ঢাকা, শনিবার 06 May 2017, ২৩ বৈশাখ ১৪২৩, ০৯ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

শিল্পকলায় এশিয়ান থিয়েটার সামিট শুরু

স্টাফ রিপোর্টার : এশিয়া অঞ্চলের থিয়েটার সংগঠন ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিল্পী-গবেষকদের মধ্যে যোগাযোগ ও সহযোগিতার বাড়ানোর লক্ষ্যে ঢাকার শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে এশিয়ান থিয়েটার সামিট। সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর গতকাল শুক্রবার রাজধানীতে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় এ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন।
ইন্টারন্যাশনাল অ্যামেচার থিয়েটার অ্যাসোসিয়েশনের (আইএটিআই) এশিয়ান রিজিওনাল সেন্টারের উদ্যোগে দুই দিনব্যাপী এই সম্মেলনের পৃষ্ঠপোষকতা করছে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়। যৌথভাবে আয়োজনে রয়েছে পিপলস থিয়েটার অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি। আইটিআইয়ের এশিয়া অঞ্চলের সভাপতি ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আইএটিআই’র অনারারী সভাপতি রামেন্দু মজুমদার, বাংলাদেশ কেন্দ্রের সভাপতি নাসিরউদ্দিন ইউসুফ, সিঙ্গাপুরের চাইনিজ অপেরা ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক চুয়া সু পং, ইন্দোনেশিয়ার নাট্যকর্মী আলিকা চন্দ্র, ভারতের ডোংরে ইয়োৎসোনা সুহাস, নেপালের প্রেম পাওদেল, লাওসের পাংনা ফ্রানখোনে উপস্থিত ছিলেন।
সম্মেলন উদ্বোধনকালে সংস্কৃতিমন্ত্রী বলেন, সময়ের প্রেক্ষাপটে এশীয় অঞ্চলের দেশগুলোর থিয়েটারগুলোর মধ্যে যোগাযোগ সেভাবে স্থাপিত হয়নি। আমাদের এই ক্ষেত্রটিতে আরও বেশি আলোচনা করার আছে।
বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসবাদ, উগ্রবাদী কর্মকান্ডের বিপরীতে থিয়েটারকে একটি ‘শক্তিশালী অস্ত্র’ হিসেবে বর্ণনা করে সংস্কৃতিমন্ত্রী বলেন, অবিবেচকদের অমানবিক কর্মকান্ডের বিপরীতে থিয়েটারকে আরও বেশি শক্তিশালী করতে হবে আমাদের।
সিঙ্গাপুরের চুয়া সু পং বলেন, এশিয়ার দেশগুলোর জনগণের মধ্যে পারস্পরিক বোঝাপড়ার মাধ্যমে শান্তি প্রতিষ্ঠা হতে পারে। যোগাযোগ প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে সেই কঠিন চ্যালেঞ্জ জয় করা যায়।
আয়োজনের দ্বিতীয় দিন আজ শনিবার বিদেশ থেকে অতিথিরা তাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তুলে ধরবেন। পাশাপাশি তারা অংশ নেবেন সংস্কৃতি বিষয়ক তুলনামূলক আলোচনায়। দুপুরে ‘ইন্ডিজেনাস থিয়েটার অফ দ্য সার্ক রিজিওন: নিউ ডিরেকশনস’ শিরোনামে আলোচনায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন নাট্যকার অংশুমান ভৌমিক। এশিয়ার নৃত্য নিয়ে মুক্ত আলোচনায় সঞ্চালক হিসেবে থাকবেন লুবনা মরিয়ম। আর ভারত থেকে আসা পিয়াল ভট্টাচার্য মার্গ নাট্যের প্রায়োগিক কলাকৌশলের ওপর আলোকপাত করবেন।
সেমিনারের পাশাপাশি জাতীয় নাট্যশালার ৩ নম্বর মহড়া কক্ষ, সেমিনার কক্ষ, জাতীয় নাট্যশালা, এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হল, স্টুডিও থিয়েটার হলে বাউল সংগীত, চর্যানৃত্য, গৌড়ীয় নৃত্য, শিশু নৃত্য ও নাটক পরিবেশন করবে বিভিন্ন সংগঠন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ