ঢাকা, শুক্রবার 05 May 2017, ২২ বৈশাখ ১৪২৩, ০৮ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের টেলিভিশন বিতর্কে জয়ী ম্যাক্রোঁন

৪ মে. দ্য লোকাল স্কাই নিউজ : ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের টেলিভিশন বির্তকে জয়ী হলেন মধ্যপন্থী প্রার্থী ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁন। বুধবার প্রধান দুই প্রেসিডেন্ট প্রার্থী মেরি লি পেন ও ম্যাক্রোঁন টেলিভিশন বিতর্কে অংশগ্রহণ করেন। বিতর্কে ইউরোপ, অভিবাসন, অর্থনীতি ও ফরাসি নাগরিকদের মর্যাদার ইস্যুতে দুই প্রার্থীর তীব্র মতপার্থক্যের বিষয়টি উঠে আসে। প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের দুই ঘন্টার এই বিতর্ক প্রত্যক্ষ করেন ফ্রান্সের ২০ মিলিয়ন মানুষ।

উভয় প্রার্থীর রাজনৈতিক বিতর্ক এক সময় ব্যক্তিগত আক্রমণে রুপ নেয়। সাবেক ব্যাংকার ও অর্থনীতিবিদ ম্যাক্রোনের পূর্ব পরিচয় তুলে  ধরে লি পেন তাকে ‘ফ্র্যাঙ্কোয়েস হলেন্ডের ল্যাপডগ’ হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, বিশ্বায়নের এই নেতা বন্য হয়ে গেছেন। ম্যাক্রোঁন ইসলামী সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে নমনীয় আচরণ করছে বলে মনে করেন লি পেন। ফ্রান্সে সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন হামলার সমালোচনা করে তিনি বলেন, জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে ম্যাক্রোঁনের তেমন কোন পরিকল্পনা নেই।

অন্যদিকে নিজের পক্ষে ম্যাক্রোঁন বলেন, তিনি প্রতিটি ক্ষেত্রে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কাজ করছেন। লি পেন কে বর্বর হিসেবে উল্লেখ করে তিনি অভিযোগ করেন লি পেন গৃহযুদ্ধ সৃষ্টির পায়তারা করছেন।

ইউরো বাতিল সহ লি পেনের বিভিন্ন নীতির সমালোচনা করে ম্যাক্রোঁন বলেন, এর মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ নষ্ট সহ দেশ চরম অর্থনৈতিক সংকটে পড়বে। ম্যাক্রোঁন লি পেনকে ‘মিথ্যাবাদী ’ও  ‘চাটুকার’ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, লি পেন উস্কানিমূলক বক্তব্য প্রদান করেন এবং শুধুমাত্র চরমপন্থীরাই লি পেন কে ভোট দিবেন। উল্লেখ্য, গত ২৩ এপ্রিল ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম দফা প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। দেশটির চূড়ান্ত দফার এ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ৩৯ বছর বয়সী সাবেক অর্থমন্ত্রী ইম্যানুয়েল ম্যাক্রন এবং ৪৮ বছর বয়সী ন্যাশনাল ফ্রন্ট পার্টির নেতা লি পেনের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে। এক্ষেত্রে ম্যাক্রন হচ্ছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নপন্থী ও লি পেন হচ্ছেন কট্টর ডানপন্থী। প্রথম দফায় ম্যাক্রন ২৩.৫৪ শতাংশ এবং লি পেন ২২.৩ শতাংশ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন। আগামী ৮ মে ফ্রান্সের দ্বিতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ