায় এড়িয়ে যেতে পারেন কি নাÑ সে প্রশ্নও উঠেছিল একযোগে।
এগুলো রাজনৈতিক অঙ্গনের এক পক্ষ সম্পর্কিত তথ্য ও আলোচনা। মাঝখানে হেফাজতে ইসলামকে নিয়ে নির্বাচনী হিসাব পাল্টে ফেলার নাটকীয় কান্ডকারখানা করা হলেও অন্যদিকে রয়েছে বিএনপিÑদেশের সবচেয়ে বড় ও ব্যাপকভাবে জনসমর্থিত যে দলটিকে কোনোভাবেই হিসাবের বাইরে ঠেলে দিতে পারছেন না ক্ষমতাসীনরা। এক পা দুই পা করে ক্ষমতার দিকে এগিয়ে চলা বিএনপির পক্ষ থেকে সম্প্রতি কঠোর একটি হুশিয়ারি ঘোষিত হয়েছে। গত ১৬ এপ্রিল বিএনপির সিলেট অঞ্চলের নেতা ও সাবেক এমপি ইলিয়াস আলীর গুম হওয়ার পাঁচ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত একাধিক সমাবেশে বিএনপির নেতারা বলেছেন, দলটি ক্ষমতায় এলে ‘আন্তর্জাতিক মানদন্ডে’ সরকারের সকল গুম ও খুনের বিচার করা হবে! সেদিনের এক সমাবেশে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর হিসাব দিয়ে জানিয়েছেন, বর্তমান সরকারের আমলে দলটির পাঁচ শয়ের বেশি নেতা-কর্মীকে গুম করা হয়েছে, যাদের এখনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। মির্জা আলমগীরের দেয়া হিসাব অবশ্য সম্পূর্ণ নয়। কারণ, তিনি জামায়াতে ইসলামীসহ ২০ দলীয় জোটের অন্য কোনো দলের গুম হওয়া নেতা-কর্মীদের তথ্য-পরিসংখ্যানের উল্লেখ করেননি। 
এ পর্যন্ত এসে পাঠকরা বর্তমান নিবন্ধের উদ্দেশ্য সম্পর্কে বিভ্রান্ত হতে পারেন। না, হিসাবের সংখ্যা নিয়ে আলোচনা নয়, উদ্দেশ্য আসলে গুম ও খুনের মতো ভয়ংকর কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে কিছু বলা। কারণ, সব দেশেই গুম ও গুপ্তহত্যার মতো বিচারবহির্ভূত কর্মকান্ডকে মারাত্মক অপরাধ হিসেবে দেখা হয়, একই সঙ্গে দেখা হয় অত্যন্ত ঘৃণার সঙ্গেও। গণতান্ত্রিক কোনো দেশে রাজনৈতিক দলের কোনো নেতা বা কর্মীকে গুম করা হবে এবং পরে এখানে-সেখানে, নদী ও খাল-বিলের পাশে তার লাশ পাওয়া যাবে- এমনটা কল্পনা করা যায় না। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ সরকারের অধীন হয়ে পড়া বাংলাদেশে গুম শুধু হচ্ছেই না, মাঝেমধ্যে গুমের রীতিমতো ধুমও পড়ে যাচ্ছে। বিএনপি নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য ইলিয়াস আলী গুম হয়েছেন ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাতে। সঙ্গে তার ড্রাইভারও ছিল। কিন্তু স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী আশ্বাস দেয়া সত্ত্বেও আজ পর্যন্ত ইলিয়াস আলীর কোনো খোঁজ মেলেনি। মাঝখানে বছর তিনেক আগে তার ছোট ভাই অভিযোগ করেছিলেন, ইলিয়াস আলীকে নাকি কলকাতার আশপাশে ভারতের কোনো কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। অন্য কোনো দেশ হলে সরকার সঙ্গে সঙ্গে তৎপর হয়ে উঠতো এবং ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ করতো। কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকার এমনকি টুঁ শব্দটিও করেনি। এজন্যই ইলিয়াস আলীর এখনো কোনো খবর নেই। গুম হয়ে যাওয়া আরো অনেকেরও খবর পাওয়া যাচ্ছে না। 
কথা শুধু এটুকুই নয়। দায়িত্ব যেখানে ছিল গুম-খুনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া, সরকার সেখানে এ সংক্রান্ত খবর যাতে প্রকাশিত না হতে পারে সে ব্যাপারেই বেশি তৎপরতা দেখিয়ে চলেছে। কিন্তু সরকারের এই চেষ্টায় কোনো ত্রুটি না থাকলেও দেশের ভেতরে যেমন, আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলেও তেমনি গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের বিষয়টি ব্যাপকভাবে নিন্দিত ও আলোচিত হয়েছে। এখনো যে হচ্ছে তার প্রমাণ পাওয়া গেছে জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের সাম্প্রতিক এক রিপোর্ট। রিপোর্টটি প্রকাশিত হয়েছে গত ২৮ মার্চ। এতে বাংলাদেশে বিভিন্ন নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের ‘উচ্চ হারে’ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশন। এরও আগে কমিশন বিষয়টি নিয়ে শুনানির জন্য ইন্টারন্যাশনাল কভনেন্ট অন সিভিল অ্যান্ড পলিটিক্যাল রাইটস (আইসিসিপি)-এর এক উন্মুক্ত অধিবেশনের আয়োজন করেছিল। গত ৬ ও ৭ মার্চ জেনেভায় অনুষ্ঠিত এই অধিবেশনে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের মাধ্যমে সরকার নিজের বক্তব্য উপস্থাপন করেছে। কিন্তু সে বক্তব্য বা কৈফিয়ৎ গ্রহণযোগ্য মনে করেনি জাতিসংঘের সংস্থা। পর্যবেক্ষণ আকারে প্রকাশিত রিপোর্টে বরং সরকারের বক্তব্যের ভিত্তিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সংস্থাটি।
পর্যবেক্ষণে আইসিসিপি সনদের উল্লেখ করে জাতিসংঘ কমিশন বলেছে, আইসিসিপি সনদের স্বাক্ষরকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশ এমন কোনো আইন প্রণয়ন করতে ও বলবত রাখতে পারে না, যেসব আইন ওই সনদের পরিপন্থী। প্রসঙ্গক্রমে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইন এবং ২০০৯ সালের সন্ত্রাস বিরোধী আইনের উল্লেখ করেছে কমিশন। বলেছে, এ দুটি আইনের ব্যাখ্যা এতই ব্যাপক যে, যে কোনো সরকারই তার স্বেচ্ছাচারমূলকভাবে ব্যবহার ও অপপ্রয়োগ করতে পারে। আইন দুটির অপপ্রয়োগ যে ঘটেছে ও ঘটে চলেছে এবং সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মীরাও যে তার শিকার হয়েছেন ও হচ্ছেন- তারও উল্লেখ রয়েছে পর্যবেক্ষণে। গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড প্রসঙ্গে জাতিসংঘ কমিশন বলেছে, আইনশৃংখলা ও নিরাপত্তা বাহিনীগুলোর জবাবদিহিতার ব্যবস্থা না থাকায় দোষীদের কোনো শাস্তি হচ্ছে না, অন্যদিকে ভুক্তভোগী ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোও ন্যায়বিচার পাচ্ছে না। দেশের আইনে  অপরাধ হিসেবে গুমের স্বীকৃতি না থাকার কারণেও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ কমিশন। পর্যবেক্ষণের সুপারিশে কমিশন বলেছে, সকল বাহিনীর জন্যই আইনে জবাবদিহিতার এবং দোষীদের শাস্তির বিধান যুক্ত করতে হবে। আটক অবস্থায় রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতনের বিরুদ্ধে এবং কারা হেফাজতে মৃত্যুর ব্যাপারেও নিন্দা জানানো হয়েছে পর্যবেক্ষণে।
মতপ্রকাশ ও সংগঠন করার অধিকারসহ আরো কিছু বিষয়েও প্রকাশিত পর্যবেক্ষণে বক্তব্য রেখেছে জাতিসংঘ কমিশন, কিন্তু বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে প্রাধান্যে এসেছে গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডসহ রাজনৈতিক দলগুলোর ওপর সরকারের চালানো দমন-নির্যাতনের নানাদিক। বলা বাহুল্য, কোনো একটি প্রসঙ্গেই পর্যবেক্ষণে সামান্য বাড়িয়ে বলা হয়নি। কারণ, হিউম্যান রাইটস ওয়াচসহ অন্য কিছু আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাও এসব বিষয়ে বিভিন্ন সময়ে রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। কোনো কোনো রিপোর্টে একথা পর্যন্তও বলা হয়েছে যে, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ‘কর্তৃত্বপরায়ণ’ হয়ে উঠেছে এবং বাংলাদেশে ভিন্নমত প্রকাশের বিষয়টি মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে। বিরোধী রাজনীতিকদের গ্রেফতার করে বিভিন্ন মামলা দায়ের করার এবং নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে নির্যাতন, হত্যা ও গুম হওয়ার মতো গুরুতর মানবাধিকার লংঘনের ঘটনা প্রসঙ্গও রয়েছে প্রায় সব রিপোর্টে। বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের মতো অপরাধের ক্ষেত্রে দায়ীদের বিরুদ্ধে সরকার যে কখনো কোনো ব্যবস্থা নেয়নি- এমন মন্তব্যও করেছে বিভিন্ন বিদেশী ও আন্তর্জাতিক সংস্থা। তারা বলেছে, বর্তমান সরকারের অধীনে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর পাশাপাশি বাংলাদেশের গণমাধ্যম ও নাগরিক সমাজও অত্যন্ত কঠিন সময় পার করেছে। বড় দলগুলো ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ নেয়নি। মনে হচ্ছে, সংসদের বাইরেও কোনো বিরোধী দলকে মাথা তুলে দাঁড়াতে দিতে চায় না সরকার।
আরো অনেক তথ্য ও অভিমতও রয়েছে বিভিন্ন বিদেশী ও আন্তর্জাতিক সংস্থার রিপোর্টে। সেদিক থেকে বলা যায়, জাতিসংঘ কমিশন আসলে নতুন কিছুই বলেনি। বস্তুত সরকার স্বেচ্ছাচারী ও কর্তৃত্বপরায়ণ হয়ে ওঠার কারণে বাংলাদেশে একদিকে বিরোধী গণতান্ত্রিক দলগুলো আন্দোলন দূরে থাকুক এমনকি সাধারণ কোনো কর্মসূচিও পালন করতে পারছে না, অন্যদিকে এসব দলের নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি আক্রান্ত অন্য সকলের জন্যও ন্যায়বিচার পাওয়ার পথ সংকুচিত হয়ে পড়েছে। এমন অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে মানতেই হবে, জাতিসংঘ কমিশনের পর্যবেক্ষণে গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যার জন্য সঠিকভাবেই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী তথা নিরাপত্তাবাহিনীগুলোকে দায়ী করা হয়েছে, যাদের পেছনে রয়েছে সরকারের সমর্থন ও মদদ। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে মিথ্যা মামলা দায়ের, প্রতিহিংসামূলক গ্রেফতার, গ্রেফতারের পর রিম্যান্ডে নিয়ে নিষ্ঠুর নির্যাতন এবং গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের মতো বিভিন্ন প্রসঙ্গেও পর্যবেক্ষণে সঠিক তথ্য ও চিত্রই তুলে ধরা হয়েছে।
বলা বাহুল্য, জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের এই পর্যবেক্ষণ সরকারের জন্য সুখবর হয়ে আসেনি। সে কারণে কেবলই প্রত্যাখ্যান করার পরিবর্তে সরকারের উচিত পর্যবেক্ষণের মূলকথাগুলো অনুধাবন করা এবং সে অনুযায়ী নিজেদের সংশোধন করা। বিষয়টি জরুরি এবং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এজন্য যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে ব্রিটেন, ফ্রান্স, জার্মানি ও ইটালীসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত সব দেশই বিভিন্ন সময়ে গুম-খুনের কঠোর বিরোধিতা করেছে। এখনো করছে। দেশগুলো বেশ কিছু উপলক্ষে জানিয়ে দিয়েছেন, ইলিয়াস আলীসহ বিভিন্নজনের গুম ও হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার না হলে ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশের পণ্য বিক্রি কঠিন হয়ে পড়বে।
বলা দরকার, বিদেশীদের হুমকির কারণে শুধু নয়, দেশের ভেতরে শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্যও গুম ও বিচার বহির্ভূত হত্যার ব্যাপারে সরকারের উচিত কঠোর অবস্থান নেয়া। ক্ষমতাসীনদের বুঝতে হবে, গুম ও বিচার বহির্ভূত হত্যার পেছনে তাদের ইন্ধন ও ভূমিকার বিষয়টি কারো কাছেই আর গোপন নেই। জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের মতো আন্তর্জাতিক সংস্থাও যখন অভিযোগ উত্থাপন করে তখন বোঝা দরকার, দেশের ভাবমর্যাদা তো ক্ষুণ্ন হয়েছেই, এমন অবস্থা কোনো সরকারের ভবিষ্যতের জন্যও শুভ হওয়ার নয়। সুতরাং গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যা এবং মামলা ও গ্রেফতারসহ বিরোধী দলের ওপর দমন-নির্যাতন বন্ধ করার পাশাপাশি সরকারের উচিত গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার উদ্দেশ্যেও সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে একযোগে সচেষ্ট হয়ে ওঠা। উচিত সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ জাতীয় নির্বাচন নিয়ে এখনই উদ্যোগী হওয়া।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ