ঢাকা, বুধবার 17 May 2017, ০৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, ২০ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাশিয়াকে তথ্য প্রদানের স্বীকারোক্তি নিজের পক্ষে সাফাই ট্রাম্পের

 

সংগ্রাম ডেস্ক : আইএস সম্পৃক্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ গোপন তথ্য রাশিয়াকে প্রদান করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সঙ্গে সঙ্গে নিজের পক্ষে সাফাই গেয়ে ট্রাম্প বলেন, প্রেসিডেন্ট হিসেবে তার সন্ত্রাসবাদ ও বিমানের নিরাপত্তা ইস্যু সম্পর্কীয় তথ্য প্রকাশের অধিকার আছে। আমাদের সময়.কম।

গত সপ্তাহে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ ও সের্গেই কিসলিয়াকের সঙ্গে ওভাল অফিসে দেখা করেন ট্রাম্প। ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই বৈঠকে রুশ প্রতিনিধিদের আইএসএর বিষয়ে গোপনীয় তথ্য দেন তিনি। এই তথ্যগুলো মধ্যপ্রাচ্যের এক মিত্র রাষ্ট্র অতি গোপনীয়তার শর্তে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রদান করে। রাশিয়াকে তথ্য দেয়ার আগে সেই রাষ্ট্রের কোন অনুমতি নেন নি ট্রাম্প।

গতকাল মঙ্গলবার ট্রাম্পের টুইটের আগে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক পরামর্শক দিনা পাওয়েল বলেন,‘এই প্রতিবেদনের কোন সত্যতা নেই। ট্রাম্প দ্বিপাক্ষিক সমস্যা সম্পর্কে আলোচনা করেছেন।’ ট্রাম্প নিজেও এটি অস্বীকার করেন।

তবে মঙ্গলবার বিকেলে এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, প্রেসিডেন্ট হিসেবে রাশিয়ার সঙ্গে তথ্য ভাগাভাগি করার অধিকার আমার আছে। সন্ত্রাসবাদ ও উড়োজাহাজের নিরাপত্তা সম্পর্কিত বিষয়ে তথ্য প্রদান করা হয়েছে। মানবিক কারণে আমি চেয়েছি রাশিয়া আইএস ও জঙ্গিবাদ দমনে আরো জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণ করুক।

যুক্তরাষ্ট্রের সাংবিধানিক নীতি মোতাবেক, প্রেসিডেন্ট হিসেবে কোন রাষ্ট্রের সঙ্গে গোপন তথ্য বিনিময় করতে পারেন ট্রাম্প। যদিও এই তথ্য প্রকাশ পাওয়ার পর ডেমোক্র্যাটরা ট্রাম্পের তীব্র সমালোচনা করছে। ট্রাম্পের নিজ দল রিপাবলিকানরাও ট্রাম্পের কাছে এই বিষয়টি ব্যাখ্যা চেয়েছে। ন্যাটোর একজন কূটনীতিক বলেন, এই খবর সত্য হলে ট্রাম্প তার মিত্রদেরও আস্থা হারাবেন।

উল্লেখ্য, ওয়াশিংটন পোস্টে রাশিয়াতে তথ্য প্রদানের সংবাদ প্রকাশের পর রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা ফেসবুক পোস্টে বলেন, ‘আপনাদের মার্কিন সংবাদপত্র পড়া উচিত হবে না। এগুলো পড়ার জন্য নয়, কোন কাজেই ব্যবহার করার জন্য। কারণ এটি শুধু ক্ষতিই ডেকে আনে না এগুলো বিপজ্জনক।’ সূত্র: রয়টার্স, সিএনএন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ