ঢাকা, বুধবার 17 May 2017, ০৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, ২০ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রূপসা খেয়াঘাটে নতুন পন্টুন ও গ্যাংওয়েতে যাত্রী ভোগান্তি চরমে

খুলনা অফিস: জার্মান সরকারের অর্থায়নে খুলনার রূপসা খেয়াঘাটে নির্মিত নতুন পন্টুন ও গ্যাংওয়েতে যাত্রী ভোগান্তি চরমে উঠেছে। ভাটার সময় পন্টুন থেকে অনেক নীচে নৌকায় ওঠানামা দুরুহ হয়ে পড়েছে। স্বাভাবিকের থেকে বেশি ঢাল গ্যাংওয়েতে মোটরসাইকেল ও মালবোঝাই ভ্যান ওঠানো-নামানো একরকম অসম্ভব হয়ে পড়েছে। এরই মধ্যে নকশা পরিবর্তন করে পন্টুন ও গ্যাংওয়ে পুনঃসংস্কারের দাবি উঠেছে। খুলনা সিটি কর্পোরেশন রূপসা বাসস্ট্যান্ডের পাশাপাশি নদীর দুই পাড়ে পন্টুন ও গ্যাংওয়ে নির্মাণ করেছে।
জানা যায়, সিটি কর্পোরেশন এখানে খুলনা শহরের অন্যতম প্রবেশদার পূর্ব ও পশ্চিম রূপসা পাড়ের খেয়াঘাট আজো ‘রূপসা ফেরিঘাট’ নামেই পরিচিত। যদিও বহু আগেই ফেরি বিদায় নিয়ে এখানে চলছে ট্রলার।
রূপসা কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) ফ ম আব্দুস সালাম বলেন, প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ এই ঘাট দিয়ে পারাপার হয়। পূর্বের নড়বড়ে পন্টুুন ও সংযুক্ত ভাঙ্গা গ্যাংওয়েতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঘাট পার হতো যাত্রীরা। জায়গায় জায়গায় ভেঙে পড়ায় তা ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। অনেক দাবি আন্দোলনের পর নতুন এই গ্যাংওয়ে ও পন্টুন নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু ভোগান্তি কমাতে গিয়ে তা আরো বেড়ে গেছে।
তিনি বলেন, ইতোমধ্যে নবনির্মিত পন্টুন ও গ্যাংওয়ে পুনঃসংস্কারের দাবি উঠেছে। সিটি মেয়র ও কর্পোরেশনের কর্মকর্তারা কয়েক দফা পরিদর্শন করলেও সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়নি।
তবে কেসিসি’র নগর অঞ্চল উন্নয়ন প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ছয়ফুদ্দিন জানান, জোয়ারের সময় দু’পাড়ের ঘাট পানিতে নিমজ্জিত হয়। এ কারণে গ্যাংওয়ে কিছুটা উঁচু করে নির্মাণ করা হয়েছে। তবে ঢাল ঠিক রাখতে এটি পর্যাপ্ত লম্বা করা হয়েছে। যাত্রীরা জানান, এখনই লোক চলাচলে গ্যাংওয়েতে কম্পন সৃষ্টি হচ্ছে। বর্ষাকালে এটি পিচ্ছিল হয়ে বিপদজনক অবস্থা তৈরি হবে। যাত্রীদের প্রতিদিনকার দুর্ভোগ কমাতে কর্তৃপক্ষ এটি পুনঃসংস্কারে দ্রুত বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ নেবেন এটাই সকলের প্রত্যাশা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ