ঢাকা, মঙ্গলবার 09 May 2017, ২৬ বৈশাখ ১৪২৩, ১২ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

নতুন জোট করলেও সরকারের সঙ্গে থাকবে জাতীয় পার্টি -কাদের

স্টাফ রিপোর্টার : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জোট থেকে জাতীয় পার্টিকে বাদ দিতে চায় না আওয়ামী লীগ। ২০১৪ সাল থেকে জাতীয় পার্টি ঐক্যমতের সরকারে আছে। নতুন জোট করলেও সরকারে সঙ্গে থাকবে জাতীয় পার্টি। তবে ৫৮ দলীয় এই জোটের চমক দেখতে শেষ সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এসময় তিনি মন্ত্রী সভায় রদবদলেরও অভাস দেন।
গতকাল সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার  বৈঠক শেষে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীয় পার্টি মহাজোটে আছে, এটা ভুল ধারণা। তারা তো মহাজোটে নেই। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি জাতীয় পার্টি আলাদা হয়ে নির্বাচন করেছে। শুধু মহাজোটে নয়, জাতীয় পার্টি মহাজোটের সরকারেও নেই। তারা ঐক্যমতের সরকারে রয়েছে, এটা অত্যন্ত ক্লিয়ার। দল হিসেবে জাতীয় পার্টির আলাদা আদর্শ, আমাদের আলাদা আদর্শ। আদর্শগত দিক থেকে তো কনফ্লিক্ট আছেই।
জাতীয় পার্টির নতুন জোট সরকারের কৌশল কি না, জানতে চাইলে সেতুমন্ত্রী বলেন, আমরা কৌশল করব কেন? আমাদের তো দরকার নেই। আমাদের সঙ্গে কেউ নির্বাচনী জোট করলে আমরাও তো করি। সেটা আমাদের যে নীতিমালা আছে সে নীতিমালা অনুযায়ী। সেটা স্ট্র্যাটেজিক (কৌশলগত) ব্যাপার, আদর্শের কোনো বিষয় নয়। আবার যখন নির্বাচনী ঐক্য হয়, নির্বাচনী ঐক্য আর আদর্শিক ঐক্য এক নয়।
তিনি বলেন, জাপা একটা জোট করবে, এটা তাদের ব্যাপার, এটা এরশাদ সাহেবের সিদ্ধান্তের ব্যাপার। তিনি পার্টির চেয়ারম্যান, তিনি জোট করবেন। সংখ্যার দিক থেকে ১৪ দল, ২০ দল সব ছাড়িয়ে একেবারে ৫৮তে চলে গেছে। তিনি (হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ) বলেছেন, আরো দুটি দল নাকি যোগ দেবে, সবমিলিয়ে ৬০ হয়ে যাবে। শুধু ৬০ কেন, ১৬০ দলের জোটও করতে পারেন তিনি।
এই যে ৫৮ সদস্যের যে জোট, বোধহয় এটা বাংলাদেশে রেকর্ড। এই চমকের রেশ শেষ হতে কত সময় লাগবে সেটার জন্য আগামী নির্বাচন পর্যন্ত মনে হয় আমাদের অপেক্ষা করতে হবে।
 সেতুমন্ত্রী বলেন, নির্বাচনের আগে কত কিছু হবে। রাজনীতিতে অনেক ভাঙাগড়া হবে। জোট হবে, আবার জোট ভাঙবে, আবার জোট থেকে সরে যাবে, কেউ আবার যোগ দেবে। সবকিছু মিলিয়ে নির্বাচনের আগে এটা খুব স্বাভাবিক ঘটনা।
তিনি আরো বলেন, রাজনীতিতে বিশেষ করে জোটের ক্ষেত্রে শেষ কথা বলতে কিছু নেই। নির্বাচনের আগে যে জোট হয়, এ জোটের ব্যাপারে এখনো দেড় বছর বাকি। এই দেড় বছরে বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যায় কত জল গড়িয়ে যাবে।
এসময় তিনি বলেন মন্ত্রী সভায় রদবদল হতেও পারে। কারন এই মন্ত্রী সভা অনেক দিন হয়ে গেছে। তবে এটি প্রধানমন্ত্রীর একান্ত ইখতিয়ার। তিনি চাইলে যে কোন দিন মন্ত্রী পরিষদ রদবদল করতে পারে। আবার চাইলে নাও করতে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ