ঢাকা, শনিবার 06 May 2017, ২৩ বৈশাখ ১৪২৩, ০৯ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

পাক বাহিনীকে মুরগি সাপ্লাইকারীরা প্রকৃত আলেমদের স্বাধীনতাবিরোধী বানানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছে -খেলাফত আন্দোলন

 

বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের আমীরে শরীয়ত মাওলানা শাহ আতাউল্লাহ ইবনে হাফেজ্জী হুজুর মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতকারীদের শাস্তির বিধান রেখে জাতীয় সংসদে আইন প্রণয়নের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস বিকৃত করে একটি মহল বিভিন্নভাবে ফায়দা লুটছে। প্রকৃত ইতিহাস আড়াল করে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন পাক বাহিনীর মুরগি সাপ্লাইকারীরা এখন মুক্তিযোদ্ধা সেজে প্রকৃত আলেম মুক্তিযুদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধার পক্ষের শক্তিকে স্বাধীনতা বিরোধী বানানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছে। স্বাধীনতা যুদ্ধে মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, হযরত হাফেজ্জী হুজুর (রহ.) ও মাওলানা আব্দুর রশিদ তর্কবাগীসসহ অসংখ্য ওলামায়ে কেরামের বলিষ্ঠ ভূমিকা থাকার পরও যারা ইতিহাস বিকৃত করে জাতিকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা করছে তাদের বিচার করতে হবে। স্বাধীনতা যুদ্ধে হযরত হাফেজ্জী হুজুর (রহ.) এর বলিষ্ঠ ভূমিকা থাকা সত্ত্বেও তাকে রাজাকারদের তালিকাভুক্ত করেছে শাহরিয়ার কবির ও মুনতাসির মামুন গং। এহেন ইতিহাস বিকৃতকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। 

গতকাল শুক্রবার বিকাল ৩টায় রাজধানীর জামিয়া নুরিয়া ইসলামিয়া কামরাঙ্গীরচর মাদরাসায় বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের এক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এতে আরো বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী, নায়েবে আমীর মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা মুসা বিন ইযহার, প্রচার সম্পাদক মাওলানা সুলতান মুহিউদ্দিন, দফতর সম্পাদক মাওলানা সানাউল্লাহ, মুফতী ফখরুল ইসলাম, মাওলানা রহমাতুল্লাহ ও মাস্টার আনসার উদ্দিন হাওলাদার প্রমুখ।

মাওলানা আতাউল্লাহ আরো বলেন, স্বাধীনতার ৪৬ বছর অতিবাহিত হওয়ার পরও মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জাতির সামনে প্রকাশ না হওয়াটা আসলেই দুঃখজনক। প্রকৃত ইতিহাস দেশবাসীর জানা থাকলে দুষ্কৃতিকারীরা ইতিহাস বিকৃত করার সাহস পেত না। স্বাধীনতার প্রকৃত ইতিহাস জাতির সামনে তুলে ধরতে হবে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ