ঢাকা, বুধবার 03 May 2017, ২০ বৈশাখ ১৪২৩, ০৬ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নির্বাচনের জন্য বিএনপি প্রস্তুত -মির্জা ফখরুল

মহান মে দিবস উপলক্ষে গত সোমবার দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল র‌্যালি বের করে -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার: নিরপেক্ষ নির্বাচনের ক্ষেত্র প্রস্তুত থাকলে সব সময়ই নির্বাচনের জন্য বিএনপি প্রস্তুত মন্তব্য করে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ৩০০ আসনে বিএনপির মনোনয়ন পেতে ৯০০ প্রার্থী প্রস্তুত আছে। বিএনপি কেবল নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার হলেই একাদশ নির্বাচনে যাবে। অন্যথায় একতরফার সেই সাজানো নির্বাচনে বিএনপি যাবেনা। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের প্রতিষ্ঠা বাষির্কী উপলক্ষে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে অবস্থিত বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনিএসব কথা বলেন।

নির্বাচনে বিএনপি অবস্থানের বিষয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা একটা নির্বাচনমুখী রাজনৈতিক দল, আমরা নির্বাচনে বিশ্বাস করি। যদি সহায়ক সরকার থাকে, নির্বাচনের ক্ষেত্র প্রস্তুত থাকে, আমরা নির্বাচনের জন্য সবসময় প্রস্তুত। ৩০০ আসনে নির্বাচনে প্রার্থী তো আমাদের ৯‘শ আছে।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, দেশের গণতান্ত্রিক স্পেস আরো বেশি করে সংকুচিত হচ্ছে। আওয়ামী লীগ যতই বুঝতে পারছে যে, তারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে ততই তারা গণতান্ত্রিক স্পেস বা পরিসর সংকুচিত করছে এবং একদলীয় শাসন ব্যবস্থা পাকাপোক্ত করছে।

বিএনপি ‘খাওয়া ভবন’ এর স্বপ্ন দেখছে’- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বিএনপির মহাসচিব বলেন, উনি (ওবায়দুল কাদের) নিজেই বলেছেন আগামীতে ক্ষমতায় না আসতে পারলে যে আয় তারা করেছেন সেগুলো নিয়ে দেশ ছেড়ে পালাতে হবে। সুতরাং খাওয়া শেষ। সমস্যা হচ্ছে যে, এই বিষয়গুলো নিয়ে আমরা কথা বলতে চাই। এগুলো রাজনৈতিক ভাষা নয়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে তারা এসমস্ত কথার অবতারণা করেন।

তিনি বলেন, একটা নিরপেক্ষ নির্বাচন হলেই বুঝা যাবে যে, জনগণ তাদেরকে কোন জায়গায় রেখেছে। আওয়ামী লীগ দেশের মানুষের জন্য কি কাজ করেছে আর দুর্নীতি কতটুকু করেছে তার বিচার করবে জনগণ। যার কিছুটা সম্প্রতি ক্ষমতা হারালে দেশে থাকতে পারবেন না বলে দেয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যের মধ্যেই উঠে এসেছে।

এসময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, শ্রমজীবী মানুষরা আজ অনিশ্চিত জীবনযাপন করছেন। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে মজুরি কমে যাচ্ছে। অধিকার আদায়ে বেঁচে থাকতে নিয়মিত লড়াই করে যাচ্ছে শ্রমজীবী মানুষ। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের শাসনামলে অনেক শ্রমজীবী মানুষ মিথ্যা মামলায় নানানভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছে- গ্রেফতার, খুন, গুম হচ্ছে। তাই শ্রমিক দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে শ্রমজীবী মানুষ শপথ নিয়েছে তারা আগামী দিনে আন্দোলন সংগ্রামে সামনের কাতারে দাঁড়াবে এবং বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বাংলাদেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করবে।

এসময় শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেইন, সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নাসিমসহ শ্রমিক দলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ