ঢাকা, বৃহস্পতিবার 11 May 2017, ২৮ বৈশাখ ১৪২৩, ১৪ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ব্যবসায়ীদের জন্য স্বস্থিদায়ক করে  ভ্যাট আইন সংশোধন হবে ------------- অর্থমন্ত্রী

 

স্টাফ রিপোর্টার :  ব্যবসায়ীদের জন্য স্বস্থিদায়ক করে ভ্যাট আইন সংশোধন  করা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুর মুহিত। গতকাল বুধবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এনবিআর’র মুসক প্রকল্পের হেল্প ডেস্ক এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ভ্যাট আইনে কিছুটা সংশোধন করা হবে । আর এই সংশোধনের ফলে ব্যবসায়ীদের জন্য ভ্যাট আইনে একটি ‘স্বস্তিদায়ক হার’ নির্ধারণ করা হবে।

উল্লেখ্য, আগামী জুলাই মাস থেকে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে। তবে দেশীয় শিল্পের স্বার্থ রক্ষায় ভ্যাট আইন সংশোধনের ইঙ্গিত গত ৩০ এপ্রিল প্রকাশ্যেই দিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী। ওই দিন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের  পরামর্শক কমিটির সভায় তিনি বলেন, সম্পূরক শুল্ক উঠে গেলে দেশীয় শিল্পের ক্ষতি হওয়ার বিষয়টি নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। এ জন্য আইনে কিছু একটা করতে হবে।

এর আগে অর্থমন্ত্রী ও এনবিআর চেয়ারম্যান বিভিন্ন সময় এ বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়ে বলেছেন, ব্যবসায়ীদের দাবি তারা ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখবেন। এ জন্য প্রস্তুতিও নেয়া হচ্ছে। পুরো বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে চূড়ান্ত হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১১  অথবা ১৪ মে অর্থমন্ত্রী, এনবিআর চেয়ারম্যানসহ বাজেট প্রণয়ন সংশ্লিষ্ট শীর্ষ নির্বাহীদের সঙ্গে  বৈঠক করে তা চূড়ান্ত করবেন। তবে অর্থ মন্ত্রণালয় ও এনবিআরের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাদের ধারণা, শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে ভ্যাটের একক হার কমিয়ে ১০ ও ১৫ শতাংশের মাঝামাঝি পর্যায়ে স্থির করা হতে পারে।

নতুন ভ্যাট আইনে সব পণ্য ও সেবার ওপর ১৫ শতাংশ হারে একক ভ্যাট আরোপের কথা বলা হয়েছে। বিদ্যমান আইনে বাংলাদেশের বেশ কিছু পণ্য ও সেবার ওপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট থাকলেও অনেক পণ্য ও সেবায় এর হার অনেক কম। এ ছাড়া অনেক পণ্য ও সেবা রয়েছে, যার ওপর ভ্যাটই নেই। নতুন আইন প্রয়োগ হলে নিত্যপ্রয়োজনীয় অল্প কিছু পণ্য ও সেবা বাদে সব পণ্যেই ১৫ শতাংশ ভ্যাট বসবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ