ঢাকা, সোমবার 20 November 2017, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২8, ৩০ সফর ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ফরাসি প্রেসিডেন্টের ভবন-এলিসি প্রাসাদ

অনলাইন ডেস্ক : এলিসি প্রাসাদে যাচ্ছেন নতুন ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ৷ ডয়চে ভেলে মাক্রোঁ ও তাঁর স্ত্রী ব্রিজিটের নতুন অভিজাত আবাসের কিছু ছবি তুলে ধরেছে এখানে৷

প্রেসিডেন্সিয়াল চেম্বার

এলিসি প্রাসাদ প্যারিসের এইটথ অ্যারোঁদিসেমেন্ট এ অবস্থিত৷ ফ্রান্সের রাজধানীর অন্যতম স্থাপত্যের নির্দশন এটি৷

ভোজনালয়

প্রেসিডেন্টের প্রাসাদের বাইরের চাকচিক্য যতটা ভেতরেও এর ব্যতিক্রম নয়৷ অভিজাত এই ডাইনিং রুম বা খাবার ঘরটি যথারীতি ঝলমলে ঝারবাতি এবং মখমলের পর্দায় সুসজ্জিত৷ করিবর্গায় সোনালি কাজ আপনাকে মুগ্ধ করবে, যা বহু বছরের পুরোনো৷ বিশ্ব নেতারা এখানে বসেই সেরা ফরাসি খাবারের স্বাদ নেন৷

ফরাসি খাবার

খাবারের জন্য ফরাসি প্রেসিডেন্টের প্রাসাদ সুপরিচিত৷ গুজব শোনা যায় জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল তাঁর ব্যক্তিগত রাঁধুনিকে ফরাসি রান্না শেখাতে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে পাঠিয়েছিলেন৷ ফরাসি প্রাসাদে প্রধান রাঁধুনির দায়িত্ব পালন যে সে কথা নয়৷ শোনা যায় বছরে ৯৫ হাজার মানুষের খাবার প্রস্তুত করে প্রাসাদের বার্বুচিরা৷

এক টুকরো কেক

এলিসি প্রাসাদে সুস্বাদু খাবারগুলোর অন্যতম হলো ‘গেলেত দে হোয়া’ অর্থাৎ ‘কিং কেক’৷ এটার একটা ঐতিহ্য বা প্রথা আছে আর তা হলো প্রতি বছর তিনটি কিং কেক তৈরি হয় এলিসি প্রাসাদে৷ আর এই কেকগুলোর মধ্যে একটি ছোট ব্রোঞ্জ মূর্তি লুকানো থাকে৷ যদি প্রেসিডেন্টের কেকের টুকরাটির মধ্যে এই মূর্তিটি পাওয়া যায়, তবে একদিনের জন্য তিনি হবেন ফ্রান্সের রাজা৷

সোনার চামচ মুখে নিয়ে জন্মানো

এলিসি প্রাসাদে কর্মরত সাবেক এক শেফ একবার সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে রূপার বাসনপত্র ব্যবহৃত হয়৷ আর এগুলো যাতে চুরি না হয় তাই ভল্টে তালাচাবি দিয়ে রাখা হয়৷

সম্পদের মধ্যে একটি বাগান

মাক্রোঁ দম্পতি কতটা প্রকৃতি প্রেমী তা এখনো জানা যায়নি৷ তবে তাঁরা চাইলে বাগান করার মত বিশাল জায়গা আছে৷ বাড়ির পেছনটা অনেকটা পার্কের মতো, আছে সবজি বাগান, গোলাপ বাগান আর বিশাল বৃক্ষের সমাহার৷

প্রতিদিন এক একটি ঘরে থাকলেও বেশি

প্রাসাদে ঘর আছে ৩৬৯টি৷ তবে প্রেসিডেন্টের ব্যক্তিগত কক্ষগুলো ভবনের পূর্ব দিকে অবস্থিত৷ সেখানে এত ঘর আছে যে ইচ্ছে করলে খেলাধূলা করা যাবে৷

ফ্রেঞ্চ রিপাবলিকের হৃদয়

১৮৭৩ সাল থেকে ফ্রান্সের রাষ্ট্রপ্রধানরা এই প্রাসাদে বসবাস করছেন৷ আগামী পাঁচ বছর হয়ত বা তারও বেশি সময়ের জন্য এমানুয়েল মাক্রোঁ এখানে অবস্থান করবেন৷ সূত্র: ডয়েচে ভেলে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ