ঢাকা, রোববার 07 May 2017, ২৪ বৈশাখ ১৪২৩, ১০ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বেইজিং হারাচ্ছে তার ঐতিহ্যবাহী রূপ

৬ মে, বিবিসি : এশিয়ার বৃহত্তম দেশ চীন অর্থনীতিতে চাঙ্গা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দেশের শহরগুলোরও পরিবর্তন আনছে। যেকোন উন্নত বিশ্বের দেশের মতই তাদের রাস্তাঘাট ও শহরের অলিগলি হচ্ছে আধুনিক পরিকল্পনায়। তবে আধুনিকতার ছোঁয়ায় চীনের রাজধানী বেইজিং হারাচ্ছে শত বছরের ঐতিহ্য। বেইজিংয়ের রাস্তা দখল করে থাকা হকার ও বিভিন্ন ছোট দোকান ও রেস্তোরা ছিল শহরবাসীর প্রাণের জায়গা। অফিস ফেরৎ লোকজন এবং তরুন-তরুনীদের আড্ডা দেওয়ার জায়গাগুলো ক্রমেই হ্রাস পাচ্ছে।
শহর সংস্কারের জন্য এখন বেইজিংয়ের রাস্তার জীবন বিপন্ন। যেসব মানুষ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বেইজিং শহরে এসে রাস্তার ওপর জীবন নির্বাহ করত তারা এখন দিশেহারা হয়ে অন্য চিন্তা করছে। কর্তৃপক্ষ বলছে, শহর সংস্কারের পর বেইজিং আরও আধুনিক শহর হিসাবে প্রতিষ্ঠা পাবে।
শহরের স্থানীয় বাসিন্দারাও কর্তৃপক্ষের এ সিদ্ধান্তে খুশি। তবে যেসব গোষ্ঠী রাস্তায় জীবিকা খুঁজে ফেরে তাদের জন্য বিষয়টি খুব হতাশাদায়ক। বেইজিং শহরের যেসব গলি ঐতিহ্যগতভাবেই পরিচিত ছিল সেসব গলিতে এখন অনেক দোকানের ভীর।
এলাকাবাসী এসব দোকানের ভীরে বরং বিরক্তই এখন। নান লিও জু জিয়াং এলাকাটি কয়েক বছর আগেও পর্যটকদের কাছে খুব পরিচিত ছিল এবং এখানকার চা সবার কাছে জনপ্রিয় ছিল। কিš‘ এখন সে এলাকা এতটাই ঠাঁসা হয়ে গেছে যে পর্যটকরা আর আসতে সাহস করে না। বেইজিং শহরের পরিকল্পনায় গলদ আছে এ বিষয়ে বিতর্ক বহুদিনের। তবে এখন কর্তৃপক্ষ যেভাবে শহর সংস্কার করছে তাতে খুব অল্প দিনেই হয়ত চেহারা পাল্টে যাবে।
শহরের বড় বড় শপিং মলগুলো রাস্তার আনাচে কানাচে বসা দোকানের ঘোর বিরোধী কারণ সেসব জায়গার ভোক্তারা বড় শপিং মলে আসে না। সরকারের পদক্ষেপে রাস্তার ছোট দোকান উচ্ছেদ হলেই হয়ত শহর বাণিজ্যে জোয়ার আসবে বলে আশা তাদের। তবে চীনের অর্থনীতিকে সামনে এগিয়ে নিয়েছে ছোট উদ্যোক্তরাই। এখন অর্থনীতির শীর্ষ পর্যায়ে গিয়ে তাদের দূরে ঠেলে দিলে আবারও তা হয়ত জাতীয় অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলতে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ