ঢাকা, বুধবার 03 May 2017, ২০ বৈশাখ ১৪২৩, ০৬ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মৌলভীবাজারের ৩ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত

আজাদুর রহমান আজাদ, মৌলভীবাজার থেকে : মৌলভীবাজার জেলার হাওর অঞ্চলের বোরো ফসল ধান ও মাছ হারানোর পর জেলার প্রায় ৩ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বছরে একবার ফসল হয় হাওর অঞ্চলে আর এ ফসল তোলে পুরো বছরের খাবার ও অন্যান্য খরচ নির্বাহ করেন কৃষকরা। কিন্তু টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে কৃষক ও জেলে পরিবারে জীবন ও জীবিকা উলট-পালট হয়ে গেল।
অসহায় মানুষ গুলো মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে আহাজারি করেছেন কি ভাবে তারা পরিবার পরিজন নিয়ে বেঁচে থাকবেন। সরকারী ভাবে যে ত্রাণ দেয়া হচ্ছে তা একবারে অপ্রতুল।
সৃষ্ট বন্যায় ৭টি উপজেলার লোকসান ও ক্ষয়ক্ষতি নিরুপণ করেছে জেলা কৃষি সম্পসারণ অধিদপ্তর।
জেলার ৬৭টি ইউনিয়নের মধ্যে ক্ষতিগ্রস্তের সংখ্যা ৬০টি ইউনিয়ন। সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সংখ্যা ২৪,৮৭১টি ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৪৯,৭২৩টি পরিবার।
সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা ১,২১,৬০৬ জন ও আংশিক ২,৫৮,৩৪৮জন হাওর পারের মানুষ। সম্পূর্ণ ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি ৮৯১ টি ও আংশিক ৫,৯১০টি। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১৮,৮৯৮ হেক্টর জমির বোরো ফসল ।
মাছ মরেছে ২৫ মেট্রিক টন। হাওরে হাঁস, ছাগল ও গরু মারা যাওয়ার পরিসংখ্যন এখনও নিরুপন করা যায়নি। এ দিকে হওর গুলোতে মাছ মরে যাওয়ায় মাছের অভাব পূরণের জন্য জেলা মৎস্য বিভাগ ১৮ লাখ পোনা মাছ অবমুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে।
জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, ফসল হারানো দুর্গত মানুষদের জন্য জিআর ২০০ মেট্রিকটন চাল ও নগদ ২৫ লাখ টাকা বরাদ্দ এসেছে। যা ইতোমধ্যে বিতরণ করা শুরু হয়েছে। প্রতি পরিবারকে ৫০০টাকা করে ৩ মাস দেয়া হবে। ৯৮ মেট্রিকটন ভিজিএফ প্রতিপরিবারে ১মাসের জন্য ৩০ কেজি ১ হাজার পরিবারকে দেয়া হবে।
নতুন করে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার জন্য বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে ৫০০ মেট্রিকটন চাল ১০ লক্ষ টাকা, ১০০০ বান্ডেল ঢেউটিন সহ ওএমএস চাল বিক্রির অনুমোদন চেয়ে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।
জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে হাকালুকি হাওরের ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হলেও অনেকে এখোনও ত্রাণ পাননি বলে অভিযোগ করেন।
এশিয়ার বৃহত্তম হাকালুকি হাওরকে হাওর উন্নয়ন বোর্ডের অন্তর্ভুক্ত না করায় মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দা সায়রা মহসীন, মৌলভীবাজার-২ আসনের সংসদ সদস্য মোঃ আব্দুল মতিন, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আজিজুর রহমান উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, দ্রুত সময়ের মাধ্যে এ তিন উপজেলার হাকালুকির অংশ হাওর ও জলাভূমি হাওর উন্নয়ন বোর্ডের আওতাভুক্ত করার জোর দাবী জানান।
মৌলভীবাজার জেলায় হাকালুকি হাওরসহ রয়েছে, কাউয়াদিঘী, কড়াইয়ার হাওর, বড়হাওর ও হাইল হাওরসহ ছোট বড় আরও বেশ কয়েকটি হাওর।
কিন্তু এ অঞ্চলের মানুষের প্রশ্ন কেন এতগুলো হাওর থাকার পরেও এ সব হাওরকে “হাওর উন্নয়ন বোর্ডের” অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। দ্রুত হাওর উন্নয়ন বোর্ডের অন্তঃভুক্ত করে স্থায়ী সমাধানের দাবী করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ