ঢাকা, সোমবার 01 May 2017, ১৮ বৈশাখ ১৪২৩, ০৪ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সালথায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংর্ঘষে নিহত ১ ॥ আহত ২৫

ফরিদপুর সংবাদদাতা : ফরিদপুরের সালথা উপজেলায় আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংর্ঘষে জিয়া শেখ(২৪) নামের একজন নিহত হয়েছে। এসময় আরও ২৫ জন আহত হয়। সংর্ঘষে বেশ কয়েকটি বাড়ি ঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়।

রোববার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার আটঘর ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া গ্রামে ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শহিদুল হাসান খান সোহাগের সমর্থকদের বাড়িতে অতর্কিত খুসবু মোল্যা ও কাদের মোল্যা সমর্থকেরা হামলা চালায়। প্রতিপক্ষের হামলায় জিয়া শেখ (৩০) নামে একজন নিহত ও ২৫জন আহত হয়েছেন। সংঘর্ষে নিহত হলে হাসপাতালে নেয়ার পথে সে মারা যায়। নিহত জিয়া ওই গ্রামের শাহাদত শেখের ছেলে। আহতদেরকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হামলাকারীরা বেশ কয়েকটি বাড়ি ভাঙচুর করেছে বলে জানা গেছে। হামলার খবর পেয়ে সালথা থানা পুলিশ ও ফরিদপুর জেলা পুলিশের সদস্যরা গিয়ে লাঠি চার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। 

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক ও আটঘর ইউপির চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম খান সোহাগ জানান, গতকাল রোববার ভোরে পিকুল খা, নেশান খান, রইচ খাঁ, ফারুক শেখ, কাউছার মাতুব্বর, কাদের মোল্লাসহ প্রতিপক্ষের কয়েক শত লোক অতর্কিত ভাবে আমার ও আমাদের সমর্থকদের বাড়ি দেশী অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে হামলা করে । এ সময় প্রতিপক্ষের কোপের আঘাতে জিয়া নিহত হয়। জিয়া আটঘর ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া এলাকার শাহাঁজদ্দী শেখের ছেলে। তিনি বলেন, হামলায় জাহাঙ্গীর হোসেন, মোতালেব মোল্লা, মোশারফ, মহাসিনসহ কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছে। তিনি অভিযোগ করেন, হামলাকারীরা সুজন মাতুব্বর ,আবজাল, লিয়াকত হোসেন খানেরসহ বেশ কয়েকটি বাড়িতে ভাঙচুর ও লুট পাট চালায়।

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার সুভাষ চন্দ্র সাহা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, সালথায় প্রতিপক্ষের হামলায় এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। হামলাকারীরা বেশ কয়েকটি বাড়িতে ভাঙচুর করেছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি এখন পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ