ঢাকা, সোমবার 08 May 2017, ২৫ বৈশাখ ১৪২৩, ১১ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ক্রিকেটে আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচ আজ

স্পোর্টস রিপোর্টার : প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে আজ আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচ। বিকেএসপির চার নম্বর মাঠে আজ সকাল নয়টায় শুরু হবে ম্যাচটি। আগের মওসুমগুলোতে শুরুর দিকেই দেখা হতো ঐতিহ্যবাহী দল দুটির। এবার হচ্ছে অষ্টম রাউন্ডে এসে। সুপার লিগ নিশ্চিত করতে ও চ্যাম্পিয়নশিপের লড়াইয়ে এগিয়ে যেতে ম্যাচটি দুদলের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ। লিগে এখন পর্যন্ত সাত ম্যাচে সমান পাঁচ জয়ে ১০ পয়েন্ট করে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বি দু’দলের ঝুলিতে। নিজেদের এগিয়ে নিতে মাঠের শক্তিমত্তা দেখানোর পাশাপাশি লড়াইয়ে তাই অনেক হিসাব-নিকাসও থাকবে। ঘরোয়া ক্রিকেটের যেকোন আসওে আবাহনী-মোহামেডান মানেই বাড়তি উত্তেজনা, বাড়তি আমেজ। গ্যালারিতে দর্শকদের গগনবিদারী চিৎকার।  যদিও এসব এথন অতীত। চিরচেনা এ দৃশ্য অবশ্য কয়েকবছর ধরেই আর দেখা যায় না। হারিয়ে গেছে সেই উৎসব-উৎসব ভাবও। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও ইংল্যান্ডে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির জন্য নেই জাতীয় দল তারকারাও। সবমিলিয়ে মাঠের লড়াই কতটা জমবে সেটিও নিয়েও প্রশ্ন থাকছে। বাস্তবতা স্বীকার করলেন আবাহনীর কোচ খালেদ মাহমুদ সুজনও। তিনি বলেন,‘ ছোটবেলা থেকে দেখে এসেছি আবাহনী মোহামেডান ম্যাচ মানেই বাড়তি উত্তেজনা। যদিও গত কয়েকবছর ধরেই সেই উত্তেজনটা আর নেই। আমরা যখন খেলেছি তখন ২৫-৩০ হাজার দর্শকের সামনে খেলতে হয়েছে। এখন তেমনটা হয় না। ম্যাচটি বিকেএসপিতে। কত লোক যাবে সেটাও বড় কথা।’ আবাহনী-মোহামেডানের ম্যাচে আগের উত্তেজনা  নেই বলে বাস্তবতা মেনে নিলেন তিনি, ‘ম্যাচের আগে দুই দলের ক্লাব চারপাশে উত্তাপ ছড়াত। ৩ দিন আগেই আবহ তৈরি হয়ে যেত। প্রস্তুতি শুরু হয়ে যেত। মানসিক প্রস্তুতি, ক্রিকেটের প্রস্তুতি অন্যরকম থাকত। সত্যি বলতে সেই জিনিসগুলো এখন আর নেই। আবাহনী এখন আর আবাহনীর মাঠে অনুশীলন করে না। মোহামেডানও করে না। বঙ্গবন্ধুতে স্টেডিয়ামেও খেলা হয় না। ওখানে খেলা হলে হয়তো দর্শক পাওয়া যেত।’ কেন দর্শকদের মধ্যে উত্তেজনা কমে গেছে সেটার ধারণা দিলেন সুজন, ‘হয়তো এখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বেশি থাকায় লিগের খেলার প্রতি আগ্রহ কমে গেছে। তারপরও আমি মনে করব চিরশত্রু দুই দল আবাহনী ও  মোহামেডান। সেক্ষেত্রে ম্যাচটি হাইভোল্টেজ ম্যাচই হবে। তবে ব্যাটসম্যানরা দারুণ ছন্দে আছে। সাদমান শেষ ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছে। পাশাপাশি লিটন দারুণ ছন্দে আছে। ওর থেকে একশ যদিও পাইনি। প্রতিদিন সবাই দারুণ শুরু করছে। সাইফ টানা দুটি ফিফটি করেছে। শান্ত, মিথুন, শুভাগত, আফিফ সবাই ভালো করছে। টপ অর্ডারের রান করাটা গুরুত্বপূর্ণ। তারা রান করলে কাজটা সহজ হয়ে যায়। আমি টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের দিকে তাকিয়ে থাকব।’ প্রতিপক্ষ মোহামেডান দল নিয়ে সুজন বলেন,‘ মোহামেডান এখন বড় দল, নামটাও বড়। মোহামেডান শক্তিশালী একটি দল। খেলা খুব একটা সহজ হবে না। মোহামেডান ছন্দে আছে। শেষ দুটি ম্যাচ জিতেছে। আমরা যদি পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পারি, তাহলে আমাদের কাজগুলো সহজ হয়ে যাবে।’ আগের সেই আবেগ, উত্তাপ-উৎকণ্ঠা না থাকলেও পয়েন্ট টেবিলের সমীকরণই জমিয়ে তুলতে পারে এবারের দ্বৈরথ। এমন ইঙ্গিত দিলেন মোহামেডানের নিয়মিত পারফর্মার তাইজুল ইসলাম। মোহামেডানের এই বাঁহাতি স্পিনার বলনে, ‘আগের সেই উত্তেজনা না থাকলেও এখনও আবাহনী মোহামেডান ম্যাচ অবশ্যই বড় লড়াই। মোহামেডানের সমান পয়েন্ট আমাদের। যে দলই জিতবে তারা কিন্তু এগিয়ে যাবে। সেদিক থেকে বলব, ভাল একটা ম্যাচ হবে। জয় পাওয়াই আমাদের লক্ষ্য।’ জয়ের জন্য মরিয়া হয়ে নামবে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন আবাহনীও। তবে এই ম্যাচের জন্য আলাদা পরিকল্পনা নেই আকাশী-নীলদের কোচ খালেদ মাহমুদের, আবাহনী মোহামেডান ম্যাচ লিগের অনেক বড় একটা ম্যাচ। গুরুত্বপূর্ণ আমাদের জন্য, কারণ আমরা দুটি ম্যাচ হেরে গেছি। এখন প্রতিটি ম্যাচই আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। আলাদা কোন পরিকল্পনা নেই। আমরা যেভাবে খেলি, বেসিকগুলো ঠিক রাখা। আমরা যদি এগুলো ঠিক রাখি তাহলে জয় পাওয়া কঠিন হবে না। একইদিনে বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব খেলবে চলতি আসরে এখন অবধি জয়ের মুখ না দেখা ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবের বিপক্ষে। আর ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে পয়েন্ট টেবিলের সাত নম্বরে নেমে যাওয়া লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ খেলবে শেষ রাউন্ডে একমাত্র জয় পাওয়া খেলাঘর সমাজকল্যাণ সমিতির সঙ্গে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ