ঢাকা, সোমবার 08 May 2017, ২৫ বৈশাখ ১৪২৩, ১১ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আ’লীগ ক্ষমতায় থাকলে অস্তিত্ব হারাবে দেশ

গতকাল রোববার কাজী বশির মিলনায়তনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের কর্মী সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : আওয়ামী লীগ বেশিদিন ক্ষমতায় থাকলে বাংলাদেশর অস্তিত্ব থাকবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এরা (আওয়ামী লীগ) ভিন্নমত, বিরোধী রাজনৈতিক দলকে স্তব্ধ করতে চায়। রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখতে চায়। এদের হাতে কেউই নিরাপদ নয়। ঘরের মা বোনেরাও এদের থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা (বিএনপি) নির্বাচন করতে চাই। বিএনপি নির্বাচনমুখী দল। কিন্তু এখন আইন তৈরি করে, সংবিধান কাটাছেঁড়া করে বলছেন- সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে। বিএনপি এত আহম্মক দল নয় যে, আপনাদের কথা মতো একতরফা নির্বাচনে অংশ নেবে। গতকাল রোববার বিকেলে ঢাকা মহানগর নাট্যমঞ্চে ঢাকা মহানগর বিএনপি (দক্ষিণ)-এর উদ্যোগে আয়োজিত এক কর্মিসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেলের সভাপতিত্বে এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, দলের বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক সালাহ উদ্দিন আহমেদ, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, ঢাকা মহানগর বিএনপি (দক্ষিণ) সিনিয়র সহ-সভাপতি শামসুল হুদা, সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, স্বেচ্ছাসেবক দল ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) সভাপতি এস এম জিলানী, যুবদল ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) সাধারণ সম্পাদক গোলাম মৌলা শাহীন, ছাত্রদল ঢাকা মহানগর (পূর্ব) সভাপতি এনামুল হক প্রমুখ।

মির্জা ফখরুল বলেন, হাসিনার (প্রধানমন্ত্রী) দুঃখ-কষ্ট ভয় ওখানেই যে, দীর্ঘ ১০ বছর ধরে এতো নির্যাতন নিপীড়নের পরও বিএনপির কেউ দল ছেড়ে তার দলে আসেনি। শুধু তাই নয়, সরকারের নির্যাতনে যাদেরকে হত্যা, গুম, খুন, গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের পরিবারও তার কাছে (শেখ হাসিনার) মাথা নত করেননি। একটি কথা পরিষ্কার করে বলে দিতে চাই- বিএনপি (আমরা) শত প্রতিকূলতার মাঝেও কারও কাছে মাথা নত করেনি এবং করবে না। বিএনপির নেতাকর্মীরা মাথা নত করতে পারে না। অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে জেগে উঠছে জাতি, সকল ষড়যন্ত্র বানচাল করে দেবে জনগণ।

বিএনপির ভিশন-২০৩০ কে আওয়ামী লীগ নেতারা ধাপ্পাবাজি বলে মন্তব্য করায় মির্জা ফখরুল বলেন, ২০০৭ সালে সেনা সমর্থিত সরকার আওয়ামী লীগের সঙ্গে আঁতাত করে ক্ষমতায় আসে আর আওয়ামী লীগ অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী সেই সেনা সমর্থিত সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে এখন পর্যন্ত অবৈধভাবে ক্ষমতায় আছে। তারাই (আওয়ামী লীগ) প্রতি পদে পদে ধাপ্পাবাজি করে, করছে এবং মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে বারবার ক্ষমতায় এসেছে।

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে আবারও নতুন কোনও হাওয়া ভবন তৈরি হবে বলে আওয়ামী লীগ নেতাদের দেয়া বক্তব্যের সমালোচনায় বিএনপির মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগের উন্নয়ন মানে লুণ্ঠন, লুটপাট। আজকে একদিকে তারা (আওয়ামী লীগ) অতীতের ন্যায় আবারও লুটপাট সমিতিতে পরিণত হচ্ছে। অন্যদিকে দেশের সাধারণ মানুষ না খেয়ে থাকছেন। গোটা দেশকে অন্ধকারে পরিণত হরা হয়েছে। সংসদ বলতে কিছু নেই। সেখানে বিরোধীদল নেই। যারা আছেন তারা গৃহপালিত বিরোধীদল। কারণ সেই তথাকথিত বিরোধীদলের কেউ কেউ আবার সরকারের মন্ত্রিসভায়ও রয়েছেন।

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নতুন জোট প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, অযথা বিএনপিকে নিয়ে সমালোচনা করবেন না। বিএনপি যদি কোথাও না থাকে তাহলে সকল কর্মকাণ্ডে এতো বিএনপি ভীতি কেন? এদিকে আজকে তথাকথিত বিরোধী দল ৫৮টি দল নিয়ে একটি নতুন জোট গঠনের ঘোষণা দিয়েছে। অথচ তারা নিজেরাই কি না এখনও মহাজোট সরকারের শরিক হিসেবে রয়েছেন। তাছাড়া জোটকৃত রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে শুধুমাত্র দুটি দলের নিবন্ধন রয়েছে।

ক্ষমতায় না থাকলে টাকা পয়সা নিয়েও পালাবার পথ পাওয়া যাবে না বলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ দেয়া বক্তব্যের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, তাই হবে, আওয়ামী লীগ পালাবারও পথ খুঁজে পাবে না।

দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমাদের একদিকে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলন, অন্যদিকে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। পাড়ায় পাড়ায় দলকে সুসংগঠিত করতে হবে। দলের কর্মী বৃদ্ধি করতে হবে। রাজনৈতিক পরিধি সম্প্রসারণ করতে হবে। তিনি বলেন, এই সরকার বিএনপিকে ভয় পায় বলেই বিএনপির চলমান সাংগঠনিক কর্মসূচিতে কোথাও কর্মিসভা করতে সময় বেঁধে দিচ্ছেন আবার কোথাও বাধা দেয়া হচ্ছে। বদ্ধ ঘরের ভেতরেও কর্মী সভা করতে দিচ্ছে না।

আলোচনায় অংশ নিয়ে মির্জা আব্বাস বলেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। তাদের পায়ের নীচের মাটি সরে গেছে। তারা এখন যেকোনভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকতে চায়। কিন্তু তারা পারবে না। তিনি বলেন, এই সরকারকে শুধু মুখের কথায় বা শ্লোগানের মাধ্যমে সরানো যাবে না। জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে এদের নিয়ে রাজপথে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এজন্য বিএনপি নেতাকর্মীদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। তিনি বলেন, মহানগর বিএনপিকে শক্তিশালী করতে হবে। পাড়ায়-মহল্লায় সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ