ঢাকা, বুধবার 10 May 2017, ২৭ বৈশাখ ১৪২৩, ১৩ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম শুরু

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের সব সরকারি-বেসরকারি কলেজে একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ভর্তি কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন। প্রথম পর্যায়ে ভর্তির জন্য মনোনীতদের তালিকা প্রকাশ করা হবে ৫ জুন। ভর্তি শুরু হবে ২০ জুন, ১ জুলাই থেকে শুরু হবে ক্লাস। গত বছরের মতো এবারও অনলাইন ও এসএমএসের মাধ্যমে ভর্তির আবেদন করতে হবে। এবারও ভর্তিতে শিক্ষার্থীরা পছন্দের ১০টি কলেজের নাম দিতে পারবে।

গত রোববার ‘২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নীতিমালা-২০১৭’ জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বিগত কয়েক বছরের মতো এবারও এসএসসির ফলের ভিত্তিতেই একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। অনলাইন ও টেলিটক থেকে এসএমএসের মাধ্যমে ভর্তির আবেদন করা যাবে ৯ থেকে ২৬ মে পর্যন্ত। অনলাইনে আবেদনের ঠিকানা http://www.xiclassadmission.gov.bd । যারা ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করেছেন তাদেরও এ সময়ের মধ্যে আবেদন করতে হবে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের সম্মেলন কক্ষে ভর্তি কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন বলেন, একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির জন্য ইন্টারনেট অথবা মোবাইল এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে। সঠিকভাবে তথ্য দিয়ে এ পদ্ধতিতে ছাত্রছাত্রীরা সহজেই আবেদন করতে পারবে। অনলাইনে আবেদনের ফলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগণ ভোগান্তি থেকে রক্ষা পাবেন। ভর্তির সময় আগে যে কষ্ট হতো, আর্থিক সংশ্লেষ ছিল, এসব থেকে রক্ষা পাবে। সরকারের ডিজিটাল সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে এটা একটি অন্যতম উদাহরণ। 

অনুষ্ঠানে কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. আলমগীর, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. মোল্লা জালাল উদ্দিন, আন্ত:শিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি এবং মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড ঢাকার চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. মাহাবুবুর রহমান এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মো. কায়কোবাদ বক্তৃতা করেন। 

নীতিমালা অনুযায়ী এসএমএসের মাধ্যমে আবেদনের ক্ষেত্রে প্রতি কলেজের জন্য ১২০ টাকা ফি দিতে হবে। এ ক্ষেত্রেও সর্বোচ্চ ১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে পছন্দক্রমে রাখতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। অনলাইন ও এসএমএসের মাধ্যমে সর্বোচ্চ ১০টি কলেজে আবেদন করা যাবে। একজন শিক্ষার্থী যতগুলো কলেজে আবেদন করবে তার মধ্যে থেকে শিক্ষার্থীর মেধা ও পছন্দক্রমের ভিত্তিতে একটি মাত্র কলেজে তার অবস্থান নির্ধারণ করা হবে বলে নীতিমালায় জানানো হয়েছে।

আগে পছন্দক্রমে যতগুলো কলেজের নাম দেওয়া হতো সবগুলোতেই শিক্ষার্থীর অবস্থানসহ তালিকা প্রকাশ করা হতো। এসব কলেজে ভর্তি নিশ্চয়নের ক্ষেত্রে অনেক টাকা খরচ হতো শিক্ষার্থীদের। এবার শিক্ষা বোর্ড শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ভর্তির প্রাথমিক নিশ্চয়ন (নির্দিষ্ট কলেজে ভর্তি হবে বলে নিশ্চিত করা) করার সময় ১৮৫ টাকা করে ফি নেবে।

নীতিমালা অনুযায়ী, প্রথম পর্যায়ে ভর্তি ২০ জুন থেকে শুরু হয়ে শেষ হবে ২২ জুন। এরপর ২৮ ও ২৯ জুন ভর্তি করা হবে। শুধুমাত্র পুনঃনিরীক্ষণে ফলাফল পরিবর্তিত শিক্ষার্থীদের ৩০ থেকে ৩১ মে আবেদন গ্রহণ করা হবে। শিক্ষার্থীদের সিলেকশন নিশ্চয়ন করা হবে ৬ থেকে ৮ জন পর্যন্ত। প্রথম পর্যায়ের নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের ফল প্র্রকাশ করা হবে ৫ জুন। দ্বিতীয় পর্যায়ে ফল প্রকাশ করা হবে ১৩ জুন এবং তৃতীয় পর্যায়ের ফল প্রকাশ করা হবে ১৮ জুন। এ ছাড়া ১৩ জুন দ্বিতীয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের সিলেকশন নিশ্চয়ন ও তৃতীয় পর্যায়ের শিক্ষার্থীর সিলেকশন নিশ্চয়নের সময় নির্ধারণ করা হয়েছে ১৯ জুন।

গত বৃহস্পতিবার এসএসসি, দাখিল ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে। এবার গড় পাসের হার ৮০ দশমিক ৩০ শতাংশ। আট বোর্ডের অধীনে এসএসসিতে পাসের হার ৮১ দশমিক ২১ শতাংশ, মাদ্রাসা বোর্ডের দাখিলে পাসের হার ৭৬ দশমিক ২০ ও কারিগরি বোর্ডে ৭৮ দশমিক ৬৯ শতাংশ।

এবার ১৭ লাখ ৮১ হাজার ৯৬২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৭২২ জন।

নীতিমালায় বলা হয়েছে, এবার মাধ্যমিক উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী ছাড়াও ২০১৫ ও ২০১৬ সালের পরীক্ষায় এবং বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০১৪, ২০১৫ ও ২০১৬ সালের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হতে পারবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ