ঢাকা, রবিবার 21 May 2017, ০৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, ২৪ শাবান ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভোট থেকে জনগণকে বঞ্চিত করতেই ইভিএম ব্যবহারের পরিকল্পনা করা হচ্ছে -ব্যারিস্টার মওদুদ

গতকাল শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এসোসিয়েশন অব ইউনিভার্সিটি টিচার্স এগ্রিকালচারাল সায়েন্সের উদ্যোগে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকীতে ‘বাংলাদেশের কৃষি ও পল্লী উন্নয়নে প্রেসিডেন্ট জিয়ার নীতি ও কর্মসূচি’ শীর্ষক সেমিনার ও গোলটেবিল আলোচনায় বক্তব্য রাখেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ -সংগ্রাম

 

স্টাফ রিপোর্টার : ভোট দেয়া থেকে জনগণকে বঞ্চিত করার কৌশল হিসেবে আগামী নির্বাচনে ব্যালটের পরিবর্তে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ইভিএম ব্যবহারের পরিকল্পনা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন মওদুদ আহমদ।

গতকাল শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি ডিআরইউ মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।  

অ্যাসোসিয়েশন অব ইউনিভার্সিটি টিচার্সের এগ্রিকালচারাল সায়েন্স ‘বাংলাদেশে কৃষি ও পল্লী উন্নয়নে  প্রেসিডেন্ট জিয়ার নীতি ও কর্মসূচি’ শীর্ষক এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে মূল প্রবন্ধ পড়েন ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এসএম গোলাম হাফিজ কেনেডী।

মওদুদ বলেন, ইভিএম দিয়ে ভোট- এটা একটা ষড়যন্ত্র। আপনারা ফ্রান্সের নির্বাচন দেখেছেন টিভিতে, অন্যান্য দেশেও ব্যালট বাক্সে ব্যালট পেপার দিয়ে মানুষ ভোট দেয়। আমাদের মতো দেশে ইভিএম ইন্ট্রোডিউস করার যারা চিন্তা করছেন, জনগণকে ভোটদানে বিরত রাখার জন্য এবং বঞ্চিত করার জন্য তারা এই ধরনের কৌশল গ্রহণ করেছেন।

বিএনপির ইভিএমবিরোধী অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করে মওদুদ বলেন, নির্বাচন হবে স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সের মধ্যে, ব্যালট পেপার দিয়ে। দেশের মানুষ অবাধে স্বেচ্ছায় নিজের ভোট নিজে দেবে, যাকে খুশি তাকে দেবে।

একাদশ নির্বাচনে নিজের দল অংশ নেবে জানিয়ে এই বিএনপি নেতা বলেন, ইনশাল্লাহ আমরা এই নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করব, একদলীয় কোনো নির্বাচন বাংলাদেশে আর হবে না।

মওদুদ বলেন, দেশে আজ কোনো রাজনীতি  নেই। যে রাজনীতি আছে সেটা অপরাজনীতি। তার দৃষ্টান্ত অনেক আগে আপনারা দেখেছেন, সকাল বেলাও গুলশান কার্যালয়ে দেখেছেন। এই হীনম্মন্যতা, এই ছোট মনের রাজনীতি, এই যে স্পর্শকাতরতা, এই যে প্রতিহিংসার রাজনীতি, এই রাজনীতির আমরা অবসান চাই। গুলশানের কার্যালয়ে পুলিশী তল্লাশির আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ করছি।

সংগঠনের সভাপতি কৃষিবিদ অধ্যাপক ইদ্রিস মিয়ার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেল, অধ্যাপক শাহ মো. ফারুক, অধ্যাপক সিরাজুল করীম, অধ্যাপক ফারুক হাসান, অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম, অধ্যাপক এম এ কুদ্দুস, অধ্যাপক নুরুল আলম, অধ্যাপক সহিদুল ইসলাম, কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, অধ্যাপক আবদুল লতিফ ও অধ্যাপক শওকত আলী বক্তব্য দেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ