ঢাকা, শনিবার 29 April 2017, ১৬ বৈশাখ ১৪২৩, ০২ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ছাতকে বর্বতার একমাস হলেও শঙ্কামুক্ত হয়নি শিশু শিক্ষার্থী

ছাতক (সুনামগঞ্জ) সংবাদদাতা: ছাতকে ভূমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে মাদরাসা ছাত্র আবু সুফিয়ান (১২) এর উপর বর্বর নির্যাতনের প্রায় একমাস হলেও এখনও সে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।
গত ১এপ্রিল উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউপির সাউদপুর গ্রামে সমশর আলীর পুত্র ধারণ মাদরাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণীর মেধাবী ছাত্র আবু সুফিয়ানও তার ছোট ভাই কটালপুর বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণীর ছাত্র তোফায়েল আহমদসহ একই পরিবারের ৪সদস্যকে কুপিয়ে গুর”তর আহত করে।
এসময় তাদের ঘর-বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। এরপর থেকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩য় তলার ১১নং ওয়ার্ডের নিউরো সার্জারি বিভাগের ডাক্তার অপুর তত্বাবধানে চিকিৎসাধিন আবু সূফিয়ান এখনও শঙ্কামুক্ত হয়নি।
মাথার ডান দিকে শক্ত আঘাতের অস্ত্রোপাচারের পর আরো দূর্বল হয়ে পড়েছে।
তার শরীরে বিভিন্ন অংশে রয়েছে শিশু নির্যাতনসহ চরম অমানবিকতাও নিষ্ঠুরতার ক্ষতচিহ্ন। যা আজো তাকে জ্বালায়, পোড়ায় ও কাঁদায়।
তার অভিবাবক সিরাজুল ইসলাম বলছেন, সে পুরোপুরিভাবে সুস্থ হতে আরো ৫ মাস সময় লাগতে পারে।
মেধাবী ছাত্র সুফিয়ানের এখন লেখা-পড়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। সাউদপুর গ্রামে তাদের প্রতিবেশি শমসর আলীর পুত্র সুন্দর আলীর নেতৃত্বে দু’শিশু সন্তানের উপর অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়।
তার ছোট ভাই তোফায়েল এখনো বিদ্যালয়ে যেতে পারছে না। পরে সুন্দর আলীকে প্রধান আসামি করে সিরাজুল ইসলাম বাদি হয়ে ছাতক থানায় একটি মামলা (নং-০১, তাং-০২.০৪.২০১৭ইং) দায়ের করা হয়। এখনো প্রধান আসামিসহ দু’জন ছাড়া জমির আলী, শেহনাজ আলী, সমাছুদ্দিন, আইনুদ্দিন, আনকার আলী ও করিম বক্স নামের আসামীরা পলাতক রয়েছে। তবে তদন্ত অফিসার এসআই কামাল আসামি গ্রেফতারে জোর প্রচেষ্টা চলছে বলে জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ