ঢাকা, রোববার 07 May 2017, ২৪ বৈশাখ ১৪২৩, ১০ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বালাকোটের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে বাতিলের মোকাবেলা করতে হবে

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরার সদস্য ও চট্টগ্রাম মহানগরী সেক্রেটারি মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম বলেছেন, ১৮৩১ সালের ৬ মে ঐতিহাসিক বালাকোট প্রান্তরে ইংরেজ ও শিখ মিত্র বাহিনীর সাথে জেহাদ করে শাহাদাত বরণ করেন ভারতীয় উপমহাদেশের আজাদী আন্দোলনের প্রাণ পুরুষ সাইয়েদ আহমদ শহীদ বেরলভি। আন্দোলনের উদ্দেশ্য ছিল বাংলা ভারতে অখন্ড একটি ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। মুসলিম বিদ্বেষী শিখ ও ইংরেজ সরকার মুসলমানদের এ আন্দোলনকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র শুরু করে। সীমান্তবর্তী অঞ্চলের কিছু বিশ্বাসঘাতকদের সহায়তায় ১৮৩১ সালে ৬ মে এ ষড়যন্ত্র সফল হয়। এ আন্দোলনের মাধ্যমে মুসলমানদের শিরক ও বিদআত মুক্ত করা, তৌহিদের মর্মবাণীর দিকে ফিরিয়ে দেয়া এবং ইসলামী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে আল্লাহর সন্তোষ অর্জন করাই আন্দোলনের লক্ষ্য ছিল। তিনি দু’ভাবে কাজ করে ছিলেন, সমাজ থেকে সকল কুসংস্কার দূর করা, মুসলমানদের নৈতিক ও আধ্যাত্মিক জীবন উন্নত করা। অপর দিকে ইংরেজ বেনিয়াদের ভারত বর্ষ থেকে বিতাড়িত করে ইসলামী হুকুমাত প্রতিষ্ঠিত করা। কিন্তু শহীদ সাইয়েদ আহমদ বেরলভী স্বজাতীয় শক্রদের দ্বারাই বিপর্যস্ত হয়ে ছিলেন। জনাব নজরুল ইসলাম আরো বলেন, সে সময়কার শিখ ও ইংরেজদের আশির্বাদপুষ্ঠ জমিদারদের জুলুম নির্যাতন ও অত্যাচারের চাইতেও আজকের মুসলিম উম্মাহের অবস্থা আরো কঠিন ও সংকট ময়। বিশ্ব মুসলিমদের এই অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে হলে বালাকোটের শহীদদের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে বাতিল শক্তির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে মোকাবেলা করতে হবে।
জামায়াতে ইসলামী চট্টগ্রাম মহানগরীর উদ্যোগে ঐতিহাসিক বালাকোট দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি সভাপতির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন।
 কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরার সদস্য ও চট্টগ্রাম মহানগরীর সেক্রেটারি মুহাম্মদ নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নগর প্রচার সম্পাদক মুহাম্মদ উল্লাহ, নগর কর্মপরিষদ সদস্য এম.ছিদ্দিকুর রহমান, নগর মজলিশে শূরার সদস্য মুহাম্মদ নাছির উদ্দিন প্রমুখ।
পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন
২০১৭ সালের এস.এস.সি, দাখিল ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সকল ছাত্র,ছাত্রীদের প্রতি অভিনন্দন জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী চট্টগ্রাম মহানগরীর আমীর মুহাম্মদ শাহজাহান ও সেক্রেটারী মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম এক যুক্ত বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, আজকের ছাত্ররাই আগামী দিনের জাতির নেতৃত্ব দিবে। তাই তাদের ভাল ক্যারিয়ার গঠনের পাশাপাশি সৎ,যোগ্য ও আদর্শ নাগরিক হিসাবে তৈরী হতে হবে। নেতৃবৃন্দ বলেন, ছাত্রদের আদর্শ নাগরিক হিসাবে গড়ে তুলতে হবে। নেতৃবৃন্দ ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে সাথে শিক্ষক, অভিভাবক ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারীদের প্রতিও মোবারকবাদ এবং শুকরিয়া জানান। জামায়াত নেতৃবৃন্দ বিবৃতিতে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীদের সাফল্য,সুস্বাস্থ্য, দীর্ঘায়ু এবং উজ্জ্বল ভবিষ্যত কামনা করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ