ঢাকা, মঙ্গলবার 16 May 2017, ০২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, ১৯ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

শরীয়তপুরে ঝড়ে ২ শতাধিক ঘর বিধ্বস্ত ॥ নিহত ১ আহত ৫০

শরীয়তপুর সংবাদদাতা : শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ ও নড়িয়া উপজেলার উপর দিয়ে প্রচন্ড বেগে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড়ে রোকেয়া বেগম নামের এক মহিলা গাছের চাপায় নিহত হয়েছে। ঝড়ে প্রায় অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়। আহতদদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। গুরুতর আহত ৬জনকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। ২০ মিনিটের স্থায়ী কালবৈশাখী ঝড়ে নড়িয়া ও ভেদরগঞ্জ উপজেলার দুই শতাধিক ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। নড়িয়া উপজেলা নিবার্হী কর্মকতা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এদিকে জেলার বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙ্গে ও তার ছিড়ে যাওয়ায় পুরো জেলায় প্রায় ১৩ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকে।
স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, গতকাল সোমবার সকাল ৬টায় হঠাৎ করে শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার চরআত্রা, নওপাড়া, ভেদরগঞ্জ উপজেলার কাচিকাটা ও ডিএমখালী ইউনিয়নের অন্তত ১২টি গ্রাম প্রচন্ড ঝড়ের কবলে পড়ে। ঝড়ে দুইটি উপজেলার ১২টি গ্রামের দুই শতাধিক কাঁচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে যায়। এসময় গাছের চাপা পরে ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার ডিএমখালী ইউনিয়নের চরপাইয়াতলী হাজী কান্দি গ্রামের জিয়াউর রহমান সরদারের স্ত্রী রোকেয়া বেগম নিহত হয়। ঝড়ের কবলে ও গাছ ও ঘরের চাপায় প্রায় দুইটি উপজেলার অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়। আহতদের মধ্যে নড়িয়ার চরআত্রা এলাকায় ঘরের নীচে চাপা পড়ে গুরুত্বর আহত ঢালী কান্দি গ্রামের নুরু রাড়ি (৪৫), মিয়াজুল ঢালী (৪০), মানিক মাল (৩০) সহ ৬জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
ঝড়ে জেলার বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙ্গে ও তার ছিড়ে যাওয়ায় জেলার সর্বত্র বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ ছিল। সকাল সাড়ে ৬টা খেকে সন্ধা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত প্রায় ১৩ ঘন্টা বিদ্যুৎ না থাকায় হাসপাতালসহ অফিস আদালতের লোকজন অসহনীয় যন্ত্রণায় পড়ে। সংবাদ কর্মীসহ জেলার অনেকেই বিদ্যুৎ অফিসে ফোন করে যোগাযোগের চেষ্টা করলে শরীয়তপুর জেলা শহরের বিদ্যুৎ অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী ফোন রিসিভ করেনি।
নিহতের স্বামী জিয়াউর রহমান জানায়, গতকাল সোমবার সকাল ৬টায় ঘুম থেকে উঠে রোকেয়া বেগম বাড়ি থেকে কিছু দূরে তার মেঝো মেয়ে রেহানার শ্বশুর বাড়ির দিকে রওয়ানা করে। এ সময় হঠাৎ ঝড়ো বাতাস শুরু হলে সেখানে না গিয়ে তিনি পুনরায় বাড়ীর উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেন । প্রচন্ড বাতাসে কোন এক সময় চাম্বুল গাছ ভেঙ্গে তার শরীরের উপর পড়লে সেখানই তিনি মারা যান।
নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী বর্মকর্তা বলেন, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রাথমিক ভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরুপন করেছি এবং আহতদের চিকিৎসা সেবা দিয়েছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ