ঢাকা, বুধবার 17 May 2017, ০৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, ২০ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভারতীয় গুপ্তচরকে ১৫০ দিন সময় দিল পাকিস্তান

১৬ মে,  কাস্মির মনিটর : ভারতীয় গুপ্তচর কুলভূষণ যাদবকে মৃত্যুদ্ডর বিরুদ্ধে আবেদন জানাতে ১৫০ দিন সময় দেয়া হবে বলে আন্তর্জাতিক আদালতে জানিয়েছে পাকিস্তান।
পাশাপাশি কুলভূষণ যাদবের মৃত্যুদ- নিয়ে দিল্লীর বিরুদ্ধে পাক আইনজীবীদের অভিযোগ,  নাটক করার জন্যই আন্তর্জাতিক আদালতের মতো মঞ্চ বেছে নিয়েছে ভারত।
প্রসঙ্গত,  পাকিস্তানে আটক সাবেক ভারতীয় নৌসেনা কর্মকর্তা ও গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর চর কুলভূষণ যাদবকে পাক সামরিক আদালতের দেয়া মৃত্যুদ- বাতিল করার আবেদন নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে দিল্লি।
গতকাল সোমবার হেগের আইএসজে এজলাসে শুরু হয়েছে সেই মামলার শুনানি।
আদালতে ভারতের আইনজীবী হরিশ সালভে অভিযোগ করেন,  ভিয়েনা কনভেনশন অমান্য করছে পাকিস্তান। তার দাবি,  যাদবের অপরাধ স্বীকার করার ভুয়া ভিডিও পেশ করে আদালতকে প্রভাবিত করার চেষ্টায় রয়েছে ইসলামাবাদ।
ভারতের অভিযোগের পাল্টা জবাবে পাকিস্তানের পক্ষে ডিজি দক্ষিণ এশিয়া ও সার্ক মোহাম্মদ ফয়জল বলেন,  ‘ভারতের সন্ত্রাসবাদে আতঙ্কিত নই। মনে হচ্ছে ভারত বাড়াবাড়ি করছে। ভারতের আবেদন অপ্রয়োজনীয় এবং বিভ্রান্তিকর। ৭০ বছর আগে স্বাধীন হয় পাকিস্তান এবং প্রতিবেশীদের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখতে আমরা আগ্রহী।’
পাকিস্তানের পক্ষে আরেক আইনজীবী কুরেশি অভিযোগ করেন,  ‘যাদবের পাসপোর্টে কী কারণে মুসলিম নাম রয়েছে,  ভারত তার ব্যাখ্যা করেনি। আদালতে পেশ করা আবেদনেও অনেক ভুল রয়েছে। এই কারণে মাননীয় আদালতকে অনুরোধ,  অবিলম্বে তা প্রত্যাখ্যান করুন।’
কুরেশি দাবি,  ‘২০০৮ সালে হওয়া দ্বিপাক্ষিক চুক্তি মোতাবেক,  যাদবকে আইনি সাহায্য করা হবে। মৃত্যুদ-ের বিরুদ্ধে আবেদন জানাতে আসামিকে ১৫০ দিন সময় দেয়া হবে। যাদবেরর স্বীকারোক্তির ভিডিও আদালত চাইলে দেখতে পারে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে,  মৃত্যুদণড স্থগিতাদেশ দিয়েছে আন্তর্জাতিক আদালত,  যা মিথ্যা। এর থেকেই বোঝা যাচ্ছে,  গোটা বিষয়টি প্রভাবিত করার চেষ্টা চলেছে। তা ছাড়া এ কোনো ফৌজদারি আদালত নয় যে এমন আবেদন করা যাবে।’
তিনি আরো জানান,  ‘কুলভূষণের বিরুদ্ধে চরবৃত্তির অভিযোগের কোনো জবাব দেয়নি ভারত। জাতীয় নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার মতো কোনো বিষয় আলোচনায় ঠাঁই দিতে পাকিস্তান ইচ্ছুক নয়। যাদব সন্ত্রাসবাদী নয় দাবি করলেও এর সপক্ষেও কোনো প্রমাণ দাখিল করতে ব্যর্থ দিল্লি। ইরান থেকে যাদবকে অপহরণের অভিযোগ হাস্যকর।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ